মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রণব মুখার্জির সঙ্গে বৈঠক বাতিলের নাটক সাজিয়েছিলেন খালেদা : হানিফ

news-image

ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখাজির সঙ্গে যেদিন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বৈঠক করার সিডিউল ছিল সেই দিন তার ওপর প্রাণনাশের কোন হুমকি ছিল না বরং তিনি নিজেই প্রণব মুখার্জির সঙ্গে সাক্ষাৎকার ও বৈঠক বাতিল করানোর জন্য প্রাণনাশের হুমকির নাটক সাজান এবং যে পথ দিয়ে তার হোটেলে যাওয়ার কথা ছিল ওই পথে তার নিজের লোক দিয়ে পেট্রোল বোমা ছুঁড়ান। ওই সময়ে খালেদা জিয়া মনে করেছিলেন ভারতের সমর্থন না হলেও ২০১৪ সালের নির্বাচনে তিনি ক্ষমতাসীন হবেন। তিনি যে নির্বাচনেই অংশ নিতে পারবেন না, বিএনপি নির্বাচনে না এলে যথা সময়ে নির্বাচন হবেই এবং ওই ধরনের পরিস্থিতি হবে সেটা তারা ধারণাতেও ছিল না। এই কারণে তার সব পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়ে যায়। এই কথা বলেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। সোমবার সন্ধ্যায় তিনি এই প্রতিবেদকের সঙ্গে এসব কথা বলেন। পাশাপাশি আরো বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন।

হানিফ বলেন, তার প্রাণনাশের হুমকির কারেণ তিনি প্রণব মুখার্জির সঙ্গে দেখা করেননি এই কথা এতদিন পর বলে খালেদা জিয়া শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু আসলে শাক দিয়ে মাছ ঢাকা যায় না। তাই নয় যে অপকর্ম করেছেন সেই অপকর্ম ঢাকার চেষ্টা করছেন। ভারতের রাষ্ট্রপতি যখন বাংলাদেশে আসার সিদ্ধান্ত নেন। তার সিডিউল ঠিক হতে থাকে ওই সময়ে বেগম খালেদা জিয়ার তরফ থেকে যোগাযোগ করে তার সঙ্গে সাক্ষাতের আগ্রহ প্রকাশ করা হয়। এরপর প্রণব মুখার্জির সিডিউলও তারা পান। ওই সাক্ষাৎ কর্মসূচি ছিল পূর্ব নির্ধারিত। এটা এমন নয় যে তারা রাতারাতি সময় পেয়েছেন। অনেকে আগেই সিডিউল পেয়েছেন। তাদের আগ্রহে সিডিউল নেওয়ার পরও বিএনপি ও জামায়াত মিলে ঠিক ওই দিনই হরতালের কর্মসূচি দিলেন। আমাদের প্রশ্ন হলো, এই ধরনের একটি সাক্ষাৎকারের সিডিউল থাকার পরও তারা কি করে হরতাল দেন? আসলে তারা এটা দিয়েছিলেন ইচ্ছে করেই।

