বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৫ মাসে জাল টাকাসহ গ্রেপ্তার ৫৩ জন, উদ্ধার দেড় কোটি টাকা

news-image

অপরাধ ডেস্কঈদ আসলেই জাল নোটের কারবারিরা সক্রিয় হয়ে ওঠে। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। ঈদ উপলক্ষে অর্থের প্রবাহ বেড়ে যাওয়ার সুযোগ কাজে লাগিয়ে কয়েকটি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কৌশলে বাজারে জাল নোট ছাড়ে অপরাধী চক্র। জাল নোটের কারবারিদের সঙ্গে ব্যাংকের অসাধু চক্রের যোগাযোগ থাকারও অভিযোগ রয়েছে। প্রচলিত ব্যাংক নোট নয়, আধুনিক মুদ্রণ প্রযুক্তির ব্যাপক উন্নয়ন ঘটায় দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজের সার্টিফিকেট, জাতীয় পরিচয়পত্রসহ বিভিন্ন পেশার আইডি কার্ড অবিকল ছাপানো সম্ভব হচ্ছে। রাজধানীর চিহ্নিত কিছু এলাকায় প্রতারক চক্র আধুনিক প্রযুক্তির সহায়তায় তারা জাল নোট বাজারে ছাড়ছে। গত কয়েক বছর ধরে তারা জাল নোটেব ব্যবসা করছে। জাল ব্যাংক নোট প্রতিরোধে রাজধানীসহ দেশের ৬৪টি জেলায় জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে একটি করে কমিটি গঠন ও প্রতিমাসে অন্তত একটি করে সভা অনুষ্ঠানের কথা থাকলেও আজ পর্যন্ত কোথাও সভা অনুষ্ঠানের খবর পাওয়া যায়নি। ফলে অপরাধী চক্র দেশের বিভিন্ন জায়গায় জাল নোট ছড়াচ্ছে। আজকেও রাজধানী ঢাকা থেকে জাল নোটসহ ধরা পড়েছে ৬ জন। উদ্ধার করো হয়েছে ৬০ লাখ টাকা। গত ৫ মাসে জাল টাকাসহ গ্রেপ্তার হয়েছে ৫৩ জন, উদ্ধার করা হয় দেড় কোটি টাকা।
১৪ জানুয়ারি  চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা থানার পুলিশ জাল নোটসহ মিন্টু আলী (২৬), হাসান আলী (৩০) ও হারেজ আলী (৫২) তিন ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় তাঁদের কাছ থেকে ২০টি ৫০০ টাকার জাল নোট উদ্ধার করা হয়।
২০ জানুয়ারি চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশ এক হাজার টাকার ২০টি জাল নোটসহ মোহাম্মদ ইকবাল নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে।
৩০ জানুয়ারি কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে জাল নোটসহ উজ্বল হোসেন (৩০) নামে এক জাল টাকা ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২টি ৫’শ টাকা ও ১টি একহাজার টাকার জাল নোট উদ্ধার করা হয়।
৭ ফ্রেব্রুয়ারি সাতক্ষীরায় এক লাখ টাকার জাল নোটসহ ফরিদ হোসেন (৫৫) ও সাতক্ষীরার তালা উপজেলার রহিমাবাদ গ্রামের আবুল কালামকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। দীর্ঘদিন ধরে তাঁরা জাল টাকার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। বিভিন্ন জায়গা থেকে জাল টাকা এনে সাতক্ষীরার বিভিন্ন অঞ্চলে তাঁরা বিক্রি করতেন।
২২ ফ্রেব্রুয়ারি কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার পূর্নমতি এলাকা থেকে ২০ হাজার টাকার জাল নোটসহ দুই জাল টাকা ব্যবসায়ীকে আটক করেছে বুড়িচং থানা পুলিশ।
৭ মার্চ ফেরি করে কাপড় বিক্রি করেন নিজাম উদ্দিন। এ ব্যবসার আড়ালে জাল নোটের ব্যবসা করতেন তিনি। চট্টগ্রাম শহরতলির শাহ আমানত সেতু এলাকা থেকে নিজামকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁর কাছ থেকে এক হাজার টাকার ৩১টি জাল নোট উদ্ধার করা হয়।
২১ মার্চ রাজধানীর বড় মগবাজার থেকে ৩৫ লাখ জাল টাকা ও জাল নোট  তৈরির কোটি টাকা মূল্যের সরঞ্জামাদিসহ পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- মনির খান (২৪), ইয়াকুব ফকির (২০), রুবেল গাজী (২৫), সাহাবুদ্দিন (৩২) ও নাজমুল ইসলাম (১৮)।
২৩ মার্চ মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ৫০০ টাকার ২৯টি জাল নোটসহ তারেক আজিজ (৪৫) নামের এক ব্যক্তিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। এ সময় তাঁর কাছ থেকে ২৯টি ৫০০ টাকার জাল নোট উদ্ধার করা হয়েছে।
 
২৫ মার্চ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে প্রায় এক লাখ টাকার সমমানের জাল নোটসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মো.শফিকুল ইসলাম গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ৭০টি এক হাজার টাকার নোট ও ৮০টি ৫০০ টাকার নোটসহ মোট ১ লাখ ১০ হাজার জাল টাকা উদ্ধার করা হয়।
 
১০ এপ্রিল  বরগুনা সদর উপজেলার ফুলঝুড়ি ইউনিয়নের গিলাতলী এলাকা থেকে তিন লাখ জাল টাকাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গ্রেপ্তার হওয়া তিন তরুণ হলেন তোফাজ্জেল হোসেন টিটু, আবুল কালাম ও শাওন।
 
১৬ এপ্রিল  রাজধানীর পশ্চিম আগারগাঁও এলাকার বিএনপি বস্তি থেকে ১৫ লাখ টাকার জাল নোট, জাল নোট  তৈরির সরঞ্জামসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। আটককৃতরা হলো আমজাদ হোসেন, তার সহযোগী সালাম শেখ, নজরুল ইসলাম ও শহিদুল ইসলাম।
 
২১ এপ্রিল সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ১৩ হাজার টাকার জাল নোটসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে।
গ্রেপ্তার হলেন- লক্ষীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলার আলীপুর গ্রামের রফিকুল্লার ছেলে মাইন উদ্দিন মানিক (৩৮), হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার মাইকনামদনপুর গ্রামের পরশ আলীর ছেলে জাকির হোসেন (২৫) ও হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার মাইছপুর গ্রামের জমের আলীর মেয়ে জোনাকি খাতুন (৩০)।
 
৩০ এপ্রিল জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে আসল ৩০ হাজার টাকা দিলে নকল এক লাখ টাকা দেয়া হচ্ছে। স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ও ব্যবসায়ীর যোগসাজশে চক্রটি এলাকার সাধারণ মানুষকে ঠকিয়ে জাল টাকার ব্যবসা চালাচ্ছে। পুলিশ খবর পেয়ে শাহিনুর আলম (৩০) ও হরিপুর গ্রামের শাহিন (২৮) এবং বগুড়ার আমীন হাসেনকে গ্রেপ্তার করেছে । তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ১০ হাজার টাকার জাল নোট।
 
৯ মে চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়া ও পাহাড়তলী এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৮০ হাজার টাকার জাল নোটসহ তাজউদ্দিন মাসুদ (২৫), তার স্ত্রী স্বপ্না বেগম (২০) ও আত্মীয় শাহনাজ বেগম (২৪) তিন জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে এক হাজার টাকার আরও ৮০টি নোট উদ্ধার করা হয়।
 
২৯ মে চট্টগ্রাম নগরীর বায়েজিদ থানা এলাকা থেকে সাড়ে ছয় লাখ টাকার জাল নোটসহ রাজীব ধর (৩৭) ও মো. জসীম (২৬) দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তাদের কাছ থেকে এক হাজার টাকার ৬২৮টি এবং পাঁচশ টাকার ৪৪টি নোটসহ মোট সাড়ে ছয় লাখ টাকার জাল নোট উদ্ধার করে।
 
৫ জুন মাগুরা শহরের জামরুলতলা থেকে ২৪ হাজার টাকার জাল নোটসহ সাগর বিশ্বাস (১৮) নামের এক তরুণকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৫০০ টাকার ২৬টি জাল নোট উদ্ধার করা হয়।
 
৫ জুন নীলফামারীর সৈয়দপুরে এক হাজার টাকার ১৫টি জাল নোট উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময় দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়। র‌্যাব-১৩ সিপিসি-২ নীলফামারী ক্যাম্পের সদস্যরা অভিযান চালিয়ে সৈয়দপুর শহরের ইসলামবাগ মহল্লার উবায়দুর রহমান (৪৭) ও মুন্সিপাড়ার দর্জিপট্টি এলাকার শামীম হোসেন (৪৫) ২ জনকে গ্রেপ্তার করেন।
 
৯ জুন রাজধানীর মিরপুরের মধ্য মণিপুর এলাকা থেকে গতকাল জাল টাকা  তৈরির সিন্ডিকেটের ৬ সদস্যকে আটক করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এসময় তাদের কাছ থেকে ৫০ লাখ জাল টাকা ও সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়।
আটকরা হলেন- সুমন আহমেদ, বায়েজিদ উদ্দিন, সিদ্দিকুর রহমান, শফিকুল ইসলাম, জেসমিন আক্তার, সোহাগ অধিকারী ও সুমন আহমেদ।
 
১৩ জুন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় ৮১ হাজার ৫০০ টাকার জাল নোটসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ । ফতুল্লার লালপুর পৌষাপুকুরপাড় এলাকা থেকে ওই ৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন লালপুর এলাকার সাগরের স্ত্রী মিতু, সিদ্ধিরগঞ্জ আদমজী এলাকার আবু আব্বাস ও একই এলাকার হৃদয় হোসেন কামাল।
 
১৪ জুন রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানা পশ্চিম কাফরুলের তালতলা এলাকা থেকে জাল টাকা তৈরি চক্রের ছয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করে । ৬০ লাখ টাকা মূল্যের জাল টাকা বাজারে ছেড়েছে ওই চক্রের সদস্যরা। বছরের দুটি ঈদ এ চক্রের সদস্যদের টার্গেট থাকে বলে জানিয়েছে পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতদের হেফাজত থেকে ছাপা-অর্ধছাপা বাংলাদেশি ৪০ লাখ টাকা মূল্যমানের ১০০০ টাকা নোটের জালনোটসহ বিপুল পরিমাণ টাকা তৈরির কাগজ, ৮টি জাল টাকা তৈরির ফ্রেম, রং, নিরাপত্তা সুঁতা, দুটি ল্যাপটপ, দুটি প্রিন্টার, আট ব্যান্ডেল জলছাপ দেওয়া ১০০০ টাকা লেখা কাগজ, দুটি কার্টার ও টাকা তৈরির অন্যান্য সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত জালটাকা ও টাকা তৈরির সরঞ্জামাদির আনুমানিক মূল্য প্রায় ৭০ লাখ টাকা।

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা