সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারত হামলা চালালে মিয়ানমার বরদাশত করবে না (ভিডিও)

news-image

মিয়ানমারে ভারতীয় সেনবাহিনীর অভিযান নতুন সামরিক কৌশল কি না সামরিক বিশ্লেষকরা এমনটাই যখন ভাবছেন তখন এধরনের হামলার কথা অস্বীকার করেছে মিয়ানমার। দেশটি নিজ ভূমিতে ভারতীয় বাহিনীর হামলা চালানোর বিষয়টি অস্বীকার করে বলছে হামলা ভারতীয় সীমান্তেই হয়েছে, মিয়ানমারে নয়। এএফপি

ফেসবুক বার্তায় মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের পরিচালক জ হতে বলেন, ‘তাতমাদু (মিয়ানমার সেনাবাহিনী) ব্যাটালিয়নের দেওয়া তথ্যানুযায়ী আমরা জানতে পেরেছি যে, ভারত-মিয়ানমার সীমান্তের ভারতীয় অংশে সেনা অভিযান চালানো হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘কোনো বিদেশি আমাদের মাটিতে বসে প্রতিবেশী দেশগুলোতে হামলার চেষ্টা করলে তা বরদাশত করা হবে না।’

তবে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পারিকর বলেছেন, মিয়ানমার সীমান্তে ভারতের সেনাবাহিনী জঙ্গিদের ওপর যে হামলা করেছে তা প্রতিবেশী দেশগুলোর মনোভাবে পরিবর্তন এনেছে। বৃহস্পতিবার দিল্লিতে এক সেমিনারে মনোহর পারিকর বলেন, মিয়ানমারে ভারতীয় সেনাবাহিনীর একটি ছোট অভিযান নিরাপত্তার প্রশ্নে বেশকিছু পরিবর্তন আনবে এবং এধরনের অভিযানের প্রয়োজন ছিল।

এদিকে গত মঙ্গলবার ভারতের গণমাধ্যমগুলো জানায়, মিয়ানমার সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় বিদ্রোহীদের দমনে অভিযান চালিয়েছে ভারতীয় সেনা ও বিমানবাহিনী। এ সময় মিয়ানমারের ভেতরে অবস্থিত বিদ্রোহীদের দুটি ঘাঁটিতে হামলায় হতাহতের ঘটনা ঘটে।

ভারতের তথ্য প্রতিমন্ত্রী রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোর মিয়ানমার সীমান্তে ওই অভিযানকে তার দেশের সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, এই অভিযান চালিয়ে পাকিস্তানসহ সীমান্তবর্তী প্রতিবেশী দেশগুলোর কাছে সতর্কবার্তা পৌঁছে দিতে চায় ভারত। বিদেশি হুমকিতাদের সুযোগ বুঝে দমন করা হবে। মিয়ানমার সীমান্তে বিচ্ছিন্নতাবাদী দুটি আস্তানা ধ্বংসের পর এসব কথা বলেন রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোর। তিনি আরো বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নির্দেশেই এই অভিযান চালানো হয়েছে। এটা পরিস্কার আমাদের রাষ্ট্র ও সরকার কোনো হামলা মুখ বুঝে নেবে না। একটি শক্তিশালী রাষ্ট্র হিসেবে হামলার কঠোর জবাব দেব।

ভারতের সংবাদ মাধ্যমগুলোয় বলা হয়েছে, কিছু বিদ্রোহী প্রাণ বাঁচাতে মিয়ানমারে আশ্রয় নেয়। তাদের হত্যা করতে ভারতীয় সেনা বাহিনী মিয়ানমারে ঢুকে পড়েছিল। ভারতীয় বাহিনীর দাবি মিয়ানমারের বাহিনীর সহযোগিতা নিয়ে এ হামলা চালানো হয়েছে। কিন্তু মিয়ানমার এ দাবি প্রত্যাখান করে।

ভারত সেনাবাহিনীর মুখপাত্র রনবির সিং বলেন, মিয়ানমারের সঙ্গে ভারতীয় সেনাবাহিনী সব সময় যোগাযোগ রাখছে। ভবিষ্যতেও সন্ত্রাস দমনে একত্রে কাজ করে যাবে দুটি দেশ। ওই হামলায় অন্তত ২০ বিদ্রোহী নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় মিডিয়া। ভারত সরকারের পক্ষ থেকে মিয়ানমারের ভূখ-ে হামলা চালানোর বিষয়টি সরাসরি স্বীকার করা না হলেও সন্ত্রাসবাদের ক্ষেত্রে প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলোর প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়েছে। আবার ভারতীয় মিডিয়ার খবরে বলা হচ্ছে মিয়ানমারে নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত দেশটির কাছে এ সামরিক অভিযানের কথা জানান।

ভারতের সেনাবাহিনী মিয়ানমারের ভেতরে ঢুকে যে বিশেষ অভিযান চালিয়ে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বেশ কিছু জঙ্গিকে মেরে ফেলেছে আর অন্তত দুটি শিবির ধ্বংস করেছে, তা নিয়ে ভারতেও চলছে বিশ্লেষকদের বিশ্লেষণ।

ক্ষমতাসীন বি জে পি আর নিরাপত্তা বিশ্লেষকদের একাংশ দাবি করছে এই বিশেষ অভিযানের মাধ্যমে একটা কড়া বার্তা দেওয়া হয়েছে যে সব দেশকেই জঙ্গিবাদ বা সন্ত্রাসীদের রুখতে সীমান্ত পেরতেও ভারতীয় সেনারা পিছপা হবে না। এই অংশের ইঙ্গিত পাকিস্তানের দিকেই।

এ অভিযানের ব্যাপারে ভারতের সেনাবাহিনীর দাবি, তাদের প্যারাকমান্ডো আর ইনফ্যান্ট্রির সদস্যরা মঙ্গলবার ভোর রাত থেকে মিয়ানমারের ভেতরে ঢুকে একটা বিশেষ অপারেশন চালিয়ে নাগা জঙ্গি গোষ্ঠী এন এস সি এন খাপলাং আর তাদের সহযোগী আরও কিছু জঙ্গিগোষ্ঠীর শিবির ধ্বংস করেছে আর অনেককে মেরেও ফেলেছে।

ভারতের প্রাক্তন সেনাপ্রধান জেনারেল শঙ্কর রায় চৌধুরী বিবিসি বাংলাকে জানান, ভারত সরকারের সর্বোচ্চ স্তর থেকে ছাড়পত্র পেয়েছে বলেই এত বড় অপারেশন চালাতে পেরেছে সেনাবাহিনী। তারা নিজে থেকে কখনই এই অপারেশন চালিয়ে থাকতে পারে না।

https://www.youtube.com/watch?v=bXn-jWOclVA

এ জাতীয় আরও খবর