শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গুম: আবদুর রাজ্জাক শিপন

news-image

সাহিত্য ডেস্কজুম্মা মসজিদের খতিবের কানের কাছে ফিসফিস করে সে কিছু বললে মুসল্লিদের দৃষ্টি তার প্রতি আবদ্ধ হয়। এবং তাদের একজন বলে উঠে, -আরিফুজ্জামান খতিবের কানে কি ‘ঘাপলা’ লাগায়। মৃদু হাওয়ার দুলনি থেকে ঝড়ো হাওয়াতে সমুদ্রের বিকট ঢেউয়ের মত মসজিদময় কথার ঢেউ ছড়িয়ে যায়। আর তখন আমি জানতে পারি, লোকটির নাম আরিফুজ্জামান, সে একজন ঘাপলাবাজ। ওই মুহূর্তে খতিবের কন্ঠ আবার মাইক্রোফোনে গমগম করে ওঠে,-‘ব্রাদারানে ইসলাম! ফিলিস্তিনি নিরিহ মুসলমানদের ইহুদী ইসরায়েল বোমা নিক্ষেপ করে আজও ১৩৯ জন মুসলমানকে হত্যা করেছে। আরিফুজ্জামান ফিলিস্তিনিদের জন্য দোয়া করতে বললেন!’ মসজিদময় নীরবতা ফিরে আসে আবার। আরিফুজ্জামান ‘ঘাপলা’ লাগায়নি খতিবের কথাতে তা তাৎক্ষণিক প্রমাণিত হয় এবং মুসল্লিগণ শান্ত হয়। খতিব সাহেব মোনাজাত ধরেন,- ‘আল্লাহ তুমি জালেমদের বিচার করো। হাসবুনাল্লাহু নিয়মাল মাওলা ওয়া- নিয়মাল ওয়াকিল! তোমার দরবারে বিচার দিলাম, মাবুদ!’

প্রতি জুম্মাতে চোখে সুরমা লাগিয়ে আরিফুজ্জামান মসজিদে যায়, এবং পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামায়াতের সঙ্গে আদায় করতে চায় –এই তথ্য আমি জানতে পারি, ধীরে ধীরে যখন আরিফুজ্জামানের সঙ্গে আমার খানিক ঘনিষ্ঠতার মত হয় মসজিদ গমনাগমনের পথে, আর তখন আরিফুজ্জামান ‘ঘাপলাবাজ’ এই তথ্যটি আমার কাছে ভুল আর অতিরঞ্জন হিসেবেই প্রতিয়মান হয় এবং তাকে আমার স্রেফ একজন ধর্মপ্রাণ ব্যক্তির চাইতে বেশি কিছু মনে হয় না।

কয়েক বছর পর, আমার এই বর্তমান অবস্থান থেকে আমি যখন অতীত জীবনের ভুল আর ভ্রান্তিগুলো উল্টেপাল্টে বিপরীত দিকের সত্যগুলো বড় পরিস্কার দেখতে পাই, তখন আজকের এই অলস সময়ের খেলাটা আমি উপভোগ করতে বাধ্য হয়। প্রতিদিন খেলাটা খেলতে থাকি। খেলাতে বসার আগে আমার নিজস্ব নিয়ম মানি। বাগান থেকে তাজা গোলাপ ছিঁড়ে নেই। জীবনের একেকটি ভ্রান্তির বিপরীতে সত্যের পর্দা উন্মোচিত হবার সঙ্গে সঙ্গে একটি করে গোলাপ পাপড়ি ছিঁড়ি। মেঝেতে গোলাপ পাপড়ি জমা হয়, সত্য জমা হয় আমার সমৃদ্ধ অভিজ্ঞতার ঝুলিতে। এভাবে জানতে পারি, চোখে সুরমা লাগিয়ে জুম্মা পড়তে যাওয়া আরিফুজ্জামান প্রতি জুমার শেষে একটি করে মিশন শেষ করতো। একজন করে মানুষ খুন করতো সে। তার ভাষাতে ইসলামের খেদমত করতো, ইসলামের শত্রুকে খতম করতো!

আমার এই বর্তমান ‘শুদ্ধি অভিযান’ যাত্রায়, আরিফুজ্জামানকেও আমি সহযাত্রী হিসেবে পেয়েছি। আমাদের সঙ্গে আরো আছেন নাখাল পাড়ার নগেন বোস। নগেন বোস মিষ্টির দোকানী। নগেন বোসের মিষ্টিতে মাছি ওড়ে, মিষ্টির সিরাতে কখনও ভাসমান মাছির মৃতদেহ পাওয়া যায়! মিষ্টির কাঁচামালে অল্প-বিস্তর দুই নম্বরি যা আসলে সকলেই করে থাকে, এইটুকু ছাড়া নগেন বোসের কোন গুরুতর অপরাধ আমাদের চোখে ধরা পড়ে না আপাতত। নগেন বোসকে অত্যন্ত সজ্জন বন্ধু বৎসল মানুষ হিসেবেই আমরা পাই। আমাদের এই তিন কামড়ার বদ্ধ জীবন থেকে নগেন বোস যখন মাঝে মাঝে ঘুরতে বের হয়, কোলকাতায় তার পিসির বাড়িতে যায়, আমাদেরও সঙ্গে নেয়। ওহ্; আপনাদের বলা হয়নি, এই ‘শুদ্ধি অভিযানে’ আমরা তিনজন-আমি, আরিফুজ্জামান আর নগেন বোস তিন কামড়ার এই বদ্ধ বাড়িতে থাকি। ঘুটঘুটে অন্ধকার এ বাড়ি। আমাদের তেমন অসুবিধা হয় না। আমরা পরস্পরকে দেখতে পাই। শুধু যে দেখতে পাই তা না, পরস্পরের মুখের দিকে চেয়ে অতীত কুকর্মগুলোও পড়ে ফেলতে পারি। বিশেষ ক্ষমতায় সেলুলয়েডের মত, কম্পিউটারে সাজানো স্বয়ংক্রিয় ডাটার মত পরস্পরের জীবন আমাদের চোখের সামনে ভাসে আর আমরা ভাসি কল্পনায়। কল্পনাশক্তিতে ভেসে ভেসে ইচ্ছাস্বাধীন হয়ে আমরা যত্রতত্র বিরাজ করি। কোলকাতায় নগেন বোসের পিসির বাড়িতে যাই। পিসির প্রার্থনারত নির্মল অবয়ব আমাদের ভালো লাগে। সুগন্ধী জ্বালানো প্রার্থনা ঘরে ধূপ-ধুম্রের রহস্যময়তায় আমরা পিসির পেছনে ঠাঁই দাঁড়িয়ে থাকি। করজোরে প্রার্থনা করেন পিসি, বিড়বিড় করেন-‘নগেন ফিরে আসুক, ঈশ্বর!’ পিসির চোখ ভিজে উঠলে, আমরা তখন প্রার্থনা ঘরের কড়িকাঠ গুণি! প্রার্থনা শেষে পিসি যখন নাড়ু বিলান, ঘরের ছোটদের হাতে, নগেন বোস তখন কথা বলে,- ‘পিসি; নাড়ু খাবো, নাড়ু দাও!’ পিসি চমকে উঠেন! এদিক-ওদিক চান। নগেনকে দেখতে পান না। আমাদেরকে কেউ দেখতে পায় না।

আমরা কখনও নাখালপাড়াতে নগেন বোসের মিষ্টির দোকানে যাই। দোকানের মিষ্টিতে মাছিদের ওড়াওড়ি দেখি। মাছির বিষয়ে দোকানী ছেলেটা আগের চে’ অধিক সতর্ক, বিশেষত নগেন বোসের ‘শুদ্ধি অভিযান’ যাত্রার পর। দোকান ঝেড়ে মুছে তাকে তাক পরিস্কার রাখতে দেখা যায়। হাস্যমুখে বিক্রেতার ভূমিকায় অভিনয় করে। তরুণী ক্রেতাদের পেলে সাগ্রহে সে