হানিফ বলেন, আমরা ওই সময়ে তাদের দেখা না করার কারণ উদঘাটন করতে গিয়ে জানতে পারি, প্রণব মুখার্জির সঙ্গে যখন খালেদা জিয়া দেখা করার আগ্রহ প্রকাশ করেন ও সময় নেন তখন তিনি মনে করেছিলেন ক্ষমতাসীন হতে হলে ভারতকে তার পাশে পেতে হবে। সেই জন্য প্রণব মুখার্জির সঙ্গে সুসম্পর্ক রাখতে চেয়েছিলেন। এর আগে ভারতও সফর করেছেন সম্পর্ক ভাল করার জন্য। কিন্তু খালেদা জিয়া পরে সেই মত বদল করেন। তিনি মনে করেছিলেন, পাকিস্তান ও যুক্তরাষ্ট্র এবং তাদের সঙ্গে যারা আছেন তারা কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে সফল হবেন এবং আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আসতে দেবেন না। বিএনপি জোটকে ক্ষমতায় বসাবেন। এই রকম আশ্বাসও নাকি দেওয়া হয়েছিল। ওই আশ্বাসে খালেদা জিয়া আবারও ভারত বিরোধী ভূমিকায় অবস্থায় নেন। ইচ্ছে করেই সব ঠিক থাকার পরও প্রণব মুখার্জির সঙ্গে সাক্ষাৎ যাতে করতে না হয় সেই জন্য আন্দোলনের কর্মসূচির নাম করে ওই দিনই হরতাল কর্মসূচি দেন জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে। তিনি হরতালে বাইরে বের হন না এই অজুহাতে প্রণব মুখার্জির সঙ্গে তার বৈঠক বাতিল করেন। কারণ যারা তাকে ক্ষমতায় বসাতে চেয়েছিল তারা চাননি তিনি প্রণব মুখার্জির সঙ্গে দেখা করুক। তাকে বুঝিয়ে ছিল প্রণব মুখার্জির সঙ্গে দেখা করা না করলেও কোন কিছু যায় আসে না। তিনি তাদের কথা বিশ্বাস করেন ও বড় একটি ভুল করে ফেলেন।

হানিফ বলেন, তিনি এতদিন ভারতকে বাদ দিয়েই চেষ্টা করছিলেন ক্ষমতায় আসার সব পথ তৈরি করতে। কিন্তু যখন দেখছেন ভারতের সমর্থন তার লাগবে এর বাইরে অন্যরা তার পাশে থাকলেও ক্ষমতায় আসতে পারবেন না। সেটা ২০১৪তে নির্বাচনে না এসেও প্রমাণ পেয়েছেন। ২০১৯ এর নির্বাচনেও আসতে পারবেন কিনা সেটা নিয়ে সংশয় রয়েছে। কারণ নির্বাচনের জন্য সংবিধানের বর্তমান বিধানই থাকছে। বিএনপির দাবিতে কোন পরিবর্তন আসবে না। যাই হোক যেটা বলছিলাম বরং ওই সময়ে যারা তাকে ক্ষমতায় আনার আশ্বাস দিয়েছিলেন, তারা তাকে ক্ষমতার বাইরে তো নিয়ে গেছেনই তাকে সংসদের বাইরেও নিয়ে গেছেন। এখন তিনি বুঝতে পারছেন নির্বাচনে না আসাটা কত বড় ভুল হয়েছে। ভুল বুঝতে পেরে এখন তিনি আবার ভারতের প্রতি প্রীতি দেখাচ্ছেন। ভারত বিরোধী, হিন্দু বিদ্বেষী নন বলে ঘোষণা দিয়ে ভারত প্রীতি প্রমাণ করার চেষ্টা করছেন। সম্প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন। সব চেষ্টা তদবীর করে এরপর তারা নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করতে সক্ষম হন।

মোদির সঙ্গে তার দেখা না হোক সেটা নাকি সরকার নানাভাবে চেষ্টা করেছে। তার অভিযোগের কতটা সত্যতা আছে সেটা তিনি নিজেই জানেন। বাইরের দেশের একজন প্রধানমন্ত্রী আসবেন তিনি কার সঙ্গে দেখা করবেন, না করবেন সেটাতো ঠিক করবেন তার সরকার ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। সেখানে বাংলাদেশ সরকারের কি কিছু করার আছে। আর কোন কিছু বললেও বা তারা শুনবেন কেন? আসলে ওই সাক্ষাৎ না হলে তিনি সরকারের উপরই দোষ চাপাবেন বলে ঠিক করে রাখেন। যে কারণে বৈঠক হওয়ার পর সরকারের ইমেজ ক্ষুন্ন করার ব্যর্থ প্রয়াস চালান। তার এই সব কথা শুনে মোদি সরকারও তার সম্পর্কে ধারণা পাবেন যে তিনি কত মিথ্যে কথা বলতে পারেন।

