শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিক্ষার আলোয় আলোকিত এক গ্রাম

news-image

এ যেন প্রদীপের নীচে অন্ধকার। বিদ্যুৎ বিহীন হারিকেন আর কুপি বাতির নিভু নিভু আলোতেই লেখা পড়া করতে হয় স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের। আর জরাজীর্ণ রাস্তা ও বাঁশের সাকো পারি দিয়ে বেশ কয়েক মাইল হেটে স্কুল কিংবা কলেজে যেতে হয় শিক্ষার্থীদের। তার পরও শিক্ষা নিয়ে অহংকারের শেষ নেই। এ অহংকার মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার নালী ইউনিয়নের আলোকিত গ্রাম গাংডুবী এলাকার মানুষের। নানা সমস্যায় জর্জরিত এই গ্রামটি। নেই বিদ্যুৎ.নেই পায়ে হেটে চলার ভাল রাস্তা ও নদী পারাপারের কোন ব্রিজ। এ নিয়ে চরম ক্ষোভ এই অঞ্চলের মানুষের। এই নিভৃত পল্লী গ্রামে কুপি বাতির আলোয় আলোকিত হয়েছেন অসংখ্য মানুষ। 

দেশ বিদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত এ গ্রামের বহু মানুষ। তারা জেলা শহর, রাজধানী ঢাকা ছাড়াও দূর দূরান্তে অবস্থান করে নিজ নিজ কর্মে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখে চলেছেন। শুধু অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থার কারনে তারা গ্রামের বাড়ি আসতে অনেকটা ভয় পান। শতশত পিতা মাতা পথ পানে চেয়ে থাকে তাদের সন্তান ও নাতি নাতনীদের জন্য। এনিয়ে তাদের কান্না আর আক্ষেপেরও শেষ নেই।

মানিকগঞ্জ জেলা শহর থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দুরের কাচা পাকা মেঠো পথ পেরুলেই গাংডুবী গ্রাম। উন্নয়নের কোন ছোয়া এখানে পড়েনি। তার পরও সবুজ শ্যামল প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য্যে ঘেরা গ্রামটি। গ্রামের অধিকাংশ মানুষের জীবিকা নির্ভর করে কৃষির ওপর। প্রায় প্রত্যেকটি পরিবারের মানুষ শিক্ষার আলোতে শিক্ষীত। উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে এ গ্রামকে আলোকিত করেছেন বেশ কিছু প্রতিভাবান। 

এলাকার মানুষের অভিযোগ, তাদের আলোকিত এই গ্রামের দিকে কেউ তাকায় না। জনপ্রিতিনিধিরা প্রত্যেকটি নির্বাচনের সময় উন্নয়নে বানী শুনিয়ে গেলেও তা মনে রাখে না। মানুষের কয়েকটি প্রধান সমস্যার একটি হলো বিদ্যুৎ এবং অপরটি রাস্তা ঘাট ও নদী পারাপারের। এই গ্রামের এক ইঞ্চি রাস্তায় পাকা তো দুরের কথা একটি ইটের টুকরোও পড়েনি। ভাঙ্গা চুরা রাস্তার বেশির ভাগ খানান্দরে ভরা। একটু বৃষ্টি হলেই চলার পথ আর পথ থাকে না। কাদায় ভরে যায়। বন্যার পানি তো দুরে থাক ছোট বর্ষা হলেই তলিয়ে যায় রাস্তা ঘাট। 

এছাড়া এ অঞ্চলের মানুষ জন্মলগ্ন থেকে বিদ্যুৎ সুবিধা বঞ্চিত। হারিকেন আর কুপি বাতির আলোই গ্রামের মানুষের এক মাত্র ভরষা। তার পরও বিদ্যুৎ বিহীন এই গ্রামটি শিক্ষা-দিক্ষায় পিছিয়ে নেই। এখানে শুধু মাত্র প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ২০ জন, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ জন ও কলেজ শিক্ষক রয়েছেন ৮ জন। এছাড়া এমবিবিএস ডাক্তার রয়েছেন ৯ জন, ব্যাংকার ৬ জন,সরকারী বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা রয়েছেন ১০ জন, বেসরাকারী চাকুরীজীবি রয়েছেন ৩০ জন। রয়েছেন পাইলট, ইউএনও, শিক্ষা কর্মকর্তা, কৃষিকর্মকর্তা, মৎস কর্মকর্তা, ইঞ্জিনিয়ার ও বৈজ্ঞানীকও। 

তাই তো গ্রামের মানুষের অহংকারের শেষ নেই। 

গাংডুবী গ্রামের শ্যামল রাজবংশী। যিনি পেশায় মৎস্যজীবি হলেও গর্বিত পিতা। তিনি তার সন্তানকে এ পেশায় রাখেনি। গ্রামের লেখা পড়ার গন্ডি পেরিয়ে এখন ঢাকা কলেজে লেখাপড়া করছে।

মানিকগঞ্জ সরকারী দেবেন্দ্র কলেজের শিক্ষার্থী মোঃ সুজন আহম্মেদ জানান, আমরা গাংডুবী গ্রামের মানুষ অত্যান্ত অবহেলিত। নেই বিদ্যুৎ,নেই যোগাযোগের ভাল রাস্তা। একটু বৃষ্টি হলেই বাড়ি থেকে বের হওয়া কষ্টকর হয়ে পড়ে। তার পরও শত কষ্ট উপেক্ষা করেও লেখা পড়ার জন্য স্কুল-কলেজে যেতে হয়। আমাদের লেখা পড়া করতে হয় কুপি বাতি আর হারিকেনের আলোতে। এগুলো দেখার কেউ নেই। 

এ গ্রামের নিত্যানন্দ সরকার জানালেন, মানিকগঞ্জ জেলায় যদি কোন অবহেলিত গ্রাম থেকে থাকে তাহলে আমাদের এই গ্রামটি এক নম্বরে। বর্ষা হলে নৌকা ছাড়া কোন উপায় নেই। পায়ে হাটার চলার পথ গুলো একদম জরাকির্ন। জন্ম লগ্ন থেকেই বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকায় সন্ধ্যার পর পুরো গ্রামটি ভুতরে হয়ে যায়। গ্রামের মানুষের আলোর প্রধান হাতিয়ার হারিকেন ও কুপি বাতি। অথচ এই গ্রামের প্রতিটি ঘরেই রয়েছে শিক্ষার আলো। আমার এক মাত্র ছেলেকে আমি খুব কষ্টে লেখা পড়া শিখিয়েছি। 

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের বলেন, শুধু গাংডুবী গ্রাম নয় আমার পুরো ইউনিয়নটি উন্নয়ন বঞ্চিত। রাস্তা ঘাট,বিদ্যুৎ ব্যবস্থা এখানে সব চেয়ে বড় সমস্যা। আর গাংডুবী গ্রাম শিক্ষা দিক্ষায় আলোকিত হলেও উন্নয়ন বলতে যা বোঝায় তা হয়নি। বিদ্যুত নেই, ভাল রাস্তাও নেই। সব মিলিয়ে গাংডুবী গ্রামটি অত্যন্ত অবহেলিত।

 

এ জাতীয় আরও খবর