শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আখেরাত অর্জনের মৌসুম

news-image

এমনিতেই মোমিনের জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত পরকালের উপার্জনে ব্যয় করা উচিত। কিন্তু রমজানুল মোবারকে এদিকে বিশেষভাবে মনোযোগ দেয়া উচিত। রমজানুল মোবারকের প্রতি যত্নবান হওয়া মোমিনের জন্যই সৌভাগ্যের বিষয়। কারণ, রমজানুল মোবারক হলো পরকাল উপার্জনের ভরা মৌসুম। এ মাসে ভালো কাজের প্রতিদান এত অধিক যে, কোনো ব্যক্তি একটি নফল আদায় করলে, অন্য মাসের একটি ফরজ আদায় করার সওয়াব পাবে। আর এ মাসে একটি ফরজ আদায় করলে অন্য মাসের ৭০টি ফরজ আদায় করার প্রতিদান পাবে। এ মাসটি ধৈর্য ও সবরের মাস। আর ধৈর্য ও সবরের প্রতিদান হলো জান্নাত। এটি সহমর্মিতার মাস। এটি এমন এক পুণ্যময় মাস যে মাসে মোমিনের রিজিকে প্রবৃদ্ধি ঘটানো হয়ে থাকে। এ মাসে কোনো রোজাদারকে ইফতার করালে তার গোনাহ মাফ হয়ে যায়। জাহান্নামের আগুন থেকে নাজাত পাওয়া যায় এবং রোজাদারের সমপরিমাণ সওয়াবের অংশীদার হওয়া যায়; কিন্তু রোজাদারের সওয়াবের কোনো হ্রাস হয় না। মোটকথা, রমজানুল মোবারক একটি গুরুত্বপূর্ণ মাস, নেকি অর্জনের ভরা মৌসুম। এমন গুরুত্বপূর্ণ মাসকে মোমিন কিছুতেই অবহেলা করতে পারে না। এ মাস মূলত মুসলমানকে পবিত্র ও পরিশুদ্ধ করার জন্য এসেছে। এ মাসে রয়েছে পরিশুদ্ধ হওয়ার ও আখেরাতের জন্য কামাই করার অবারিত সুযোগ। এজন্যই এ মাসে জান্নাতের দরজাগুলো উন্মুক্ত করে দেয়া হয়, জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয় এবং শয়তানকে শৃঙ্খলাবদ্ধ করা হয়। হাদিস শরিফে আছে, 'যে ব্যক্তি রমজানে একটি নফল আমল করল সে যেন অন্য মাসে একটি ফরজ আদায় করল। আর যে ব্যক্তি এ মাসে একটি ফরজ আদায় করল সে যেন অন্য মাসে ৭০টি ফরজ আদায় করল।' (শুয়াবুল ঈমান ৩/৩০৫-৩০৬); কিন্তু দিন দিন রমজানের গুরুত্ব ও পরিচ্ছন্নতা আমাদের থেকে উঠে যাচ্ছে এবং তা অনেকটা আচার-অনুষ্ঠানের মধ্যে সীমাবদ্ধ হয়ে যাচ্ছে।আমরা এখন রমজানে যতটা না রোজার মাহাত্ম্য ও তার পরিচ্ছন্নতার দিকে গুরুত্ব দিই তার চেয়ে বেশি গুরুত্ব দিই রমজানের আনুষ্ঠানিকতার প্রতি। ইফতারিতে কী খাব? আর সাহরিতে কী খাব? বাজার কী করব? ইত্যাদি বিষয় আমাদের কাছে মুখ্য হয়ে দাঁড়ায়। রমজানের মাহাত্ম্য বিধ্বংসী কার্যকলাপের দিকেই আমরা বেশি গুরুত্ব দিই। তাই রমজান আসে রমজান যায়, কিন্তু আমাদের আমলের মধ্যে কোনো পরিবর্তন আসে না।কেউ রোজা পালন করছে অন্যদিকে মিথ্যা বলছে, মানুষকে ঠকিয়ে হারামও খাচ্ছে, মাপে কম দিচ্ছে, জিনিসপত্রের দাম ন্যায্যমূল্যের অধিক রেখেছে, দুর্নীতি করছে, মদ ও ব্যভিচারে নিজেকে নিয়োজিত রাখছে, পরের হক নষ্ট করছে, পরচর্চা, পরনারী দর্শন ও অসৎ চিন্তা করছে, নামাজ তরক করছে, এহেন ব্যক্তির রোজা রাখা না রাখা সমান কথা। রোজার মূল লক্ষ্য তাকওয়া (আল্লাহ্ ভীতিপূর্ণ সাবধানতা বা পরহেজগারি)। আমাদের মনে রাখতে হবে যে, রমজান উৎসব-অনুষ্ঠানের নাম নয়; বরং তা হচ্ছে পানাহার, স্ত্রী সম্ভোগের বাহ্যিক চাহিদাগুলো পরিত্যাগ করার পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ যাবতীয় ত্রুটি-বিচ্যুতি দূর করে অন্তরকে পরিশুদ্ধ করার নাম। এজনই রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, 'যে ব্যক্তি রোজা রেখেও মিথ্যা কথা ও প্রতারণার কাজ পরিত্যাগ করে না, তার পানাহার বর্জনে আল্লাহ তায়ালার কোনো প্রয়োজন নেই। (আল হাদিস)। অন্য বর্ণনায় আছে, 'রোজা জাহান্নাম থেকে রক্ষার ঢালস্বরূপ, যতক্ষণ মিথ্যা কথা ও পরনিন্দার দ্বারা তাকে ছিদ্র করা না হয়।' (ইবনে খুজায়মা : ১৮৯২, তাবরানি, আওসাত : ৭৮১০) সুতরাং এ মাসটি অন্য মাসের মতো নয়। রোজার মাধ্যমে অন্তরে আল্লাহভীতি ও ঈমানি লজ্জত সৃষ্টি হয়। রোজাদার ক্রমে গোনাহ থেকে দূরে সরতে থাকে। রোজা তার জন্য জাহান্নামের আগুন থেকে রক্ষাকারী ঢালস্বরূপ হয়ে যায়। তবে এর জন্য শর্ত হলো, গিবত-শেকায়েত ও মিথ্যা কথা থেকে বেঁচে থাকতে হবে। একাধিক হাদিসে এ দুইটি গোনাহের ব্যাপারে বিশেষভাবে সতর্ক করা হয়েছে। অথচ রমজানে এ দুইটি গোনাহ আমাদের থেকে বেশি হয়। গিবত-শেকায়েত, অনর্থক কথাবার্তার মাঝে রমজানের মূল্যবান সময়গুলো বিনষ্ট করে দিই। আমাদের অনেকে রমজানে সারা দিন কাজ না থাকার কারণে গিবত করে সময় কাটান। সবচেয়ে বড় জিনিস হলো, আমরা গিবতকে বড় ধরনের কোনো অন্যায় মনে করি না। বরং আমাদের অনেকে এভাবে যুক্তি দাঁড় করানোর চেষ্টা করে যে, একথা আমি ওমুকের সামনেও বলতে পারব। আমাদের মনে রাখতে হবে, কারও সামনে তার দোষচর্চা করতে পারলেই গিবত জায়েজ হয়ে যায় না। গিবত সবসময়ই গিবত। চাই তা সামনে করা হোক বা পেছনে করা হোক। রাসুল (সা.) এর কাছে সাহাবায়ে কেরাম গিবত সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'তোমার ভাইয়ের এমন আলোচনা করা যাতে সে ব্যথা পায়। সাহাবায়ে কেরাম বললেন, ইয়া রাসুলুল্লাহ (সা.)! যদি আমার ভাইয়ের মধ্যে সেই দোষ বাস্তবিক অর্থে থেকে থাকে তাহলেও কি এ গোনাহ হবে? রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, যদি তোমার ভাইয়ের মধ্যে এ দোষ থেকে থাকে তবেই তো তুমি গিবত করলে, আর যদি তার মধ্যে এ দোষ না থাকে তাহলে তো তুমি তার ওপর মিথ্যা অপবাদ আরোপ করলে।