মিষ্টির দাম কমিয়ে রাখে, লোভী চোখে চেটে তাদের বিব্রত করে এবং মিষ্টির প্যাকেট দেয়ার সময় ইচ্ছাকৃতভাবে হাতে হাত লাগায়! মিষ্টি বিক্রির টাকার একটা অংশ সে পকেটে পোড়ে, নগেন বোস দেখে আর হাসে। মাঝে মাঝে ছোট করে ছাঁটা চুলের লোকটি দোকানে আসে আর দোকানী ছেলেটার কাছ থেকে মাসোহারা নিয়ে যায়। সাদা খামভরতি মাসোহারা নিয়ে যায়। মাসে মাসে মাসোহারা না দিলে তাকেও ‘পরিশুদ্ধি অভিযানে’ প্রেরণের হুমকি দিলে সেই কথা নগেন বোসের স্ত্রীর কানে যায় এবং তিনি প্রতিমাসে মাসোহারা দিয়ে হলেও মিষ্টির দোকানের সন্দেশ রসগোল্লা চমচম বিক্রির ব্যবসা জিইয়ে রাখতে বদ্ধপরিকর থাকেন। তখন সাংবাদিকের দল নগেন বোসের বাসাতে ভিড় করলে, তার স্ত্রী মাসোহারার বিষয়টি চেপে যান, তিনি বলেন,-ওরকম কিছু ঘটে নি! সাংবাদিকরা তখন নগেন বোসের পুরনো প্রসঙ্গটি নতুন করে উত্থাপন করে,- ‘২৪দিন শেষে ৪২৪ দিন পেরিয়ে গেলেও আপনার স্বামী এখনও ফেরেন নি, আপনার কি অভিমত?’ নগেন বোসের স্ত্রী তখন সাংবাদিকের মাইক্রোফোন এবং ক্যামেরার সামনে বিহ্বল হয়ে তার দুই পাশে বসে থাকা দুই সন্তানের দিকে চান! তিনি সন্তানের মুখ পানে চেয়েই থাকেন, বিহ্বলতা কাটাতে সময় নেন। নগেন বোস তখন তার স্ত্রীর বাম পার্শ্বে বসে থাকা তাদের ছোট কন্যা সন্তানের পাশে গিয়ে বসে, এবং কন্যার তুলতুলে নরম একটা হাত তার দুই হাতের মুঠোতে পুড়ে নেয়! কন্যাটি চমকে উঠে, তার চোখ ছলছল করে! নগেন বোসের স্ত্রী তখন সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তর দেন ধীরে ধীরে- ‘আমার কোন অভিমত নেই! সরকার বাহাদুর ভালো জানেন! তার ‘শুদ্ধি অভিযান’ শেষ হয় নাই বোধহয়..!’ সাংবাদিকের ক্যামেরার চোখ তখন ছলছল চোখের কন্যা সন্তানের উপর আবদ্ধ হয় এবং জিজ্ঞেস করে –‘বাবাকে মনে পড়ে ?’ এই প্রশ্নে ছলছল ছোট্ট কন্যাটির চোখের বরফ গলে হঠাৎ নদী হয়ে যায়, সে হাউমাউ করে কাঁদে! কাঁদে আর বলে,- ‘বাবা নেই, বাবা নেই!’ তখন নগেন বোসের স্ত্রীর চোখ আদ্র হলে তিনি শাড়ির আঁচলে চোখ মোছেন আর কন্যা সন্তানকে জড়িয়ে বুকের সঙ্গে চেপে রাখেন, সাংবাদিক দলের চোখেও তখন একটা কিছু সমস্যা হয়, তাদেরও চোখ জ্বালা করে, তারাও চোখ কচলান বা লজ্জা পান, মুখ ঘুরিয়ে ক্রন্দরত শিশুর কাছ থেকে নিজেদের মুখ লুকান!

