শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘তিন বিচারপতি মানসিক অসুস্থ’

news-image

আদালত অবমাননার দায়ে তাকে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ এর দেওয়া দ-াদেশের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে দাবি করেছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। ট্রাইব্যুনালের করা পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা তিনি পরিশোধ করবেন না বলেও জানিয়েছেন তিনি।

ব্রিটিশ নাগরিক ও সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যানকে ট্রাইব্যুনালের জরিমানার রায়ের বিষয়ে উদ্বেগ জানিয়ে বিবৃতি দেওয়ায় বুধবার (১০ জুন) ডা. জাফরুল্লাহকে এক ঘণ্টার কারাদ- ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেন ট্রাইব্যুনাল।

এক ঘণ্টা ট্রাইব্যুনালের আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থেকে দ- ভোগ করতে রায়ে বলা হয় ডা. জাফরুল্লাহকে। জরিমানার টাকা ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার বরাবর আগামী সাতদিনের মধ্যে ডা. জাফরুল্লাহকে পরিশোধ করতে রায়ে বলা হয়েছে। জরিমানা অনাদায়ে একমাসের কারাদ-াদেশ দেওয়া হয়েছে তাকে।

বেলা এগারটা ২৪ মিনিটে এ রায় দেন চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল। সে হিসেবে দুপুর বারটা ২৪ মিনিট পর্যন্ত আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থেকে দ- ভোগ করার কথা ছিল ডা. জাফরউল্লাহর। কিন্তু তিনি কাঠগড়ায় উঠতে অস্বীকৃতি জানিয়ে দীর্ঘ এক ঘণ্টা ২৫ মিনিট ধরে এজলাসে বাকবিত-া, ট্রাইব্যুনাল ও বিচারপতিদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। এমনকি বিচারপতিদের তিনি বলেন, আপনারা ক্ষমতার অপব্যবহার করে এ আদেশ দিয়েছেন।

অবশেষে অনেকের অনুরোধ ও জোরাজুরিতে দুপুর বারটা ৪৯ মিনিট থেকে একটা ৪৯ মিনিট পর্যন্ত কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে দ- ভোগ করেন জাফরুল্লাহ।

ট্রাইব্যুনাল থেকে বের হয়েই ডা. জাফরুল্লাহ সাংবাদিকদের বলেন, তিনি জরিমানার টাকা পরিশোধ করবেন না। ট্রাইব্যুনালের এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে দাবি করেন তিনি।

তবে ট্রাইব্যুনালের এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাওয়ার সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, আজকের আদালত অবমাননার রায়টা তিনজন বিচারকের মানসিক অসুস্থতার প্রমাণ। এখানে বিচারপতিরা সমালোচনা সহ্য করতে পারেন না। যেখানে তারা সমালোচনা সহ্য করতে পারেন না, সেখানে ন্যায়বিচার হয় না।

যখন তারা সমালোচনা সহ্য করতে পারেন না, তখন যুক্তি থাকে না বলেই আইনের আড়ালে আত্মগোপন করেন। এই আদালত অবমাননার একটি বিষয় আছে।

সেখানে তিনটির একটি বিষয় প্রমাণ করতে হয়। আদালতের বিরুদ্ধে কুৎসা রটনা, বিচারের প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করা, আদালতের মর্যাদাকে ক্ষুণ্ন করা।

তিনি বলেন, বিচারপতিরা আদেশের কোথাও সুস্পষ্টভাবে বলেননি, কোন জায়গাতে আমরা বা বিশেষ করে আমি এই তিনটি বিষয় ভঙ্গ করেছি। তাদের যুক্তি নাই বলেই তিন বিচারপতি উষ্মা প্রকাশ করেছেন। এ মামলার শুরু থেকে আজকেও তাই। পৃথিবীর মধ্যে এটা অভদ্রজনিত ব্যবহার। যখন রায় পড়েন তখন সকল অভিযুক্ত ব্যক্তিদের দাঁড় করিয়ে রাখা অর্থহীন। এটা মধ্যযুগের ঘটনা। কিন্তু তারা দাঁড় করিয়ে রেখেছেন। তারপর বলেছেন বয়স, কিন্তু বয়সের সম্মান আমি তাদের কাছে কামনা করিনি।

যুক্তি না থাকলে হঠাৎ একজনকে খুঁজে বের করা হয়। আমি বলেছি, আপনাদের এই আদেশ স্থগিত রাখেন যেন উচ্চ আদালতে আপিল করতে পারি। তারা সেই সুযোগ না দিয়ে দ্রুত আদালত ত্যাগ করেছেন। এখন বিষয়টা আপনারা বিবেচনা করেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি কোনো জরিমানা দেবো না। আপিল করবো। আপিলে যা হয় তা পরে দেখা যাবে। আমি কোথাও ভুল করিনি।

সমালোচনা আমার গণতান্ত্রিক অধিকার। গণতান্ত্রিক দেশে কথা বলতে পারবো না? এই দেশের জন্য আমি মুক্তিযুদ্ধ করেছি। সেই দেশের ব্যাপারে কোনো বক্তব্যও রাখতে পারবো না তাতো হয় না।

জাফরুল্লাহ বলেন, এখানে আমি পরিস্কার বলেছি, আপনাদের রায়ের কপি দেন আমাকে। বিচারকরা ভুলটা কোথায় কোথায় করেছেন? আমি সেই প্রশ্নটাই তাদের করার জন্যই দাঁড়ালাম। কিন্তু প্রথমেই বক্তব্যটা শুনে দ্রুত কক্ষ ত্যাগ করলেন তারা। এরপর যদি দেখা যায়, উচ্চ আদালতে আমার বিরুদ্ধে দেওয়া রায়টা যদি ভুল হয় তাহলে তারা কি আমার এই জীবনের সময়টা ফিরিয়ে দিতে পারবেন? তাহলে কি তিনজন বিচারপতি আমার এই জায়গায় এসে বসে থাকবেন এক ঘণ্টা?

তার দাবি, রায়টা অত্যন্ত অবিবেচনাপ্রসূত। সম্পূর্ণ রায়টাই তারা পড়েছেন উষ্মা ও রাগ নিয়ে। ডেভিড বার্গম্যানের যে রায়ে ১০৫টি প্যারাগ্রাফ আছে তার মধ্যে ৩১টি প্যারাগ্রাফে ডেভিড বার্গম্যানকে ছোট করা হয়েছে। সেটি মুক্তিযুদ্ধের মৃত্যু সংখ্যা নিয়ে, অথচ তা নিয়ে কোনো নির্দেশনা নাই। তারপরও মনে করি, এই জাতীয় কথার প্রয়োজন আছে। আমরা বিবৃতিদাতারা বোঝাতে চেয়েছি যে গণতন্ত্রের স্বার্থেই আলাপ-আলোচনার প্রয়োজন আছে।

রায় না মানা আদালত অবমাননার সামিল কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাহলে আরেকটা করুক আমার বিরুদ্ধে। তারাই তো দেরি করেছেন লিখিত আনতে। লিখিত আনার সঙ্গে সঙ্গেই আমি আসামির কাঠগড়ায় উঠেছি।

একই বিবৃতি দেওয়ায় মোট ২৩ বিশিষ্ট নাগরিকের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগে রুল জারি করেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বাদে বাকি ২২ জন প্রথমবারের মতো এ ধরনের অবমাননা করার কারণে তাদেরকে নি:শর্ত ক্ষমা করে দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। একইসঙ্গে তাদেরকে সতর্ক করে দিয়েছেন পরবর্তীতে তাদের কোনো মন্তব্য ও বিবৃতির কারণে ট্রাইব্যুনালের যেন মর্যাদা ক্ষুন্ন না হয়।