তিনি কেন প্রণবের সঙ্গে দেখা করেননি সেটা কি ওই দেশের সংস্থাগুলো রিপোর্ট করেনি সরকারের কাছে। সেখানে কোথাও কি লেখা আছে যে তার প্রাণনাশের হুমকি ছিল। যদি তাই থাকতো মনে করতো বা ঘটনার সত্যতা থাকতো তাহলেতো প্রণব মুখার্জি তার সঙ্গে সাক্ষাতের ভেন্যুও পরিবর্তন করতে পারতেন। আসলে তা ঠিক না। এবারও মোদির সঙ্গে দেখা না হলে হয়তো কোন নাটক তৈরি করতেন। কিন্তু সেটা পারলেন না। আমাদের প্রশ্ন হলো প্রণব মুখার্জির সঙ্গে দেখার করার দিন প্রাণনাশের হুমকি ছিল তাতে মোদির সময়ে কি ছিল না? না থাকলে তার ওই সময়ের প্রাণনাশের হুমকি কি একা একাই শেষ হয়ে গেল? এর জবাব হ্যাঁ। কারণ ওই প্রাণনাশের হুমকিতো তিনি নিজেই তৈরি করেছিলেন।

খালেদা মোদির সঙ্গে তিনি সাক্ষাৎ করলেন আর মনে করলেন ক্ষমতায় চলে আসলেন, বিষয়টা এমন নয়। তিনি মনে করেছিলে মোদি বাংলাদেশ সরকারের চেয়ে তাকে বেশি প্রাধান্য দেবে। কিন্তু সেটা তিনি দেননি। আরো মনে করেছিলেন, সরকারের সঙ্গে ধারাবাহিক সহযোগিতা খুব বেশি করবেন না। এই কারণেই তিনি উপলব্ধি করছেন মোদির সঙ্গে দেখা করলে তার যে লাভ হওয়ার কথা সেটা হয়নি বরং সরকারই বেশি লাভ করেছে। প্রধানমন্ত্রীর পরিকল্পনা, স্বপ্ন, তার সিদ্ধান্ত গ্রহণ অনেক কিছুরই তিনি প্রশংসা করেছেন। বাংলাদেশের পাশে পাশে ও সাথে সাথেও থাকার কথা বলেছেন। যখন তিনি এটা দেখলেন তখন আর সহ্য করতে পারলেন না। সরকারের ইমেজ নষ্ট করার জন্য তিনি ভারতে তাদের ঘনিষ্ট একটি পত্রিকায় কৌশল করে একটি সাক্ষাৎকার দিয়ে নিজেকে ভাল মানুষ হিসাবে উপস্থাপন করার ব্যর্থ প্রয়াস চালালেন। সেই সঙ্গে মিথ্যের কিছু ফুলঝুড়ি ছাড়লেন। তার এই সব কথা কেউ বিশ্বাস করলেন না। তাহলে লাভ কি হলো? বরং তার দলের ও জোটের নেতাদেরও প্রশ্ন আসলেই তার নেতার প্রাণ নাশের হুমকি ছিল? আর থাকলেও ওই সময়ে কেউ জানলো না কেন?

হানিফ বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্ব তার দলের ভেতরেই অনেকেই মানতে চায় না। তাকে সরিয়ে দিতে চায়। তিনি দিনে দিনে এত মিথ্যে কথা বলছেন তা তার ভাবমুর্তিকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। তিনি আওয়ামী লীগ ও সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করার মিশনে নেমেছেন। কিন্তু কৌশলগত ভুল করছেন। সেটা হলো এতদিন পরে এসে যখন বলছেন যে তার প্রাণনাশের হুমকি ছিল বলে ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির সঙ্গে দেখা করেননি। এর কারণ দেখালেন এতদিন পরে। তার এই সব কথা কে বিশ্বাস করবেন?

