সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জনতা ব্যাংকে ৫১০ কোটি টাকার ঋণ জালিয়াতি

news-image

দুর্নীতি আর অনিয়মের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন জনতা ব্যাংকের বর্তমান কর্তৃপক্ষ। এরই অংশ হিসেবে রাজধানীর দুটি বড় শাখায় ৫১০ কোটি টাকার ঋণ জালিয়াতির ঘটনা ধরা পড়েছে। ঘটনার এখানেই শেষ নয়, এসব জালিয়াতি-অনিয়মের সঙ্গে যেসব ব্যাংক কর্মকর্তা জড়িত তাদেরও চিহ্নিত করে শাস্তির মুখোমুখি করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক মুখ্য সচিব ও জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান শেখ মো. ওয়াহিদ উজ-জামানের নেতৃত্বাধীন পরিচালনা পর্ষদ এসব উদ্যোগ নিয়েছে বলে ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে।জানা গেছে, ব্যাংক কর্তৃপক্ষের এই শুদ্ধি অভিযানে আতংকিত হয়ে পড়েছে দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা। ব্যাংকের বিভিন্ন শাখা ঘুরে দেখা গেছে সবাই তটস্থ। জনতা ব্যাংকের অধিকাংশ শাখাতেই স্বচ্ছতা ও গতিশীলতা ফিরে আসছে। ঋণ বরাদ্দ বা ঋণ দেয়ার সুপারিশে যাতে কোনো ক্রটি-বিচ্যুতি না থাকে সে বিষয়েও সবাই সতর্ক। আর এসবই সম্ভব হয়েছে সৎ আমলা হিসেবে স্বীকৃত ব্যাংকের নতুন চেয়ারম্যান শেখ মো. ওয়াহিদ উজ-জামানের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে। জানতে চাইলে বুধবার জনতা ব্যাংকের চেয়ারম্যান শেখ মো. ওয়াহিদ উজ-জামান যুগান্তরকে জানান, ঋণ জালিয়াতি আর অনিয়মের বিষয়ে আমরা জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছি। রাষ্ট্রায়ত্ত এই ব্যাংকটির কার্যক্রমে আরও গতি আনার জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। বিভিন্ন শাখায় একশ্রেণীর দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার অসাধু কাজের জন্য পুরো ব্যাংকের বদনাম হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরেই কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একটি সিন্ডিকেট সক্রিয় ছিল। আমরা তাদের চিহ্নিত করার উদ্যোগ নেয়ায় সার্বিক ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের উন্নতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, রাষ্ট্রীয় খাতের অন্যতম এ সেরা ব্যাংকের বিভিন্ন পর্যায়ে অনিয়মের কারণে আশানুরূপ অগ্রগতি থমকে আছে। আমরা চেষ্টা করছি ব্যাংকটিকে আরও লাভজনক করার পাশাপাশি গ্যাস, বিদ্যুৎ ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে বিনিয়োগ বাড়াতে। যাতে দেশের সার্বিক অর্থনীতিতে অবদান রাখা যায়। সূত্র মতে, ব্যাংকটির সর্বোচ্চ পর্যায়ের তদারকিতে সরকারি খাতের জনতা ব্যাংকের রাজধানীর দুটি বড় শাখায় ৫১০ কোটি টাকার ঋণ জালিয়াতির ঘটনা ধরা পড়েছে। ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ এক তদন্তে এ ঘটনা আবিষ্কৃত হয়েছে। কতিপয় অসাধু ব্যাংক কর্মকর্তার সহায়তায় রানকা সোহেল কম্পোজিট টেক্সটাইল ও গ্রামবাংলা কেমিক্যালস নামের দুটি প্রতিষ্ঠান জালিয়াতির মাধ্যমে ওই টাকা বের করে আÍসাৎ করেছে। এর সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ১০ জুন প্রধান কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) ও একজন উপ-মহাব্যবস্থাপককে (ডিজিএম) সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে। আরও এক জিএম ও এক ডিজিএমকে তাৎক্ষণিকভাবে বদলির আদেশ দেয়া হয়েছে। গ্রাহকের নামে নতুন করে সব ধরনের টাকা ছাড় করা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এই