রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নবীনগরে অদৃশ্য জুয়া খেলায় শতাধিক পরিবার নি:স্ব

news-image

বিশেষ প্রতিনিধি : নবীনগরে অদৃশ্য জুয়া খেলায় শতাধিক পরিবার নি:স্ব হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গোটা নবীনগরেই চলছে এই অদৃশ্য জুয়া খেলা। এ জুয়া কোন তাস খেলার ইশকা কিংবা রুইতন নয়, জুয়া ঘরের কোন গুটি নয়, চরকি খেলার হরিন কিংবা ঘোড়া নয়, মেলার তিন তাসের ঘর নয়, নয় কোন হাউজি খেলাও। এ খেলায় নেই কোন পুলিশের তাড়া। এটি এমন একটি অদৃশ্য জুয়া খেলা যা চোখে দেখা না গেলেও এর লোভে পড়ে নবীনগরে আজ অনেকেই হিরো থেকে জিরো হয়েছেন। এই অদৃশ্য জুয়ার প্রভাবে এলাকার মধ্যবিক্ত, নি¤œ মধ্যবিক্ত এমন অনেক পরিবারই সহায়-সম্বাল হারিয়ে এখন পথে বসেছেন। সম্বলহীন এসব পরিবারের এতটাই করুন অবস্থা যে, পরিবারের অর্থের যোগন দিতে বাড়ির বৌ-ঝিয়েদেরও কাজে নামতে হচ্ছে। প্রশাসনের কাছে এর কোন সুনির্দিষ্ট আভিযোগ বা তথ্যপ্রমান না থাকলেও, এলাকার নি:স্ব হওয়া কয়েকটি পরিবারের লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায় এসব তথ্য।
তারা জানান, বছর জুড়েই চলে সারাবিশ্বে আইপিএল, বিশ্বকাপ ক্রিকেট কিংবা ফুটবল খেলা। আর এসব খেলাকে ঘিরেই চলে অদৃশ্য জুয়ার আসর। প্রতি খেলায় হারজিত নিয়ে মৌখিকভাবে পাঁচ হাজার টাকা থেকে শুরু করে পাঁচ লক্ষ টাকা পর্যন্ত জুয়ার বাজি ধরা হয়। শুধু তাই নয় ক্রিকেট খেলায়, প্রতি বলে বলে চলে বাজি। প্রতি বলেবলে কিংবা প্রতি ওভারে উইকেট পড়বে কি পড়বেনা, রান বা ছক্কা হবে কি হবেনা এ নিয়ে ধরা হয় হাজার হাজার টাকার বাজি। এমন অদৃশ্য জুয়ার খপ্পরে পড়ে অনেকেই আজ কোটিপতি থেকে নি:স্ব হয়ে অসহায়। এসব জুয়ার টাকার যোগান দিতে কেউ জায়গা জমি বিক্রি করছেন। আবার কেউ এলাকার প্রভাবশালী সুদখোরদের কাছ থেকে চড়া সুদে টাকা এনে জুয়ায় হেরে ঘরবাড়ি হারাচ্ছেন। এসব জুয়ার সাথে জড়িত গোপন একাধিক সূত্রে জানা যায়, এ জুয়াকে ঘিরে এলাকার একশ্রেণির প্রভাবশালী সুদখোরদের রয়েছে রমরমা ব্যবসা। তারা খেলার বাজিওয়ালাদের সুযোগ বুঝে চড়া সুদে টাকা ধার দিয়ে থাকেন। প্রভাবশালী এসব সুদখোরদের চড়া সুদের টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে ভিটেমাটি পর্যন্ত হারিয়েছেন অনেক কোটিপতি। গোপন একধিক সূত্রে জানাযায়, কোর্টরোর্ডের একটি দোকানে রয়েছে এর একটি সিন্ডিকেট। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভোলাচং দাস পাড়ার এমন এক ক্রিকেট বাজিওয়ালা জানান, খেলায় বাজি ধরে তিনি এখন নি:স্ব। দাস পাড়ায় আমার মতো আরো অনেকেই আছে সুদে টাকা এনে বাজি ধরেছিল। এসব টাকা পরিশোধ করতে না পেরে অনেকেই আজ বাড়িছাড়া। এছাড়াও ভোলাচং বাজারের ব্যাবসায়ী শ্রীনিবাস জুয়ায় হেরে এখন সে দেশ ছাড়া বলে জানান তিনি। নবীনগর বাজারের ব্যাবসায়ী জীবন বর্মন জানান, তার দোকানের কর্মচারী তাপস চন্দ্র বর্মন প্রায় দুই লক্ষ টাকা আইপিএল জুয়ায় হেরেছে। তার এই টাকা শোধ করতে দোকান মালিক জীবনকে প্রায় ১ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা গুনতে হয়েছে। বিনিময়ে তার দোকানে তিন বৎসর কর্মচারী থাকার কথা থাকলেও সে পালিয়ে যায়। নবীনগরে এই খপ্পরে পড়ে অনেক স্বর্ণ-ব্যবসায়ীও আজ ব্যবসা হারিয়েছেন। ব্যবসা বানিজ্য হারিয়ে সুদের টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে তারা এখন পরিবার পরিজন নিয়ে গাঁ-ঢাকা দিয়েছেন। তাছাড়া সর্বস্ব খ্ুঁইয়ে দিশেহারা হয়ে কেউ কেউ নেশার জগতেও ঝুকে পড়ছেন। লোকলজ্জার ভায়ে এসব কথা কাউকে বলতে কিংবা থানায় অভিযোগ দিতেও পারছেনা তারা। কর্তা ব্যক্তি নেশার জগতে আশক্ত হওয়ার ফলে পারিবারিক কলহ সহ আত্যহত্যার প্রবনাতাও এলাকায় বৃদ্ধি পাচ্ছে।  

 

 

এ জাতীয় আরও খবর

দুদকের মামলা স্থগিতে বদির আবেদন খারিজ

সকালে তীব্র, দুপুরে সহনীয় যানজট

অর্থ আত্মসাৎ: নর্থ সাউথের চার ট্রাস্টিকে গ্রেফতারের নির্দেশ

‘মুজিব’ সিনেমার ট্রেলার দেখে সবাই কেন হতাশ তার কারণ পাচ্ছেনা পরিচালক

হয়রানির শিকার বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জা

অ্যান্থনি নরম্যান আলবানিজকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

উত্তরায় নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

আজ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু

কাশিমপুর কারাগারে নারী হাজতির মৃত্যু

সিঙ্গাপুরের হেড কোচ হলেন সালমান বাট

ধানুশের আসল বাবা-মা নাকি তারাই! মানতে নারাজ অভিনেতা

পাকিস্তানি নারীর ‘প্রেমের ফাঁদে’ গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাচার, ভারতীয় সেনা গ্রেপ্তার