তিনি বলেন, তার উপর যদি হুমকি থাকতো তাহলে তিনি ওই সময়ে কথাটা বলতে পারতেন। সরকারের কাছে সহায়তা চাইতে পারতেন। তিনি যদি সুনির্দিষ্টভাবে জানতেন যে তার প্রাণনাশের হুমকি আছে এই জন্য যাদেরকে সন্দেহ হয় তাদের বিরুদ্ধে আইনের আশ্রয় নিতে পারতেন। সাধারন ডায়রী করতে পারতেন। এমনকি চাইলে আদালতে গিয়েও মামলা করতে পারতেন। কিন্তু তিনি সেটা চাননি। কাউকে জানাননি। আসলে ওই ধরণের হুমকি তার উপর ছিল না। হুমকি না থাকার কারণে তিনি এই সব কিছুই করেননি। তিনি মিথ্যে কথা বলেছেন তার বড় প্রমাণ হলো এতদিন পর কথাটি বললেন তাও আবার দেশের কোন সাংবাদিকের কাছে নয় বিদেশে। সেটাও মোক্ষম সময় বুঝে করলেন। কারণ তিনি বুঝে গেছেন যে দেশের কোন মাধ্যমের কাছে এই সব কথা বললে কেউ বিশ্বাস করবে না। নানা প্রশ্নের মুখে তাকে পড়তে হবে। ওই সব প্রশ্নের উত্তর দিতে পারবেন না। থলের বিড়াল বের হয়ে আসবে। এই কারণে তিনি কৌশল করেই মিথ্যেটা বললেন তো বললেন বিদেশেই বললেন।

তিনি বলেন, তিনি তার প্রাণনাশের হুমকির কথা বলার পাশাপাশি এই বলেছেন, যে তার উপর হুমকি ছিল বলেই ওই দিন তিনি যে রাস্তা দিয়ে যাওয়ার কথা ছিল ওই রাস্তার একটি জায়গা পেট্রোল বোমা ছোঁড়া হয়। সেটা ছোড়ার ব্যাপারেও তিনি সরকারের ও আওয়ামী লীগের দিকে ইঙ্গিত করেছেন। কিন্তু তার এই কথাও সত্য নয়। কারণ সরকারের আওয়ামী লীগের কেউ ওই হামলা ঘটায়নি। নিজেই তার লোক দিয়ে ওই পেট্রোল বোমা ছুড়ান। এটা করে প্রমাণ করতে চান যে সরকার তাকে হত্যা করতে চেয়েছে। ওই রাস্তায় গেলে তাকে হত্যা করা হতো। আসলে এগুলো সবই হচ্ছে তার একটা নাটকীয় কৌশল।

হানিফ বলেন, তিনি এটাও বলেছেন যে এই ঘটনা তার প্রতিপক্ষ ঘটিয়ে জামায়াতের উপর দোষ চাপাতো। তার এই কথার মধ্য দিয়ে প্রমাণ করেছেন তার বিএনপির নেতা কর্মীদের চেয়ে তার জামায়াতের প্রতি প্রীতি বেশি। এটা চিন্তা করেননি যে তার দলের উপর দোষ চাপানো হতে পারে। চিন্তা করেছেন জামায়াতের উপর দোষ চাপানো হতে পারে। এই আশঙ্কায় এতটাই চিন্তিত হয়ে পড়েন যে তার আর প্রণব মুখার্জির সঙ্গে দেখা করা হয়নি। এটাতে কি বোঝাতে চেয়েছেন তা আমি জানি না। তবে এটা বোঝা যাচ্ছে তার যে জামায়াতের উপর অনেক বেশি দরদ সেটাই বোঝানোর চেষ্টা করেছেন।

