সোমবার, ১৬ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কৌশলগত কারণে আপাতত জামায়াত ছাড়ছে না বিএনপি

news-image

বিএনপি-জামায়াত সম্পর্ক নিয়ে এই মুহূর্তে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। জামায়াত ছাড়া নিয়ে বিএনপির ভেতরে নেতাকর্মীদের মধ্যে দ্বিমত রয়েছে। একাংশ চাইছে জামায়াত ছেড়ে বিএনপি জিয়াউর রহমানের আদর্শের ভিত্তিতে এগিয়ে যাক। মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতের একাধিক নেতা অভিযুক্ত ও বিচার হওয়ার পরও তাদের সঙ্গে রাখার কারণে বিএনপি সমালোচিত হচ্ছে। বিভিন্ন পশ্চিমা দেশও এখন জামায়াতের ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাব দেখাচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধে পক্ষের শক্তি হিসাবে সরকারি দল সুবিধা পেলেও বিএনপি মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের দল হয়েও জামায়াতের কারণে বিতর্কিত হচ্ছে। দলের নীতি নির্ধারকদের কয়েকজন চান বিএনপির সঙ্গে জামায়াত না থাকুক। তারা চান জোট ভেঙে দেওয়া হোক। বিএনপি নিজের মতো করে চলুক। আগামী দিনের জন্য তৈরি হোক। আর এক অংশ মনে করছে, এখন জোট ভেঙে দিলে জামায়াতকে সরকার টেনে নিবে। এতে বিএনপির ক্ষতি হবে। প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, জামায়াত বাদ দিলে ২০ দলীয় জোট থাকবে কি থাকবে না এ নিয়েও। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মধ্যকার বৈঠকের পর কেউ কেউ বলেছেন বিএনপিকে জামায়াত ছাড়ার জন্য অনুরোধ করেছেন মোদি। এরপর আবারো প্রশ্ন উঠেছে বিএনপি জামায়াত ছাড়ছে কিনা। বিএনপি-জামায়াতের মধ্যে সম্পর্কের টানপড়েন চরম পর্যায়ে থাকলেও দল দুটির ঘনিষ্ঠ সূত্র থেকে জানা গেছে, আপাতত কেউ কাউকে ছাড়ছে না।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবিহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, মোদির সঙ্গে বৈঠকে জামায়াতের নাম ধরে সুনির্দিষ্ট করে কোনো আলোচনা হয়নি। মোদি জামায়াত ছাড়ার কথা বলেননি। এই সময়ে এসব প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সম্ভব হবে না। আসলে জামায়াত ছাড়া না ছাড়া নিয়ে মোদি কথা বলেছেন বলে এসব ব্যাপারে যারা কথা বলছেন এগুলো তাদের সব মনগড়া কথা।

ওই বৈঠকের পর জামায়াত এখনো পুরোপুরি বুঝতে পারছেন না জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির দূরত্ব আরো বাড়বে কিনা। বিএনপি মনে করছে, মোদির সফরের পর বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের সম্পর্ক ঝুঁকিতে পড়েনি। জামায়াত নিয়ে বিএনপিতে কিছুটা অস্বস্তি ও ভিন্নমত আছে। আন্দোলনে জামায়াত যথাযথ ভূমিকা রাখতে পারছে না। এতে করে বিএনপির অনেক নেতাকর্মী অসন্তুষ্ট।

বিএনপির একাধিক নীতিনির্ধারক মনে করেন, জামায়াত সময়ের পরিক্ষায় উত্তীর্ণ একটি দল। বিগত সরকারবিরোধী আন্দোলনে বিএনপির সঙ্গে থেকে আন্দোলন করেছে। নানা ত্যাগ স্বীকার করেছে এবং প্রকাশ্যে না করতে পারলেও এখনো করে যাচ্ছে। ভোটের হিসেবে জামায়াতের নিজস্ব ভোট ব্যাংক রয়েছে।

ওই নেতারা আরো মনে করছেন, নির্বাচন কমিশন জামায়তের নিবন্ধন বাতিল করায়  দলটি স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করতে পারবে না। সেই হিসাবে জামায়াতকে নিয়ে বিএনপি জোট হিসাবে আগামীতে নির্বাচনে গেলে তাদের ভোট ব্যাংকের সঙ্গে যুক্ত হবে। বিএনপি জামায়াত ছেড়ে দিলেই সরকার তাদের কব্জা করে নেবে। সেটাও তারা চাইছে না। এসব হিসাব-নিকাশ করেই বিএনপিও আপাতত জামায়াতে ছাড়ছে না।

