মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সারাদেশে জালটাকার ছড়াছড়ি

news-image

আর কয়েকটা দিন পরই শুরু হচ্ছে পবিত্র মাহে রমজান। এরপরই অনুষ্ঠিত হবে মুসলিম ধর্মীয় জাতির প্রিয় অনুষ্ঠান ঈদুল ফিতর। আর একেই সামনে রেখে সারাদেশে বেড়েছে ছোট-বড় নানা ধরনের অপরাধমূলক কর্মকা-। এই অপরাধমূলক কর্মকান্ডের অন্যতম একটি হচ্ছে জাল টাকা। অপরাধ চক্রের মাধ্যমে জাল টাকা ছড়িয়ে পড়ছে রাজধানীসহ সারাদেশে।

একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ, একটি প্রিন্টার ও সঙ্গে সংঘবদ্ধ একটি চক্রের তৎপরতা। আর এই টুকু সম্বল করেই  প্রতিনিয়ত বেড়েই চলছে জাল টাকার মতো অপরাধমূলক কর্মকা-।

যে টাকায় রয়েছে আসল টাকার মতোই নিরাপত্তার সব ধরনের চিহ্ন। আর তাই সবচেয়ে বেশি প্রতারিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে জাল টাকা তৈরি চক্রের সঙ্গে যুক্ত এক ব্যক্তি বলেন, জাল টাকা তৈরি করতে ১০-১৫ জনের একটি গ্রুপ হয়। তাদের ভাষায় এটি একটি কোম্পানি। আর এই কোম্পানিতে একেক জনের কাজ একেক রকম। তারা সবাই এক একটি কাজ ভাগ করে নেয়। একজনের কাজ টাকার জন্য কাগজ  বানানো। সেজন্য সাধারণ কাগজে নিখুঁতভাবে এটে দেয় নিরাপত্তা সুতা। সাথে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ ব্যাংকের জলছাপ। ঠিক একেবারে আসল টাকার অনুকরণ। এসব বানানো কাগজ বিক্রি হয় প্রতি বান্ডেল পাঁচহাজার টাকা করে। তাছাড়া এসব কাগজগুলো ভাল ও সূক্ষ ডিজাইনের হতে হয়। পরে তারা সেই কাগজগুলোতে ব্লক করে। তাছাড়া আরেকটি চক্র এতে পিতলের ব্লক মারে। পরে সেই ফিতাতে বাংলাদেশ ব্যাংকের ছাপ ও একহাজার টাকার নোট লেখা হয়।

এরপর আরেকটি গ্রুপ টাকা প্রিন্টের কাজ করে থাকে। এই কাজে তাদের খরচ হয় ২০-২৫ হাজার টাকা। পরে কম্পিউটারে থাকা সেই ফরমেটগুলো ওই কাগজে বসানো হয়। সেক্ষেত্রে টাকার প্রথম পাতার এক পাশে সোনালী রং  করে দেয়া হয়।

এই চক্রের অন্য একব্যক্তির সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, জাল টাকা প্রিন্ট করার পর আরো বেশ কিছু কাজ থাকে যা কিনা খুব সূক্ষভাবে হাতের মাধ্যমে তা করতে হয়। তাছাড়া আমার কাজ হলো প্রিন্ট করা। এরপর এই টাকাগুলোকে বিক্রি করে দেই। এছাড়াও আমার কিছুু লোক রয়েছে যারা কি না শুধু মার্কেটিংয়ের কাজ করে থাকে।

তারা বেশির ভাগ ঢাকার বাহিরে গিয়ে  এই জাল টাকার মার্কেটিং করে থাকে। পরে তারা বিভিন্ন জেলায় গিয়ে সেখানকার লিডারের সঙ্গে যোগাযোগ করে বলেও জানান তিনি।

এই জাল টাকা বাজারে নেওয়ার জন্য প্রয়োজন হয়  বেশ কিছু এজেন্টের। আর প্রতিটি জাল লাখ টাকার বান্ডেল বিক্রি হয় ২০-২৫ হাজার টাকায়।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক বলেন, সতর্ক না হলে যে কারোই পকেটে এই জাল টাকা চলে আসতে পারে। যদি কোনো কারণে প্রচলিত টাকার সঙ্গে এই জাল টাকা মিশে যায় তবে এর ব্যবস্থাও নেওয়া হবে।

জাল টাকা চেনার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এর প্রচারণা চালানো হচ্ছে বলেও জানান  তিনি। একাত্তর টেলিভিশন

এ জাতীয় আরও খবর