আমাদের তিনজনের মধ্যে কথা বিনিময় হয় না। যেহেতু আমরা পরস্পরের চোখের ভাষা বুঝতে পারি, অতীত বর্তমান দেখতে পারি-তাই আমাদের ভাব বিনিময়ে সমস্যাও হয় না। আরিফুজ্জামানের প্রতি আমার ঘৃণার ভাব দেখেও সে থাকে নির্বিকার। যেমন নির্বিকার ভঙ্গিতে পাড়া প্রতিবেশির ঘৃণার চাষাবাদে দিনাতিপাত করছে তার পরিবার। আরিফুজ্জামানের ‘শুদ্ধি অভিযান’ যাত্রার ষোল ঘন্টা পর ষোলজন কলেজ সহপাঠি কর্তৃক তার একমাত্র সন্তান কলেজ মাঠে প্রহৃত হয়। তারা তাকে মাঠের মাঝখানে কান ধরিয়ে উঠবস করায়। সেই দৃশ্য কলেজের তাবৎ ছাত্র-ছাত্রীর সঙ্গে আরিফুজ্জামানের ছেলের একান্ত একজন দেখে, যার সঙ্গে ছেলেটির চোখোচোখি হতো প্রায়ই। সেই দৃশ্য দেখবার পর মেয়েটির চোখ ভিজে উঠলে তখন আরিফুজ্জামানের ছেলের প্রহারের ক্ষত থেকে সাদা ইউনিফর্মে ছোপ ছোপ রক্ত রাঙা দাগ জমে, তার হৃদয়ে জমে ‘জঙ্গীর ছেলে’ উপাধির কৃষ্ণ ভর্ৎসনার কৃষ্ণ গহ্বর। সেই গহ্বর থেকে সে আর কোনদিন বেরুতে পারে না। ঘরে ফিরে সে নিজের ঘরে চিরতরে খিল দেয়। জানালায় উদাস দৃষ্টি মেলে সে তার পিতার জঙ্গি হয়ে যাবার গ্লানি বয়ে দিনাতিপাত করে। তার মা তিনবেলা বন্ধ দরজায় টুকটুক টোকা দেয়, সে দরজা খোলে। পরম যত্নে মা তাকে তিনবেলা খাইয়ে দেয়। সে খেতে চায় না, মাকে বলে -‘না খেয়ে মরে যাওয়াই ভালো!’ তখন আরিফুজ্জামানের বয়োঃবৃদ্ধ পিতা রাস্তায় বেরুলে, বাজারে গেলে, তাকে আর কেউ আগের মত সালাম ঠোকে না। মহল্লার মুরুব্বিরাও তার সংশ্রব এড়িয়ে চলে। আরিফুজ্জামানের স্ত্রীর সঙ্গ ত্যাগ করে বৈকালিক আড্ডার হাস্যোজ্জ্বল রমণীকূল! তাদের প্রতিবেশী তরুণ দম্পতির তরুণী স্ত্রীটি, শিশু সন্তান কোলে নিয়ে প্রায়শই যাকে আরিফুজ্জামানের স্ত্রীর সঙ্গে খোশগল্প করতে দেখা যেত আর কোলের শিশুকে চটাষ চটাষ চুমু খেত যে, তাকেও আর আরিফুজ্জামানের স্ত্রীর সঙ্গে দেখা যায় না। এভাবে আরিফুজ্জামানের পরিবার একঘরে হয়ে পড়ে। এবং আরিফুজ্জামানের প্রতি আমার চোখে ঘৃণার ভাব প্রকাশ পেলেও তার বিকারহীন দৃষ্টিতে আমার জন্য খানিক শ্রদ্ধাবোধ জেগে থাকে। বোধকরি আমার মুখের দিকে চেয়ে সে আমার অতীত কুকর্ম ধরতে ব্যর্থ হয় এবং মাঝে মাঝে ঘুমন্ত সন্তানের বুক থেকে পিতাকে তুলে নিয়ে সরকার মহোদয়ের এই ‘শুদ্ধি অভিযানে’ অন্য অনেকের মত আমিও একজন গিনিপিগ বা স্রেফ ‘বলি’ –এই অনুভবে আরিফুজ্জামান আমার প্রতি শ্রদ্ধাবোধ প্রকাশে কার্পণ্য করে না! আমার সাত বছরের কন্যার জন্মদিনের কেক-এ জ্বলা সাতটি মোমবাতির পাশে সে সাতটি গোলাপ রেখে আসে আর সাত গোলাপের গায়ে সাঁটা থাকে জীবন্ত সাত প্রজাপতি! গাছের এক রকম নির্যাসকে আঠা হিসেবে ব্যবহার করে, সেই আঠা-সহযোগে রঙিন প্রজাপতি সাঁটা গোলাপ দাতার খোঁজে ড্রয়িংরুমে হইচই পড়ে যায়, উপহার দাতার হদিশ মিলে না! তখন আমার সাত বছরের কন্যা স্বাতিয়া তার মায়ের কানে ফিসফিস করে বলে,
– মা; বাবা আসবে না ?
-আসবেতো!
-বাবা, কবে আসবে ?
-তুমি কেক কাটলেই আসবে!
-বাবা না এলে আমি কেক কাটবো না!