খালেদা জিয়া সাক্ষাৎকারে প্রতিপক্ষ বলতে সরকারকে ও আওয়ামী লীগকেই বোঝাতে চেয়েছে আপনারা কি এ দায় নেবেন নাকি এর জবাব দেবেন এই প্রসঙ্গে হানিফ বলেন, আমরা এর কোন দায় নেব না। আবার তার বক্তব্য বিবেচনায় নিয়ে এর কোন জবাবও সরকার থেকে কিংবা আওয়ামী লীগ থেকে সার্বজনীনভাবে দিতে যাবো না। কারণ তার কথা এখন আমাদের ওই ভাবে বিবেচনায় নেওয়ার কোন সুযোগ নেই। তিনি স্বার্থ হাসিলের জন্য মিথ্যে একটা কথা উদ্দেশ্য প্রনোদিতভাবে রটিয়ে দেবেন, আলোচনায় আসতে চাইবেন আর সেটা নিয়ে আমরা কথা বলে তাকে আলোচনার সুযোগ করে দেব সেটা হবে না।

তিনি বলেন, এখন খালেদা জিয়াকে গুরুত্ব দেওয়ার কোন কথা ভাবছে না সরকার ও আওয়ামী লীগ। কারণ তিনি রাজনীতি করতে গিয়ে কোন ভাবেই কোন কৌশল করে সফল হতে না পেরে এখন নিজের জীবন নিয়ে মিথ্যা কথা বলছেন। জনগণের সহানুভূতি পাওয়ার চেষ্টা করছেন। তার প্রতি মানুষের কোন সহানভুতি তৈরি হবে না। কারণ প্রণব মুখার্জির জন্য দেখা না করার জন্য যে যুক্তি ও কারণ দেখিয়েছেন এটা কেউ বিশ্বাস করেনি বরং তাকে হাস্যকর পর্যায়ে নিয়ে গেছে। তার ইমেজ তিনি নিজেই খাটো করেছেন। সবার কাছে প্রমাণ করেছেন ভারতের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে নিজে সাক্ষাৎ করার জন্য সিডিউল নেওয়ার পরও কেবল জামায়াতকে বাঁচানোর জন্য তার সঙ্গে দেখা করেননি। বৈঠকটি বাতিল করেছেন। আসলে তার কথায় তিনি প্রমাণ করেছেন জামায়াত ছাড়া তার পক্ষে চলা সম্ভব নয়।

হানিফ বলেন, বেগম খালেদা জিয়া এমনিতে রাজনৈতিকভাবে সুবিধা পাওয়ার জন্য অনেক কথা বলেন। মাঝে মাঝে সুবিধা পানও। দেশের সাধারণ মানুষতো তার অতো কূটকৌশল বোঝে না। যারা বোঝেন তারা বিশ্বাস করেন না। কিন্তু যারা বোঝেন না তারাতো অল্প বিস্তর হলেও বিশ্বাস করেন। বিশ্বাস করার কারণেই কেউ কেউ সহানুভূতি দেখান। প্রকৃতপক্ষে এখন খালেদা জিয়া ও বিএনপি রাজনৈতিক ভাবে দেউলিয়া হয়ে গেছে। তার দেউলিয়াত্ব প্রকাশ পাচ্ছে। সেই দেউলিয়াত্ব তিনি ঢাকতে চান। তার ও তার দলের দেউলিয়াত্বের যদি একটি উদাহরন দেই তাহলে স্পষ্ট হবে। তার দলের নেতারা মাঠে নেই। আন্দোলন কর্মসূচি দিয়ে কোন নেতা কর্মীকে মাঠে পান না। তারা নির্বাচনে অংশ না নিয়ে যে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ওই সব সিদ্ধান্তের কারণে অনেক নেতারাই তাকে আর বিশ্বাস করছেন না। জোটের মধ্যেও অবিশ্বাস তৈরি হয়েছে। এই কারণে যতই নেতাদের ঐক্যবদ্ধ হতে বলছেন তারা সেটা হচ্ছে না। কারণ তারা তার নেতৃত্বে কোন ভরসা পাচ্ছেন না। এখন খালেদা জিয়ার দলের ভেতরেই অনেকই চাইছেন তাকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দিতে। তাকে সরিয়ে দিয়ে তারা যে তারেক রহমানকে চাইছেন তাও নয়। তারা তাকেও পছন্দ করছেন না। তারা দুই জনেকেই বাদ দিতে চাইছেন।