জামায়াত সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির সঙ্গে জামায়াত দীর্ঘদিন ধরে জোটগত আন্দোলন করে আসছে। এজন্য দলটিকে এখন কোণঠাসা করে রাখা হয়েছে। মানবতাবিরোধী অপরাধে একের পর এক জামায়াত নেতাদের সাজা হচ্ছে এবং তা কার্যকরও হচ্ছে। এতসব প্রতিকূলতার মধ্যেও জোট ছেড়ে যাচ্ছে না জামায়াত। যদিও  জামায়াতের মধ্যে বিএনপিকে নিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে ব্যাপক ক্ষোভ রয়েছে। এই ক্ষোভের প্রকাশ ঘটে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হওয়া তিন সিটি  নির্বাচনে জামায়াতের সঙ্গে আলোচনা না করে  বিএনপি সব প্রার্থী চূড়ান্ত করা। মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে জামায়াতের পাশে বিএনপি না দাঁড়ানো। জামায়াত আন্দোলন সফল করে আর বিএনপি এর সুফল ভোগ করে। আন্তজাতিক মহলের চাপে বিএনপি বলছে জামায়াতের সঙ্গে তাদের জোট কেবল কৌশল গত। আন্দোলন ও নির্বাচনের জন্য জোট। এসব বিভিন্ন ইস্যুতে জামায়াত ক্ষুব্ধ। কিন্তু জামায়াত সবকিছুর পরও বিএনপির সঙ্গেই থাকতে চাইছে।

বিএনপি চেয়াপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আহমদ আযম খান বলেন, বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের কোনো আদর্শিক জোট  না এটা নির্বাচন ও আন্দোলন সম্পর্কিত জোট তাই এটা নিয়ে প্রশ্ন তোলার কোনো সুযোগ নেই। জামায়াতের থাকা না থাকার বিষয়টি তাদের ব্যাপার। বিএনপি তাদের বাদ দেবে না।

জামায়াত জোটে  থাকার কারণে বিএনপির ওপর ও খালেদা জিয়ার ওপরও চাপ রয়েছে। আন্তর্জাতিক মহলের সঙ্গে আলোচনায় খালেদা জিয়া বলেছেন, সময় আসলে জোটে  বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

জামায়াত ও ২০ দলীয় জোটের বিষয়ে বিএনপিনেতা ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর ২৮ মে জোট ভেঙে দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে বলেন, যেসব জেলায় জোটের শরিক দলের আসন রয়েছে, সেসব জেলায় বিএনপির নেতৃত্ব তৈরি হচ্ছে না। তিনি ২০ দলীয় জোট ভেঙে দিয়ে তাদের বিএনপিতে একীভূত হওয়ার প্রস্তাব রাখেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও ছাত্রদলের সাবেক সিনিয়র সহসভাপতি বজলুল করিম চৌধুরী আবেদও জামায়াত ছাড়ার কথা বলেন। না ছাড়লে দেশে আর বিএনপি থাকবে না। এ ব্যাপারে এখনই সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় এসেছে। এর উত্তরে মওদুদ আহমদ বলেছিলেন, কথা ঠিক।

বিএনপি নেতাদের মধ্যে কারো কারো দাবি, বিএনপিকে জামায়াতের বোঝা টানতে হচ্ছে। এছাড়া জোটে জামায়াতসহ বেশ কয়েকটি ধর্মভিত্তিক রাখা হয়েছে। এরফলে বিএনপি এখন চরম ডানপন্থি দল হিসেবে পরিচিত হচ্ছে। আন্দোলন সংগ্রামে বেশি সহিংসতা হচ্ছে। যাতে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরাই বেশি জড়িত। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও ভারতেও জঙ্গি উত্থানের ঘটনা ঘটছে। নরেন্দ্র মোদি সার্বজনীন বক্তব্য দিয়েছেন।  বিএনপি সব সময় জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে। বিএনপি জামায়াতকে ছাড়বে কিনা জানতে চাইলে বলেন, এখনোই এটা বলা যাবে না, সময়ই বলে দেবে কী করতে হবে।

সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে বিএনপির প্রতিষ্ঠাকালীন মহাসচিব ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করে বিবৃতিতে দিয়েছে জামায়াত। অনুষ্ঠানে বি. চৌধুরী বলেছেন, বিএনপিকে বাঁচতে হলে জামায়াত ছাড়তে হবে। বিএনপিকে জামায়াত নির্ভরতা ছেড়ে জিয়াউর রহমানের আদর্শে ফিরতে হবে। তার এই কথা প্রতিবাদ জানায় জামায়াতে ইসলামী। দলের নির্বাহী পরিষদের সদস্য হামিদুর রহমান আযাদ বলেন, এসব পরামর্শ ২০ দলীয় জোট ভাঙার ষড়যন্ত্র। জনগণের ভোটাধিকার বহাল ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারসহ জাতীয় প্রয়োজনে ২০ দলীয় জোট গঠিত হয়েছে। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী এ জোটের একটি গুরুত্বপূর্ণ শরিক দল। ২০ দলীয় জোটের শরিক সব দলেরই নিজস্ব আদর্শ ও কর্মসূচি রয়েছে। কাজেই এখানে একদলের ওপর অন্যদলের নির্ভরশীলতার প্রশ্ন সম্পূর্ণ অবান্তর। ২০ দলীয় জোট একসঙ্গে কর্মসূচি ঘোষণা করছে এবং তা পালন করছে। জনগণ ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে রয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ২০ দলীয় জোটের শরিক কোনো দলকে অপর দলের সঙ্গ ছাড়ার পরামর্শ প্রদান মূলত ২০ দলীয় জোট ভাঙারই পরামর্শ দান। এ পরামর্শ দিয়ে বি. চৌধুরী কার এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতে চান? এদিকে কেউ কেউ মনে করছেন, বিএনপি জামায়াতের সঙ্গ ছাড়তে চাইছে। দলটির পক্ষ থেকে অনেকটা লালবার্তা দেয়া হচ্ছে জামায়াতকে। বিএনপি অনেক নেতাকর্মীরাও মনে করে জামায়াত ছেড়ে নিজস্ব শক্তিতে পথ চলতে হবে বিএনপিকে। বিএনপির নীতিনির্ধারকদের কেউ কেউ দলটির সঙ্গে সম্পর্ক রাখার বিপক্ষে।  তৃণমূল থেকেও জামায়াত ছাড়ার চাপ আছে। বিএনপির চেয়ারপারসনের একজন উপদেষ্টা মনে করেন, বিএনপি-জামায়াতের সম্পর্ক দাঁড়িয়ে আছে জাতীয় সংসদের ৬০ থেকে ৭০টি আসনের ভোটের হিসাবের ওপর। এই হিসাব থেকেই জামায়াতকে বিএনপি থেকে আলাদা করতে চায় আওয়ামী লীগ। বিএনপির বড় একটি অংশ জোট থেকে জামায়াতের বিদায়ের পক্ষে। কিন্তু তাদের বিপক্ষের নেতারা মনে করেন, আওয়ামী লীগ জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলন করেছে। বিএনপি করতেও বাধা নেই। এই কারণে জামায়াতের সঙ্গে কৌশলগত সম্পর্ক রাখতে হবে। তাদের জনসমর্থন আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যবহার করতে হবে।

এদিকে জামায়াতের মতে, জোট ভেঙে দিলে তাদের কোনো আপত্তি নেই। তবে নিজেরা জোট ছেড়ে যাবে না। সরকারের সঙ্গে জামায়াতের সমঝোতা হয়েছে বলে সরকার জামায়াত নিষিদ্ধ করছে না এমন খবর রয়েছে বিএনপির কাছে। এই কারণেও বিএনপি জামায়াত ছাড়তে চাইছে না। গত বছরের জানুয়ারিতে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট বিএনপিকে জামায়াত ছাড়ার কথা বলে। এ সংক্রান্ত প্রস্তাবে বলা হয়, বাংলাদেশে গণতন্ত্রের সুনাম আছে। রাজনৈতিক দলগুলোর উচিত সেই সুনাম ধরে রাখা এবং একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করার সংস্কৃতি বৃদ্ধি করা। বিএনপির উচিত জামায়াতে ইসলাম এবং হেফাজতে ইসলাম থেকে নিজেদের দূরে রাখা।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে খালেদা জিয়ার বৈঠকের পর জামায়াত দুশ্চিন্তায় পড়েছে বলেও খবর বের হয়েছে। কেউ কেউ বলছে, খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকে মোদি বিএনপিকে জামায়াতের সঙ্গ ছাড়ার বার্তা দিয়েছেন, বিভিন্ন গণমাধ্যমে এমন খবর বের হওয়ার পর বেশ দুশ্চিন্তায় পড়েন জামায়াতের নীতি নির্ধারকরা। সাবিহ উদ্দিন এটা অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, বৈঠকে সীমান্ত চুত্তির জন্য প্রশংসা করা, তিস্তা চুক্তি কবে হবে জানতে চান খালেদা। দুদেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়সহ বেশ কিছু বিষয়ে আলোচনা হয়।

আমাদের সময়.কম