মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহের কাজ পেতে চায় ভারত

news-image

বাংলাদেশের প্রথম যোগাযোগ উপগ্রহ বঙ্গবন্ধু-১ তৈরি, মহাকাশে প্রেরণ এবং ব্যবস্থাপনাসহ সংশ্লিষ্ট কাজ পেতে এবার তৎপরতা শুরু করেছে  ভারত।

এরইমধ্যে ভারতীয় একটি কোম্পানি এ কাজের দরপত্র কিনেছে, যেটি বৃহস্পতিবার (১৮ ‍জুন) বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনে (বিটিআরসি) জমা দিতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। এদিকে, বিষয়টি নিয়ে আলাপ করতে বুধবার বিটিআরসি কার্যালয়ে যান ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ। এ সময় তিনি বিটিআরসি চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোসের সঙ্গে বৈঠকও করেন। সেখানে বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহের প্রকল্প পরিচালসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

তবে বৈঠকে ভারতীয় হাইকমিশনারের সঙ্গে বিটিআরসির চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোসের কি আলোচনা হয়েছে সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করলেও কেউ আনুষ্ঠানিক মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এরআগে ঢাকা সফরের শেষদিনে নিজের বক্তব্যে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহের কাজ পাওয়ার বিষয়ে তার আগ্রহের কথা জানান। অবশ্য এরও আগে তিনি সার্ক উপগ্রহের প্রস্তাব দিয়েছেন। যেটি এখন বিবেচনাধীন রয়েছে। অন্যদিকে, ভারতীয় কোম্পানির পাশাপাশি আরো চার দেশের পাঁচটি কোম্পানি বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহের কাজের দরপত্র কিনেছে। সূত্র জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা দরপত্র জমা দেওয়ার শেষ সময়। পরে আড়াইটার দিকে প্রকাশ্যে দরপত্রগুলো খোলা হবে। রোববার থেকে শুরু হবে মূল্যায়ন কার্যক্রম। জানা গেছে, ভারতীয়দের আগেও বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহের কাজ পেতে তদবির শুরু করেছে কয়েকটি দেশ। 

এরমধ্যে গত রোববার ঢাকায় নিযুক্ত ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত সোফি আবের্ট অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে তাদের দেশের কোম্পানি এমডিএ করপোরেশনের জন্যে কাজটি পেতে বিশেষভাবে তাদের আগ্রহের কথা জানিয়েছেন।

এ সময় ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূতকে অর্থমন্ত্রী জানান, তারা এই কাজের জন্য অনেক পুরাতন ও দক্ষ কোম্পানি। কিন্তু বাংলাদেশ উন্মুক্ত নিলামের মাধ্যমে চলে গেছে।

এর আগে চীনের গ্রেটওয়াল ইন্ডাস্ট্রি করপোরেশন বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহের প্রকল্পের জন্য পাস হওয়া মূল্যের চেয়ে পাঁচশ কোটি টাকা কমে কাজ করে দিতে চেয়ে অর্থমন্ত্রীকে প্রস্তাব দিয়েছে। ভারত ও ফ্রান্সের দুই কোম্পানি ছাড়াও এ তালিকায় আরো রয়েছে উপগ্রহের ব্যবসায় অত্যন্ত সফল মার্কিন কোম্পানি বোয়িং, কানাডিয়ান কোম্পানি টিউলাস ও অরবিট। ফলে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহ প্রকল্প নিয়ে বিশেষ আগ্রহ তৈরি হয়েছে। গত বছর দুই হাজার ৯৬৭ কোটি টাকার প্রকল্পটি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির বৈঠকে (একনেক) পাস হয়। প্রাথমিকভাবে প্রকল্পের মেয়াদ ২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত নির্ধারিত থাকলেও ওই বছরের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসে বিশেষ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নিজস্ব উপগ্রহ মহাকাশে ওড়ানোর উৎসব করার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

বিটিআরসি সূত্র আরো জানায়, কাঙ্ক্ষিত এ উপগ্রহ উৎক্ষেপণের ফলে বাণিজ্যিকভাবেও লাভজনক হবে বাংলাদেশ। কমিশনের পরিকল্পনা অনুযায়ী, সাত বছরের মধ্যে এটি ব্রেক ইভেনে চলে আসবে এবং এর মাধ্যমে দেশের কোটি কোটি ডলারের বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হবে।বর্তমানে শুধু উপগ্রহ টেলিভিশনগুলোর স্পেকট্রাম ভাড়া বাবদই বছরে দেড় কোটি ডলার বিদেশে চলে যাচ্ছে।

সূত্র জানায়, বঙ্গবন্ধু-১ উপগ্রহটি রাশিয়ার ইন্টার স্পুটনিকের কাছ থেকে কেনা ১১৯.১ পূর্ব দ্রাঘিমায় ওড়ানো হবে এবং পরের দুটির জন্য ইতোমধ্যে অরবিটাল স্লট পেতে আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নের কাছে আবেদন করা হয়েছে।

  জুন ১৮, ২০১৫