ড্রয়িংরুমে উপস্থিত আত্মীয় প্রিয়জনদের মাঝে দ্রুত সাত বছরের স্বাতিয়ার ফিসফিস করে বলা কথা সংক্রমিত হয়। এতদিন পর বাবার জন্য গোঁ ধরা মেয়েকে বোঝাবার ভাষা তারা খুঁজে পান না! স্বাতিয়ার কথা তাদের মনে আছড় করে, অবুঝ মেয়ের কথাতে তারা কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়ে! তখন স্বাতিয়ার অনড় অবস্থানে রাত্রি শূন্য প্রহর পেরিয়ে দ্বিপ্রহরে গড়ালে ঘুমহীন নিশাচর সাংবাদিকদের কানেও এ খবর পৌঁছায় এবং তারা দলে দলে ‘আকর্ষণীয়’ সংবাদের সন্ধানে বুম আর ক্যামেরা হাতে সাত বছরের স্বাতিয়ার সামনে জড়ো হয়।
সাংবাদিক: কেক কাটো না কেন, মা ?
স্বাতিয়া: বাবা না এলে কেক কাটবো না!
সাংবাদিক: বাবাতো আজ আসবেন না!
স্বাতিয়া: কেন আসবে না! আগের জন্মদিনে বাবা আমাকে বার্বি ডল উপহার দিয়েছিল। এই জন্মদিনে একটা লাল সাইকেল দেবার কথা ছিল! মা বলেছে, বাবা সাইকেল কিনতে গেছে। সাইকেল কিনে ফিরলেই কেক কাটবো!
সাংবাদিক: যদি বাবা না ফেরেন?
স্বাতিয়া: আমি এখানেই বসে থাকবো। বাবার জন্য অপেক্ষা করবো!

টিভি রিপোর্টার তখন স্বাতিয়ার বার্বি ডলটি ক্যামেরার সামনে তুলে ধরে,- ‘সাইকেল নিয়ে বাবা ফিরবে, এই প্রতিক্ষায় থাকা স্বাতিয়াকে আমরা কি বলে সান্ত্বনা দেব?’ প্রশ্নবোধক দিয়ে কথা শেষ করে টিভি রিপোর্টার!

ভোর হতে হতে ৫৬ হাজার বর্গমাইলের বাতাসে বাতাসে স্বাতিয়ার কথা ছড়িয়ে যায়। অনুভূতিতে ভোঁতা পর্দা লাগিয়ে ঘুরে বেড়ানো মানুষগুলো,-‘কিছুতেই কিচ্ছু আসে যায় না’ বাণী মর্মে ধরে যারা সবকিছু থেকে নিজেদের বাঁচিয়ে একটা পলায়নপর জীবন পার করে দিতে চেয়েছিল, তারাও টিভি স্ক্রিনে স্বাতিয়া নাম্নী শিশুটির মুখের দিকে ফিরে ফিরে চায় আর নিজেদের সন্তান মহুয়া বা মাহিনদের মুখের সঙ্গে মিলিয়ে মিলিয়ে দেখে! তাদের উপলব্ধি হয়, ‘হৃদয় কাদা মাটির তৈরি এক নরম বস্তুই!’ কারণ, তারা তখন জানতে পারে, ‘বাবা না ফেরা পর্যন্ত অপেক্ষা করবো’ ঘোষণা দিয়ে সাত বছরের স্বাতিয়া অনাহার অনিদ্রায় পার করে দিয়েছে সতের ঘন্টা! আত্মীয় প্রিয়জনদের সকল চেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে, এক বিন্দু জলও মুখে না তুলে বাবার জন্য অপেক্ষারত স্বাতিয়া মুমূর্ষ হয়ে পড়লে, টিভিতে সেই খবর দেখা দর্শকশ্রোতাদের তখন মার্টিন নেইমারের কথা মনে পড়ে,-দেয়ার ওয়াজ নো ওয়ান লেফট ফর মি টু স্পিক আউট.. দেয়ার ওয়াজ নো ওয়ান লেফট ফর মি টু স্পিক আউট…কথাটি তাদের নিস্ক্রিয় ভোঁতা অনুভূতিকে ক্রিয়াশীল করে তারা নিজেরা নিজেদের কাছে বড় ছোট এবং লজ্জিত