এক হাদিসে এসেছে, রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, 'মানুষের প্রতিটি আমল ১০ গুণ থেকে ৭০০ গুণ বৃদ্ধি করা হয়। কিন্তু (রোজা সম্পর্কে) আল্লাহ তায়ালা বলেন, রোজা এ নিয়মের ব্যতিক্রম। কারণ, তা শুধু আমার জন্য। আমি স্বয়ং তার প্রতিদান দেব। বান্দা আমার জন্য তার মনষ্কামনা ও পানাহার বিসর্জন দেয়।' (বোখারি ও মুসলিম)। প্রতিটি ইবাদতই মহান আল্লাহ তায়ালার জন্য। এতদসত্ত্বেও শুধু রোজাকে আল্লাহ তায়ালা নিজের জন্য বলার তাৎপর্য হলো অন্যান্য ইবাদতের মধ্যে যে কোনো ক্রিয়া থাকে তাই তা মানুষের দৃষ্টিগোচর হওয়ার কারণে তাতে রিয়া বা লোক দেখানো অবকাশ আছে। পক্ষান্তরে রোজা এমন একটি ইবাদত যাতে ক্রিয়া সম্পাদন করতে হয় না; বরং ক্রিয়া বর্জন করতে হয়। যেমন_ পানাহার ও স্ত্রী সহবাস ত্যাগ করতে হয়। ফলে তাতে রিয়া বা লোক দেখানোর অবকাশ থাকে না। সুতরাং যে ইবাদতের মধ্যে লোক দেখানোর অবকাশ থাকে না, তার প্রতিদানও বিশেষ বৈশিষ্ট্যম-িত হওয়া উচিত। এজন্যই দয়াময় আল্লাহ অন্যান্য ইবাদতের প্রতিদান ফেরেশতাদের মাধ্যমে দিলেও রোজার প্রতিদান তিনি নিজেই দান করেন।