ক্ষমা পাওয়া ২২ জন হলেন- মাসুদ খান, সাংবাদিক ও লেখক আফসান চৌধুরী, অধিকারকর্মী হানা শামস আহমেদ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক আনু মোহাম্মাদ, সঙ্গীতশিল্পী আনুশেহ আনাদিল, সংস্কৃতিকর্মী লুবনা মারিয়াম, অধিকারকর্মী মুক্তাশ্রী চাকমা সাথী, অ্যাডভোকেট এ এ জিয়াউর রহমান, নারী অধিকারকর্মী শিরিন হক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষক ড. সি আর আবরার, নারী গ্রন্থ প্রবর্তনার নির্বাহী পরিচালক ফরিদা আক্তার, অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির গবেষক ড. বিনা ডি কস্টা, নৃ-বিজ্ঞান গবেষক রেহনুমা আহমেদ, আলোকচিত্রী ড. শহীদুল আলম, সংস্কৃতিকর্মী লিসা গাজী, ড. জরিনা নাহার কবির, আলাল ও দুলাল ব্লগের সম্পাদক তীব্রা আলী, লেখক শবনম নাদিয়া, লেখক মাহমুদ রহমান, নৃ-বিজ্ঞানী দেলোয়ার হোসেন, আলী আহম্মেদ জিয়াউদ্দিন  ও চলচ্চিত্র নির্মাতা নাসরিন সিরাজ এ্যানি।

আদালতের পর্যবেক্ষণে বলা হয়, বিবৃতিদাতাদের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব ছিল। আদালতে তারা ভিন্ন ভিন্ন বক্তব্য রেখেছিলেন।

আদেশের পরে ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ সাংবাদিকদের বলেন, বিবৃতিদাতাদের মধ্যে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে দ- দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। এর কারণ হলো, এর আগেও আদালত অবমাননার জন্য ট্রাইব্যুনাল-১  থেকে তাকে সতর্ক করা হয়েছিল। যেন তিনি ট্রাইব্যুনাল সম্পর্কে পরবর্তীতে এমন কোনো মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকেন।

কিন্তু তিনি ক্রমাগতভাবে ট্রাইব্যুনালের আদেশের বিরুদ্ধে আবারো ভুল করলেন। সেজন্য তাকে ট্রাইব্যুনালের আসামির কাঠগড়ায় এক ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকা ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে এক মাসের কারাদ- দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল- বলেন তুরিন আফরোজ।

অন্যদিকে বিবৃতিদাতাদের মধ্যে অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ সাংবাদিকদের বলেন, আমরা যারা বিবৃতি দিয়েছিলাম, তাদের অনেকেই যুদ্ধাপরাধের বিচার চাই। আমরা চাই না কোনো বিবৃতি ও মন্তব্যের কারণে এই ট্রাইব্যুনালের মর্যাদা ক্ষুন্ন হোক।

তিনি বলেন, আমরা মনে করি, সম্মিলিতভাবে যুদ্ধাপরাধের বিচারটিকে আমাদের এগিয়ে নিতে হবে। পাশাপাশি মতপ্রকাশের স্বাধীনতা থাকতে হবে।

ওই বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছিলেন মোট ৫০ জন বিশিষ্ট নাগরিক। তাদের মধ্যে মানবাধিকার কর্মী ও নারীনেত্রী খুশি কবির পরে বিবৃতিটিতে তিনি স্বাক্ষর করেননি বা এর সঙ্গে তার সম্পর্ক নেই বলে জানানোয় তাকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়ে বাকি ৪৯ জনের বিরুদ্ধে শো’কজ নোটিশ জারি করা হয়।

৪৯ জনের মধ্যে আইনজীবীর মাধ্যমে নি:শর্ত ক্ষমা চাওয়ায় গত ১ এপ্রিল, ১৮ মার্চ, ৩ মার্চ ও ২৩ ফেব্র“য়ারি ২৬ জনকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়ে ক্ষমা করে দিয়েছিলেন ট্রাইব্যুনাল।

চার দফায় ক্ষমা পাওয়া ২৬ বিশিষ্ট নাগরিক হলেন- লেখক তাহমিমা আনাম, ড. সেঁউতি সবুর, মানবাধিকার আইনজীবী ড. ফস্টিনা পেরেইরা, প্রকাশক মহিউদ্দিন আহমেদ, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের পরিচালক মো. নুর খান লিটন, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজির শিক্ষক ড. ফিরদৌস আজিম, যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেইট ইউনিভার্সিটির রাজনীতি ও সরকার বিভাগের শিক্ষক  ড. আলী রিয়াজ, ড. পারভিন হাসান, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. সামিয়া হক, তসলিম সারাহ শাহাবুদ্দিন, রেজাউর রহমান, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী  ড. শাহদীন মালিক, সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সভাপতি এম হাফিজ উদ্দিন খান, সুজনের সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ, আমেনা মহসীন, পরিবেশ আন্দোলনকর্মী  সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক  ড. আসিফ নজরুল, বাংলাদেশ শিশু বিকাশ কেন্দ্রের ন্যাশনাল কো-অর্ডিনেটর ডা. নায়লা জামান খান, ড. শাহনাজ হুদা, মানবাধিকারকর্মী জাকির হোসেন, সংগীত শিল্পী অরুপ রাহী, লেখক শাহীন ‍আখতার, অধিকারকর্মী ইলিরা দেওয়ান এবং দিনা এম সিদ্দিকী।

বাকি ২৩ জনকে আদালত অবমাননার অভিযোগে কেন তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে গত ১ এপ্রিল একটি রুল জারি করেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। গত ২৯ এপ্রিল ওই ২৩ জন মধ্যে ২০ জন সশরীরে হাজির হয়ে, ডাকযোগে এবং আইনজীবীর মাধ্যমে রুলের লিখিত জবাব দেন। তবে ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, শিরিন হক ও ড. শহীদুল আলম- এ তিনজন জবাব দাখিল করে নিজেরাই শুনানি করবেন বলে জানান।

গত ৬, ১১ ও ১৪ মে ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, শিরিন হক ও ড. শহীদুল আলম- এ তিনজন নিজেরাই এবং অন্যদের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার আসাদুজ্জামান, ব্যারিস্টার আখতার ইমাম ও রেহনুমা আনাম শুনানি করেন। এছাড়া ট্রাইব্যুনালের প্রশ্নের জবাবে শুনানি করেন অধ্যাপক আনু মোহাম্মাদ ও হানা শামস আহমেদ।

আদালত অবমাননার দায়ে ব্রিটিশ সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যানকে ট্রাইব্যুনাল-২ এর দেওয়া জরিমানা ও এজলাসকক্ষে দাঁড়িয়ে থাকার সাজার রায়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছিলেন ওই ৫০ বিশিষ্ট নাগরিক। তাদের মধ্যে খুশি কবিরকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়ে বাকি ৪৯ জনের বিরুদ্ধে কেন আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা হবে না- সে মর্মে গত ১৪ জানুয়ারি ব্যাখ্যা চেয়েছিলেন ট্রাইব্যুনাল। ২৭ জানুয়ারির মধ্যে তাদেরকে ট্রাইব্যুনালে হাজির হয়ে বা আইনজীবীদের মাধ্যমে বিবৃতি ও আচরণের ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছিল।

ক্ষমা পাওয়া প্রথম ২৬ জন গত ২৭ জানুয়ারি, ২৩ ফেব্র“য়ারি ও ১৮ মার্চ ও ১ এপ্রিল নি:শর্ত ক্ষমা চান। বাকি ২৩ জন বিভিন্ন ধার্য দিনে ব্যাখ্যা প্রদান করে শুনানি করবেন বলে জানান।

অন্যদিকে সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যানের সাজার রায়ের বিষয়ে মন্তব্য প্রতিবেদন প্রকাশ করায় গত ১১ ফেব্র“য়ারি যুক্তরাষ্ট্রের সাময়িকী নিউইয়র্ক টাইমসকে শো’কজ করেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। ২০ ফেব্র“য়ারির মধ্যে নিউইয়র্ক টাইমস কর্তৃপক্ষকে এ ব্যাপারে ব্যাখ্যা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হলেও পরে দিন পিছিয়ে দেওয়া হয়।

ট্রাইব্যুনালে নিষ্পত্তি হওয়া মামলার বিষয়ে ব্যক্তিগত ব্লগে আপত্তিকর মন্তব্যের মাধ্যমে আদালত অবমাননার দায়ে ব্রিটিশ নাগরিক সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যানকে গত বছরের ২ ডিসেম্বর ৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে ৭ দিনের কারাদ- দেন ট্রাইব্যুনাল-২। তাকে ওইদিন ট্রাইব্যুনালের কার্যক্রম চলা পর্যন্ত এজলাসকক্ষে বসে থাকতেও হয়। রায়ে ডেভিড বার্গম্যান কিভাবে বাংলাদেশে সাংবাদিকতা করছেন, তা খতিয়ে দেখতে সরকারকে নির্দেশ দেন ট্রাইব্যুনাল।

