মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর ব্যঙ্গাত্মক ভিডিও প্রকাশে মাহিবুল্লাহর ৬ মাস কারাদন্ড

news-image

এবার কুমিল্লায় ইন্টারনেটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যঙ্গাত্মক ভিডিও প্রকাশ করার অভিযোগে মাহিবুল্লাহ নামের এক যুবককে রোববার ছয় মাসের কারাকারাদন্ড দিয়েছে সেখানকার ভ্রাম্যমান আদালত। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত যুবকের কম্পিউটারের দোকান থেকে অন্যের ছবির সাথে প্রধানমন্ত্রীর ছবি যুক্ত করা বেশ কিছু  ছবি আটক করা হয়েছে। সে এসব ছবি ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিভিন্ন মোবাইলে প্রচার করে আসছিল।  ইন্টারনেটে রাজনৈতিক ব্যক্তিদের নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক ছবি, ভিডিও এবং অডিও প্রায়ই প্রচার করা হয়। এনিয়ে গত দুই বছরে বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলাও হয়েছে। অনেকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ভোগ করছেন। এসকল অপরাধীরা শুধু রাজনৈতিক ব্যক্তি নয় সমাজের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও তরুণীদের নগ্ন ও ব্যঙ্গাত্মক ছবিও প্রকাশ করছে। তবে অনলাইন এ্যাক্টিভিটিসরা অভিযোগ করে বলেন, রাজনৈতিক ব্যক্তিদের নিয়ে কটুক্তি ও ব্যাঙ্গাত্বক ভিডিও প্রকাশ করায় সরকার যতটা কার্যকরি পদক্ষেপ নিচ্ছে ইন্টারনেটের অন্যান্য অপরাধের বিষয়ে সরকার সেভাবে পদক্ষেপ নিচ্ছে না।

অনলাইন এ্যাক্টিভিটিস্ট আরিফ জেবতিক বিবিসি বাংলাকে বলেন, আইসিটি আইনের সার্বজনীন ব্যবহার হচ্ছে না। দেখা যায় প্রধানমন্ত্রী ও সরকার দলীয় লোকদের বিরুদ্ধে যখন ইন্টারনেটে অপপ্রচার ও কুৎসিত মন্তব্য করা হয় সেটার বিরুদ্ধে সরকার খুবই তৎপর হয় এবং দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করে। এর বাইরে শত শত নারী নিগৃহীত হচ্ছে ও অনলাইনে যারা এ্যাক্টিভিটিস্ট তাদের বিরুদ্ধে হুমকি আসছে কিন্তু এগুলোর ব্যাপারে সরকারি মহলের কোন তৎপরতা আমাদের চোখে পড়েনি। তিনি বলেন, বর্তমান আইসিটি আইনের অপব্যবহারের সুযোগ রয়েছে। একই আইনে দেখা যাচ্ছে প্রিন্ট মিডিয়ায় ছাপা হলে তা দুই বছরের সাজ দেয়া হবে। আবার একই বিষয়ে যখন অনলাইনে লিখা হবে তখন তার সাজা হবে দশ বছরের। বর্তমান আইনের অনেক ধারায় অস্পষ্টতা রয়েছে। যেখানে তার অপব্যবহারের সুযোগ থাকে।

সরকারের পক্ষ থেকে বর্তমান সাইবার ক্রাইম আইসিটি আইনের সংস্কারের কথা বলা হচ্ছে। এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, শুধু রাজনৈতিক ব্যক্তিদের কটুক্তিকারীদের নয় ইদানিং অন্যান্য অপরাধীদেরও সাজা দেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীসহ অন্যান্য রাজনৈতিক নেতাদের কার্টুন প্রায়ই ছাপা হয়। কিন্তু কার্টুনের উদ্দেশ যদি অন্য কিছু হয় । আইনে যদি তাতে অপরাধ হিসাবে বিবেচনা করা হয় তাহলে বিষয়টি অবশ্যই আমলে  নেয়া হবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কটূক্তি করে গান রচনা করায় গত বছরের ১৯মে প্রথম সাজা হয় এক যুবকের। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করার আরো কয়েকটি অভিযোগে কয়েক জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ও জরিমানা হয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর