মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পরচর্চাকারীদের জন্য আল্লাহর সতর্কবাণী

news-image

ইসলামিক ডেস্কপরচর্চা, পরনিন্দা ও গিবতকারীদের জন্য আল্লাহ তায়ালা কোরআনে কঠিন সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছেন। পরচর্চাকারীদের তুলনা করেছেন মৃত ব্যক্তির মাংস ভক্ষণকারীদের সঙ্গে। আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, ‘তোমরা একে অপরের আড়ালে নিন্দা (গিবত) করো না। তোমাদের মধ্যে কি কেউ তার মৃত ভাইয়ের গোশত ভক্ষণ করতে চায়? অথচ তোমরা এটাকে অপছন্দই করবে। তোমরা আল্লাহকে ভয় কর। আল্লাহ তাওবা গ্রহণকারী, পরম দয়ালু।’ (সুরা হুজুরাত, আয়াত-১২)।
হাদিসেও পরনিন্দা থেকে বিরত থাকার জন্য সতর্ক করা হয়েছে।  আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুল (সা)-কে জিজ্ঞেস করা হলো, কোন জিনিস মানুষকে সবচেয়ে বেশি জান্নাতে প্রবেশ করাবে? তিনি বলেন, আল্লাহভীতি ও উত্তম চরিত্র। আর জিজ্ঞেস করা হলো, মানুষকে কোন জিনিস সবচেয়ে বেশি জাহান্নামে প্রবেশ করাবে? তিনি বলেন, মুখ বা জিহ্বা ও অপরটি লজ্জাস্থান (তিরমিযী, মিশকাত)।
অপর এক হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি আমার কাছে এই অঙ্গীকার করবে যে, সে তার দুই চোয়ালের মধ্যস্থিত বস্তুর এবং তার দুই পায়ের মধ্যস্থিত বস্তুর জিম্মাদার হবে, তবে আমি তার জন্য জান্নাতের জিম্মাদার হব (বুখারী, মিশকাত)।
গিবত, পরনিন্দা বা পরচর্চা কাকে বলে এ নিয়ে হাদিসেও স্পষ্ট করে বলে দেওয়া আছে। আবু হুরাইরা (রা.)  থেকে বর্ণিত, একদা আল্লাহর রাসুল (সা.) বললেন, ‘তোমরা কি জানো গিবত কাকে বলে? সাহাবিরা বললেন, ‘আল্লাহর রাসুলই অধিক জানেন।’  তিনি বললেন, ‘তোমার ভাই যা অপছন্দ করে, তা তার পশ্চাতে আলোচনা করা।’ বলা হলোÑ ‘আমি যা বলি তা যদি আমার ভাইয়ের মধ্যে থাকে তবে আপনার রায় কী? (তাহলেও কি গিবত হবে?)’ তিনি বললেন, ‘তুমি যা (সমালোচনা করে) বললে তা যদি তার মধ্যে থাকে, তাহলে তার গিবত করলে। আর তুমি যা (সমালোচনা করে) বললে তা যদি তার মধ্যে না থাকে, তাহলে তাকে অপবাদ দিলে’ (মুসলিম, রিয়াযুস সালিহীন)।
পরনিন্দাকারীর শাস্তির কথা হাদিসে বর্ণনা করা হয়েছে। হযরত আনাস (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যখন আমাকে মিরাজে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, আমি এমন এক দল লোকের সামনে দিয়ে অতিক্রম করলাম, তারা নখ দিয়ে নিজেদের মুখমণ্ডল ও বক্ষদেশ খামচাচ্ছিল। আমি বললাম, হে জিবরাঈল, এরা কারা? তিনি বলেন, এরা মানুষের গোশত খেত এবং তাদের মান-ইজ্জত নিয়ে ছিনিমিনি  খেলতো।

এ জাতীয় আরও খবর