মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মামলার অব্যহতিকে শুভলক্ষণ বলছে বিএনপি

news-image

বাসে পেট্রলবোমা মেরে পুলিশ সদস্যকে হত্যা মামলায় পুলিশ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এমকে আনোয়ার, যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ ৩১ নেতাকর্মীকে অব্যহতি দেওয়া ও অপর একটি মামলায় দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমানসহ বিএনপি জামায়াতের আরো ২২ নেতাকে অব্যহতি চেয়ে আদালতে আবেদন করার ঘটনাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে বিএনপি। তবে দলটির নেতারা বলেন, দুই একটি মামলায় অব্যহতি দিলেই হবে না। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ জাতীয় নেতাদের মিথ্যা এসব মামলা থেকে অব্যহতি দিলেই তখন বোঝা যাবে পুলিশ নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করছে। এছাড়া মিথ্যা এসব মামলা থেকে নেতাদের অব্যহতি দেওয়া হয় তাহলে সেটা গণতন্ত্রের জন্য সুফল বয়ে আনবে এবং সরকারের সঙ্গে বিরোধী দলের যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে তা অনেকাংশে কমে আসবে বলে মনে করেন তারা।

জানতে চাইলে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য লে.জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, এটা একটা শুভলক্ষণ বলতে পারি। দুটি মামলায় আমাদের দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ২২ জন ও অপর একটি মামলায় ৩১ জনকে অব্যহতি দেওয়ার ঘটনাকে আমি ইতিবাচক হিসেবে দেখতে চাই।

এ বিষয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আহমদ আজম খান বলেন, আমরা এটাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখতে চাই। তবে একটি মামলায় হাবিব উন নবী সোহেলকে মামলা থেকে অব্যহতি দেয়নি এবিষয়টি অবশ্যই নিন্দনীয়। অন্য নেতাদেরকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে এটাকে আমি স্বাগত জানাই। তবে আরো ভালো হতো যদি পুলিশ জনগণের বন্ধু হয়ে সকল মিথ্যা মামলা থেকে আমাদের দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ অন্য অসংখ্য মামলায় পুলিশ যে চার্জসিট গুলো দিয়েছেন এই চার্জশিটগুলো না দিয়ে সকল নেতাকর্মীকে অব্যহতি দেওয়া হতো। এছাড়া এখনো যদি সম্পূরক চার্জশীটের মাধ্যমে যারা জড়িত তাদেরকে রেখে যদি জাতীয় নেতাদেরকেও অব্যহতি দেওয়া হয় তাহলে বুঝবো পুলিশ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে বস্তুনিষ্ঠ রির্পোটগুলো দিচ্ছেন।

তিনি আরো বলেন, কিছু মামলায় কিছু জাতীয় নেতাকে অব্যহতি দিয়ে আবার কিছু মামলায় তাদেরকে আটকে রেখে এটা স্বচ্ছতার প্রমাণ মেলে না। তিনি প্রশ্ন করে বলেন, ম্যাডাম খালেদা জিয়া, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ জাতীয় পর্যায়ের নেতারা যে গাড়ি পুড়িয়েছেন, বাসে পেট্্রলবোমা মেরেছেন এটা কী কেউ কখনো বিশ্বাস করতে পারেন। তাই সরকারের কাছে অনুরোধ করবো সকল মামলা থেকে নেতাদের অব্যহতি দেওয়া হয় তাহলে সেটা গণতন্ত্রের জন্য সুফল বয়ে আনবে এবং সরকারের সঙ্গে বিরোধী দলের যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে তা অনেক কমে আসবে।

 

এ জাতীয় আরও খবর