পরে জরিমানা পরিশোধ করা ব্রিটিশ সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যান বর্তমানে ইংরেজি দৈনিক দ্য নিউএজের বিশেষ প্রতিনিধি। তিনি সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেনের জামাতা।

এরপর গত বছরের ২০ ডিসেম্বর দৈনিক প্রথম আলোয় ‘বার্গম্যানের সাজায় ৫০ নাগরিকের উদ্বেগ’ একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়, যেখানে বলা হয়েছিল, এ রায়ের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে দেশের ৫০ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি একটি বিবৃতি দিয়েছেন।

এ প্রতিবেদন নজরে এলে গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর দৈনিক প্রথম আলোকে রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে ওই বিবৃতির মূল কপি ট্রাইব্যুনালে জমা দিতে আদেশ দেন ট্রাইব্যুনাল-২।

১৪ জানুয়ারি বিবৃতি দানকারী ৫০ বিশিষ্টজনের নাম-পরিচয় ও তাদের বর্তমান অবস্থানস্থল সম্পর্কে লিখিতভাবে জানান ড. শাহদীন মালিক। এর আগের দিন ১৩ জানুয়ারি রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের ৫০ বিশিষ্টজনের স্বাক্ষরিত বিবৃতির মূল কপি ট্রাইব্যুনালে জমা দেয় প্রথম আলো। এছাড়া বিবৃতিটি প্রথম আলোর মেইলে ই-মেইল করে পাঠানো হয়েছিল লেখক ও সংগঠক হানা শামস আহমেদ এর মেইল থেকে। প্রথম আলো হানা শামস আহমেদের সম্পর্কেও জানায় ট্রাইব্যুনালকে।

অন্যদিকে বার্গম্যানের আদালত অবমাননার রায়ের পরে গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর ‘গুুঁষরহম ঝঢ়ববপয রহ ইধহমষধফবংয’ শিরোনামে নিউইয়র্ক টাইমসে একটি সম্পাদকীয় প্রকাশিত হয়। ২৮ ডিসেম্বর প্রথম আলোকে আদেশ দানের পাশাপাশি এ সম্পাদকীয় নিয়ে নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতি উষ্মা প্রকাশ করেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। ওই সম্পাদকীয়তে বার্গম্যানের শাস্তি প্রত্যাহার করে নেওয়ার দাবি জানানোয় বিস্ময় প্রকাশও করেন ট্রাইব্যুনাল।

ট্রাইব্যুনাল ওইদিন তার আদেশে বলেন, দৈনিক প্রথম আলোয় ‘বার্গম্যানের সাজায় ৫০ নাগরিকের উদ্বেগ’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদ এবং ‘গুুঁষরহম ঝঢ়ববপয রহ ইধহমষধফবংয’ শিরোনামে নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত সম্পাদকীয় ভুল ধারণার ওপর ভিত্তি করে লেখা হয়েছে। এ ধরনের সংবাদ এবং সম্পাদকীয় প্রকাশ আদালতের মর্যাদাকে ক্ষুন্ন করে।

নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত ওই সম্পাদকীয় নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করে ট্রাইব্যুনাল তার আদেশে বলেন, নিউইয়র্ক টাইমসের সম্পাদকীয় স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থাকে অবমাননা করেছে।

আদালত অবমাননার দায়ে ডেভিড বার্গম্যানের শাস্তি প্রত্যাহার করে নেওয়ার দাবি জানিয়ে প্রকাশিত সম্পাদকীয় নিয়ে ট্রাইব্যুনাল আরো বলেন, আমরা বুঝতে পারছি না, কিভাবে একটি বিদেশি দৈনিক একটি স্বাধীন দেশের আদালতের আদেশ প্রত্যাহার করতে বলে! সূত্র: বাংলানিউজ

এ জাতীয় আরও খবর