হয়, আর তখন তাদের মাঝে বিস্ফোরণের সম্ভাবনা ঘটে। তারা দেখে, ‘শুদ্ধি অভিযানের’ নামে দেশটি থেকে একে একে মানুষ হারিয়ে যায়, ফেরে না আর। প্রিয়জনরা লাশটিও ফিরে পায় না! বিস্ফোরণোন্মুখ মানুষরা দলে দলে শহীদ মিনারে জড়ো হয়। অগণিত স্বাতিয়া, মহুয়া, মাহিন বা মাহফুজরা-‘বাবাকে ফিরে চাই’ ‘ভাইকে ফিরে চাই’ প্লাকার্ড হাতে শহীদ মিনারে অবস্থান নেয় এবং তারা ঘোষণা দেয়, ‘শুদ্ধি অভিযান’ নামের সরকার বাহাদুরের এই হঠকারিতা বন্ধ না করা পর্যন্ত তারা এখানেই অবস্থান ধর্মঘট করবে। তখন ঘড়ির কাঁটা সন্ধ্যা ছ’টার ঘর ছুঁলে অনাহার অনিদ্রায় মুমূর্ষ স্বাতিয়া জ্ঞান হারায়। দেশের সবগুলো টিভি চ্যানেল এ খবর ফলাও করে প্রচার করলে শহীদ মিনার অভিমুখী মানুষের ঢল হু হু করে বাড়তে থাকে। স্বাতিয়াকে তখন চিকিৎসা সেবার জন্য প্রাইভেট ক্লিনিকে নেয়া হলে আমিও তাদের সঙ্গে যায়। ক্লিনিকের ধবধবে বিছানায় আমার দুর্বল কন্যাটির শরীর লেপটে থাকে! ডাক্তাররা তাকে নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। মেয়ের ডান পার্শ্বে বসে তার মা মেয়ের মুখের উপর ঝুঁকে পড়ে আর টপটপ অশ্রু বিসর্জন দেয়। মেয়ের বাম পার্শ্বে বসে আমিও তখন তার মাথায়, চুলে হাত বুলিয়ে দেই!

আমার মেয়েটা চকলেট খুব পছন্দ করতো। প্রতি সন্ধ্যা ছ’টায় আমি যখন বাসায় ফিরতাম, একেক দিন একেক চকলেট মেয়ের জন্য কিনে নিতাম। সন্ধ্যা ছ’টায় মেয়েটা দরজা খুলে অপেক্ষায় থাকতো! আমি গুম হয়ে যাবার পরও, প্রতি সন্ধ্যা ছ’টাতে আমার মেয়ে দরজার কাছে তার বাবার জন্য অপেক্ষা করেছে, সাংবাদিকরা এই খবর জানে না! সাংবাদিকরা এই খবরও জানে না যে, স্বাতিয়া যখন মরো মরো হয়ে ক্লিনিকের বিছানায় রাত পার করছে, তখন সেই রাতে সরকার বাহাদুর আর তার ছাঁটা চুলের বিশেষ বাহিনীর প্রধান কর্মকাতা একই সঙ্গে একইরকম দুঃস্বপ্ন দেখে,- ‘সার্ভাইভাল অব দ্য ফিটেস্ট’ স্লোগানে চিৎকার করতে করতে অগণিত মানুষ তাদের ঘিরে ধরেছে। নিরস্ত্র এই মানব চক্রের মধ্যে তারা বাঁধা পড়ে গেছে। পালাতে চেষ্টা করেও পারছে না। কেবল থু থু দিয়েই মানুষরা তাদের ডুবিয়ে দিচ্ছে। তারা ডুবে যাচ্ছে অতল অন্ধকারে! ডুবন্ত মানুষের শেষ সম্বল খড়কুটোর আশ্রয় খুঁজছে তারা; পাচ্ছে না! ডুবতে ডুবতে শেষ শক্তি দিয়ে চিৎকার করে তারা হুড়মুড় করে ঘুম থেকে জেগে উঠে! নিজের গায়ে চিমটি কেটে বুঝতে পারে, ঘুম ভেঙ্গেছে,- দুঃস্বপ্ন দেখছিল এতক্ষণ। আশ-প্বার্শে তাকালে তখন ঘুমন্ত সন্তানের মুখের প্রতি তাদের দৃষ্টি আবদ্ধ হয়! সেখানে তারা স্বাতিয়ার মুখ দেখতে পায়!