শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেশজুড়ে রেলক্রসিং নামের মরণফাঁদ

news-image

দেড়শ’ বছরের পুরনো আইনে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে রেল। পুরনো এই আইনটির সংশোধন বা আধুনিকীকরণের কোনো উদ্যোগ নেই। নেই প্রায় অচল ও অবাস্তব এই আইনের যথাযথ প্রয়োগও। ফলে পুরো রেল বিভাগই চলছে চরম বিশৃংখল অবস্থার মধ্য দিয়ে। সিডিউল বিপর্যয়, রেল লাইনে দুর্ঘটনা, বগি লাইনচ্যুত হওয়া, রেল ক্রসিংয়ে মানুষের প্রাণহানি, জমজমাট মাদক ব্যবসা, প্রতিটি কাজে দুর্নীতি- এসব এখন রেলের নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। রেলক্রসিং যেন মরণফাঁদ। কেন প্রতি বছর শুধু রেলক্রসিংয়েই ২ হাজার ২০০ মানুষের প্রাণহানি ঘটছে, কেন ২ হাজার ৪৯৭টি রেলক্রসিংয়ের মধ্যে এক হাজার ৩০০টি অবৈধ এবং এগুলোতে প্রহরী নেই, কেন রাজধানীতেই রেলে কাটা পড়ে ৪০০ জনেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হচ্ছে, আর শুধু কুড়িল রেলক্রসিংয়েই বছরে ২০০ জনের প্রাণহানি ঘটছে কেন, কেন রাজধানী ঢাকার রেলক্রসিংগুলোতে ওভারপাস বা আন্ডারপাস নির্মিত হচ্ছে না- এসব কেন’র কোনো সুস্পষ্ট জবাব নেই রেল কর্তৃপক্ষের কাছে। কিন্তু রেলমন্ত্রী ও কর্তৃপক্ষের বড় বড় আশার বাণী ও বক্তব্য শুনলে মনেই হবে না যে, রেলে এত দুর্দশা চলছে। রেলক্রসিংয়ে ওভারপাস বা আন্ডারপাস নির্মাণ নিয়েও রয়েছে কর্মকর্তাদের পরস্পরবিরোধী বক্তব্য। মন্ত্রী ও পরিচালক বলেন একেক কথা। আর মহাপরিচালক বলেন অন্যরকম। বছরের পর বছর ধরে এ অবস্থা চলতে থাকলেও পরিস্থিতির এতটুকু উন্নতি হয়নি। এমনকি অদূর ভবিষ্যতে রেলের বিরাজমান সমস্যাগুলোর সমাধানের কোনো কার্যকর পদক্ষেপও নেই। নেই কোনো আশার বাণীও। এমনই এক হযবরল অবস্থার মধ্য দিয়ে চলছে দেশের রেলওয়ে বিভাগ। রেল দুর্ঘটনা ও রেলক্রসিংয়ে মৃত্যু রোধে রেল বিভাগের দৃশ্যমান কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নেই। কিন্তু শুধু রেল দুর্ঘটনার লাশ উদ্ধারেই বছরে প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা খরচ হচ্ছে। লাশপ্রতি কত টাকা কিভাবে খরচ হচ্ছে, দুর্ঘটনা রোধের পরিবর্তে লাশ উদ্ধারেই কেন বেশি আগ্রহী এবং বিদ্যমান আইনের ব্যত্যয় ঘটিয়ে লাশ উদ্ধারে কেন এত বিপুল পরিমাণ অর্থ খরচ করা হচ্ছে- তারও কোনো ব্যাখ্যা নেই রেল কর্তৃপক্ষের কাছে। বর্তমানে রেল চলছে সেই ব্রিটিশ শাসনামলের ১৮৬১ সালের পুরনো অবাস্তব আইনে। এই আইনের ১২ নম্বর ধারা অনুযায়ী রেললাইনের দু’পাশে ২০ ফুটের মধ্যে নির্দিষ্ট লোকবিহীন কোনো সাধারণ মানুষ কিংবা গবাদি পশু প্রবেশ সম্পূর্ণ নিষেধ। লাইনের দু’পাশের ২০ ফুট এলাকায় সব সময়ই ১৪৪ ধারা জারি থাকে। ওই সীমানার ভেতর কাউকে পাওয়া গেলে ওই আইনের ১০১ ধারায় গ্রেফতার করা যাবে। গবাদি পশু আটক করে তা বিক্রয় করে সেই অর্থ সরকারের কোষাগারে জমা দেয়ারও কথা রয়েছে আইনটিতে। রেলওয়ে আইনের ১২নং ধারার ‘ঘ’ অনুযায়ী ট্রেনে কাটা লাশ ধর্ম ও জাতীয়তা অনুসারে দাফন বা দাহ্য করার জন্য ৮ টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। বর্তমানে একটি লাশ উদ্ধার করলে ১৪শ’ টাকা ডোমদের দিতে হয়। যে পুলিশ অফিসার ওই মামলাটি পরিচালনা করেন তাকে দেয়া হয় ২ হাজার টাকা। লাশ উদ্ধার করে মর্গ পর্যন্ত পৌঁছাতে যানবাহন খরচ লাগে আরও প্রায় ৪/৫ হাজার টাকা। কখনও আবার দূরত্ব বুঝে যানবাহন খরচ দিতে হয় ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকা। সব মিলে একেকটি লাশ উদ্ধার করে মর্গে পৌঁছানো পর্যন্ত কমপক্ষে ৮ থেকে ১৫ হাজার টাকা খরচ হয়। রেল দুর্ঘটনার অধিকাংশ লাশই টুকরো হয়ে যায়। অজ্ঞাত থাকে অনেকের পরিচয়। অজ্ঞাত লাশগুলো আঞ্জুমানে মফিদুলে হস্তান্তর করা হলে তারা বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে কবর দেয়। সারা দেশের রেলওয়েতে গড়ে প্রতি দিন প্রায় ৬ জন লোকের মৃত্যু হলেও সমাধানের পথ খুঁজে বেড় করতে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের কোনো উদ্যোগ নেই। কাজের কাজ করার বদলে তারা একে অপরকে দায়ী করে নিজেদের দোষ ঢাকতেই বেশি ব্যস্ত। সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, রাজধানী ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ বারিধারা কুড়িল রেলক্রসিংয়ে প্রায় প্রতিদিনই দুর্ঘটনা ঘটছে। কুড়িল রেলক্রসিংয়ের দু’পাশের বনরুপা এলাকা থেকে কুড়িল ফ্লাইওভার ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় আধা কিলোমিটার রেলপথ অনেকটাই বাঁকা। এ বাঁকা রেলপথের জন্য পথচারীরা যেমন ট্রেন দেখতে পায় না, তেমনি ট্রেনচালকও পথচারীদের দেখতে পান না। ফলে রাজধানীর এ এলাকায় সবচেয়ে বেশি লোক ট্রেনের ধাক্কায় নিহত হন অথবা কাটা পড়ে মৃত্যুবরণ করেন। গত ১ বছরে শুধু নারায়ণগঞ্জ থেকে টঙ্গী পর্যন্ত রেললাইন ও রেলক্রসিংগুলোতে দুর্ঘটনায় ৬শ’ সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এমন বিপদসংকুল রেলপথের খবর কর্তৃপক্ষের জানা থাকলেও, দুর্ঘটনা রোধে কোনো ব্যবস্থাই তারা নেয়নি। বিষয়টি নিয়ে সংসদে একাধিক আলোচনায় বৈধ-অবৈধ লেভেল ক্রসিংয়ে ওভারপাস অথবা আন্ডারপাস নির্মাণের বিষয়টি উত্থাপিত হয়েছে বিভিন্ন সময়ে। রেল বাজেটেও প্রসঙ্গটি গুরুত্ব পেয়েছে। এমনকি, রেলপথ মন্ত্রণালয় হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত ৪ জন রেলমন্ত্রীও এ বিষয়ে একাধিকবার প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন, দেশের অবৈধ রেলক্রসিংগুলো বন্ধ করা হবে। কিংবা সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে প্রহরী নিয়োগের মাধ্যমে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, রেল দুর্ঘটনা যত হচ্ছে কিংবা রেল ক্রসিংয়ে সাধারণ মানুষের যত মৃত্যু হচ্ছে, তার ৬০ শতাংশ দায়ী এমন অবৈধ ও খোলা ক্রসিং। এই দুর্ঘটনায় মোট মৃত্যুর ৭৫ শতাংশের জন্য দায়ী বিনা পাহারার রেলক্রসিং। এ বিষয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ে প্রকৌশল পরিচালক এএসএম সামুদুর রহমান বলেন, শুধু অবৈধ রেলক্রসিংগুলোতেই নয়, বৈধগুলোতেও দুর্ঘটনা ঘটছে। তাতে হতাহতসহ প্রাণহানিও হচ্ছে। বিভিন্ন যানবাহনের পাশপাশি পথচারীরা যেন এক প্রকার প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে ক্রসিং পারাপারে লিপ্ত হয়। ক্রসিংয়ের দু’পাশে বার পড়া থাকলেও তা অমান্য করে ছুটতে চায় সাধারণ লোকজনসহ বিভিন্ন যানবাহনের চালকরা। তিনি বলেন, সরকারের প্রতিশ্র“তি অনুযায়ী নারায়ণগঞ্জ থেকে টঙ্গী পর্যন্ত ২৭টি রেলক্রসিংয়ে ফ্লাইওভার ব্রিজ কিংবা আন্ডারপাস তৈরির পরিকল্পনা হিসেবে সম্ভাব্যতা যাছাইয়ের কাজ শুরু হচ্ছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই এই সংক্রান্ত একটি প্রাথমিক সমীক্ষার কাজ মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হবে। তবে এ বিষয়ে রেলওয়ে মহাপরিচালক মো. আমজাদ হোসেন বলেন, রেলক্রসিংগুলোর ওপর ফ্লাইওভার ব্রিজ দিয়ে কি লাভ হয়েছে? ফ্লাইওভারের নিচে থাকা রেললাইনের ওপর দিয়ে তো যানবাহন চলছেই। দুর্ঘটনা তো ঘটছেই, হতাহতসহ প্রাণহানির ঘটনাও ঘটছে। লাইনের ওপর ফ্লাইওভার করা হলে নিচ দিয়ে যান চলাচল বন্ধ করতে পারলেই ফ্লাইওভার করার কার্যকারিতা তথা রেলক্রসিংয়ে প্রাণহানি রোধ করা সম্ভব হবে। ফ্লাইওভার ও আন্ডারপাস তৈরিতে সড়ব কিংবা সেতু বিভাগ অর্থ দেবে এটাই স্বাভাবিক জানিয়ে তিনি বলেন, রাজধানীর রেলক্রসিংগুলোতে ফ্লাইওভার নির্মাণ করতে প্রাথমিক সমীক্ষা চালানো হচ্ছে। সারা দেশের ক্রসিংগুলোয় ফ্লাইওভার করতে হলে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। রেলওয়ে পুলিশ সদর দফতর সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশে প্রতিদিনই ট্রেনে কাটা কিংবা ধাক্কায় লোকজন মারা যাচ্ছেন। অন্যদিকে প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আÍহত্যার ঘটনা ঘটছে। প্রতি বছর পুরো রেলওয়েতে দুর্ঘটনা তথা ট্রেনে কাটা পড়া, আত্মহত্যার ঘটনায় নিহতের সংখ্যা প্রায় ২২শ’। এর মধ্যে ঢাকা রেলওয়ে জোনে (নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা-টঙ্গী, গাজীপুর-পূবাইল, বঙ্গবন্ধু ব্রিজ-তারিকান্দি) সব চেয়ে বেশি লোক ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত হচ্ছে। ঢাকা কমলাপুর রেলওয়ে জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবদুল মজিদ যুগান্তরকে জানান, এ রুটে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ১৩ জুন পর্যন্ত প্রায় ৫শ’ লোক ট্রেনে কাটা-ধাক্কায় নিহত হয়েছে। এর মধ্যে চলতি মাসের ১১ থেকে ১৩ তারিখ পর্যন্ত ৪ দিনে রাজধানীর কুড়িল রেলক্রসিংয়ে ট্রেনে কাটা পড়ে মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের। গত মে মাসে এ এলাকায় এক সাংবাদিকসহ ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। প্রায় আধা কিলোমিটার রেলপথ বাঁকা হওয়ায় এ এলাকাটি সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ বলেও তিনি বলেন। ওসি মোহাম্মদ আবদুল মজিদ জানান, রেললাইনের দু’পাশে ১০ ফুট করে মোট ২০ ফুট এলাকায় ট্রেন দুর্ঘটনাবিহীন যে কোনো লোক ট্রেনে কাটা বা ধাক্কায় মারা গেলে তার দায়দায়িত্ব রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের নয়। বরং লাইনের নির্দিষ্ট এলাকায় ট্রেনে কাটা বা ধাক্কায় লোক মারা গেলে ওই মৃত্যু ব্যক্তির নামে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ উল্টো মামলা করতে পারে। তিনি বলেন, সারা দেশে ট্রেনে কাটা কিংবা ধাক্কায় যত লোক মারা যাচ্ছে তাদের সবাইকে উদ্ধার করা সম্ভব হয় না। অনেক সময়ই নিহতদের আত্মীয়স্বজনরা লাশ নিয়ে যায়। পরে যার খোঁজ পাওয়া যায় না।

ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের বক্তব্য, ওভারব্রিজ আর আন্ডারপাসের পরিকল্পনা চলুক। কিন্তু, অন্তত তা শেষ না হওয়া পর্যন্ত ফাঁকা লেভেল ক্রসিংয়ে প্রহরী নিয়োগ করা জরুরি। একই সঙ্গে বাঁকা রেললাইনের পাশ ঘেঁষে গ্লাস (আয়না) দেয়া যেতে পারে। যাতে পথচারীরা ট্রেন আর চালকগণ পথচারীদের দেখতে পারেন। জনসচেতনার লক্ষ্যে লাইনের পাশে বড় অক্ষরে সাইনবোর্ড ঝুলানো হোক। এ প্রসঙ্গে রেলপথমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক এমপি যুগান্তরকে জানান, ট্রেনের নিচে কাটা কিংবা ধাক্কায় লোকজন নিহত হওয়ার ঘটনা অন্তত্য দুঃখজনক। শুধু সচেতনতার অভাবেই এসব দুর্ঘটনায় সাধারণ মানুষ প্রাণ হারাচ্ছেন। তিনি বলেন, রেললাইনের ওপর দিয়ে অনেকেই কানে ইয়ারফোন লাগিয়ে গান শুনে শুনে হাঁটেন। ক্রসিংয়ের দু’পাশে বার পড়া থাকলেও কে কার আগে ক্রসিং পার হবে তা নিয়ে প্রতিযোগিতা শুরু হয়। ট্রেন দুর্ঘটনায় যেসব যাত্রী নিহত হয়, তাদের পরিবারকে রেলওয়ে আইন অনুযায়ী আর্থিক সহায়তা করা হয় জানিয়ে তিনি বলেন, অবৈধ রেলক্রসিংগুলো বন্ধ কিংবা সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে। দুর্ঘটনা এড়াতে নারায়ণগঞ্জ থেকে টঙ্গী পর্যন্ত বৈধ রেলক্রসিংগুলোর ওপর ফ্লাইওভার নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। রেললাইনের ওপর দিয়ে না হাঁটার জন্য তিনি সবাইকে অনুরোধ জানান।