দলের ভেতরে যারা তাকে বাদ দিতে চাইছেন তার নাম জানেন কিনা জানতে চাইলে হানিফ বলেন, সেটা আমরাও জানি তার দলের নেতারাও জানেন। জোটের নেতারাও জানেন। কিন্তু আমি তাদের নাম বলতে চাই না। তার জামায়াত প্রীতিও দলের ভেতরে অনেকেই মেনে নিতে চাইছেন না। কিন্তু তিনিতো জামায়াত বলতে অন্ধ।

আসলে বিএনপি ও জামায়াত হচ্ছে একই আদর্শে উব্দুদ্ধ দল। তাদের চিন্তা চেতনাও এক। সেটার একটা উদাহরণ বলে দেই, তারেক রহমান এবার এক অনুষ্ঠানে গিয়ে বলেছিলেন, ছাত্র শিবির আর ছাত্রদল এক মায়ের পেটের সন্তান। এই কথা বলার পর আর কি থাকে। ছাত্রশিবির কেমন করে ছাত্রদলের ভাই হতে পারে? এটা কি সম্ভব। কিন্তু তারপরও তারা সেটা মনে করে। আর এই কারণেই বলা যায় তারেক রহমানও জামায়াতের ব্যাপারেও তার মায়ের মতো একই আদর্শ লালন করেন।

এদিকে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার প্রাণনাশের হুমকি ছিল বলে বেগম খালেদা জিয়া বিদেশের একটি পত্রিকায় সাক্ষাৎকার দিয়ে বলেছেন। ওই সময়ে প্রাণনাশের হুমকি থাকলে তারা কেন পুলিশকে জানালেন না, আইনী ব্যবস্থা নিলেন না, এনিয়ে না প্রশ্ন উঠেছে, এই ব্যাপারে বেগম খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারি অ্যাডভোকেট শিমুল বিশ্বাস বলেন, আমার এই বিষয়ে কোন কিছু জানা নেই। কেন আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি তাও আমি জানি না।

তার প্রাণ নাশের হুমকি ছিল এই ঘটনাটি আপনি জানতেন কি?

শিমুল বিশ্বাস বলেন, এ ব্যাপারেও আমার কিছু জানা নেই।

বিএনপি চেয়ারপারসনের ব্যাপারে সবইতো আপনি জানার কথা, তার সঙ্গে কোন সাক্ষাৎকারের সিডিউলওতো আপনি ঠিক করেন? তাহলে প্রাণ নাশের হুমকি থাকা সত্ত্বেও প্রণব মুখার্জির সঙ্গে বৈঠকের সময় ঠিক করেছিলেন, শিমুল বিশ্বাস বলেন, এই ব্যাপারে আমি কিছু বলতে পারবো না।

খালেদা জিয়ার প্রাণনাশের হুমকির কথা এতদিন বলা হলো না, দেশের কোন মিডিয়ার কাছে বলা হলো, কেবল বিদেশি মিডিয়াতে কেন বলা হলো জানেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেটা আমি কেমন করে বলবো। এটা ম্যাডাম জানেন।

এদিকে বিএনপি চেয়াপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খানের কাছে প্রাণনাশের হুমকি থাকার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওই সময়ে তিনি কেন প্রণব মুখার্জির সঙ্গে দেখা করলেন না এই প্রশ্নের উত্তর সিনিয়র কয়েকজন নেতার কাছে জানতে চেয়েছিলাম তারা বলেছিলেন প্রাণ নাশের হুমকি আছে এই জন্য যাননি। তবে ম্যাডামের সঙ্গে এই ব্যাপারে আমার কোন কথা হয়নি।

এ জাতীয় আরও খবর