জালিয়াতির সঙ্গে আরও কারা জড়িত রয়েছে তাদের শনাক্ত করতে তদন্ত চলছে। জনতা ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন একটি সূত্র থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। সূত্র জানায়, এই ঋণ জালিয়াতির বিষয়ে ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ তদন্ত প্রতিবেদন ১০ জুন পর্ষদে উপস্থাপন করা হলে আলোচনা করে পর্ষদ থেকে তাদের বরখাস্ত ও তাৎক্ষণিকভাবে বদলি করার সিদ্ধান্ত নেয়। পর্ষদের চেয়ারম্যান শেখ ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই সভায় ব্যাংকের ভেতরে নানা অনিয়মের বিষয়ে আরও ব্যাপক তদন্তের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তদন্তে যেসব কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যাংকের প্রচলিত আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। পর্ষদের ওই সিদ্ধান্তের পরই ব্যাংকের প্রশাসন বিভাগের দায়িত্বে থাকা উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (ডিএমডি) হাসান ইকবাল ওইসব কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত ও তাৎক্ষণিকভাবে বদলির আদেশ জারি করেন। সূত্র জানায়, জনতা ব্যাংকের রমনা কর্পোরেট শাখা থেকে রানকা সোহেল কম্পোজিট টেক্সটাইলের নামে ৬০ কোটি টাকার ঋণ দেয়ার জন্য কার্যালয় থেকে অনুমোদন দেয়া হয়। কিন্তু এই সীমার বিপরীতে শাখা থেকে তাকে ঋণ দেয়া হয়েছে ২৬০ কোটি টাকা। অনুমোদিত ঋণ সীমার চেয়ে ২০০ কোটি টাকা বেশি ঋণ দেয়া হয়েছে বেআইনিভাবে। এই ঋণের বিপরীতে ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের কোনো অনুমোদন ছিল না। এমনকি প্রধান নির্বাহীকেও সীমা অতিরিক্ত ঋণ দেয়ার ঘটনাটি জানানো হয়নি। ওই শাখার দায়িত্বে থাকা প্রধান কার্যালয়ের জিএম মাহফুজুর রহমান নিজ স্বাক্ষরে একটি চিঠি দিয়ে শাখাকে এই সীমাতিরিক্ত ঋণ ছাড় করার নির্দেশ দেয়। শাখা এই চিঠির সত্যতা যাচাই না করেই ঋণের টাকা ছাড় কর দেয়। সীমা অতিরিক্ত ২০০ কোটি টাকা ছাড় করতে ওই চিঠি দেয়ার বিষয়ে পর্ষদ বা এমডির কোনো অনুমোদন ছিল না। পর্ষদ বা এমডিকে না জানিয়ে এই ধরনের চিঠি একজন জিএম দিতে পারেন না। এর মাধ্যমে তিনি ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন। যার মাধ্যমে তিনি জালিয়াতিতে সহায়তা করেছেন। সূত্র জানায়, ওই টাকা দিয়ে প্রতিষ্ঠানটি নামে-বেনামে স্থানীয় এলসি খুলে তা ক্রয়-বিক্রয় করেছে। এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি আরও জালিয়াতি করেছে। শর্ত অনুযায়ী ঋণের টাকা তারা ব্যবহার না করে অন্য খাতে নিয়ে গেছে। প্রতিষ্ঠানটির এমডির দায়িত্বে আছেন টুটুল নামের এক ব্যক্তি। এই জালিয়াতির সঙ্গে শাখার ডিজিএম শামসুল হুদা রবিন জড়িত বলে তদন্তে প্রমাণ পাওয়া গেছে। এ কারণে জিএম মাহফুজুর রহমান ও ডিজিএম শামসুল হুদা রবিনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। সূত্র জানায়, ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের নিচে অবস্থিত জনতা ভবন কর্পোরেট শাখা থেকে একই মালিকের প্রতিষ্ঠান গ্রামবাংলা কেমিক্যালসের নামে আরও ২৫০ কোটি টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে। এই ঋণ বিতরণেও ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। এর সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে ব্যাংকের ঢাকা বিভাগীয় জিএম লুৎফর রহমান এবং ভবন শাখার ডিজিএম আজমল হককে তাৎক্ষণিকভাবে বদলি করা হয়েছে। –  

এ জাতীয় আরও খবর