মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আমাদের দেশে হবে সেই পেসার কবে…

news-image

ক্রীড়া ডেস্কসকালে বাংলাদেশ দলের একাদশ ঘোষণার পরই একটা প্রশ্ন ফতুল্লার বাতাসে—মাত্র একজন পেসার! প্রতিপক্ষ ভারতও যেখানে ফতুল্লার মন্থর ও ব্যাটিং-সহায়ক উইকেটে তিনজন পেসার নিয়ে খেলছে, সেখানে বাংলাদেশ দলে কেন মাত্র একজন পেসার? বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিকও তো আগের দিন আভাস দিয়েছিলেন, তিন পেসার খেলানো বাংলাদেশের জন্য বিলাসিতা। খেলানো হতে পারে দুই পেসার।

টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশ অনেক বিস্ময় উপহার দিয়েছে। সাম্প্রতিক সংযোজন সম্ভব মাত্র একজন স্পেশালিস্ট পেসার নিয়ে পাঁচ দিনের ক্রিকেট খেলতে নামা। অথচ স্কোয়াডে রুবেল হোসেন ছিলেন। একাদশে রাখাই যদি না হবে, স্কোয়াডেই বা রাখা হলো কেন? ফিটনেস নিয়ে কোনো সমস্যা? নাকি অতীত রেকর্ড, যে রেকর্ড বলছে (টেস্টে রুবেলের গড় প্রায় ৭৬, স্ট্রাইকরেট ১১৬.৬) রুবেল টেস্টে কার্যকর নন। কিন্তু ওয়ানডেতে বেশ ভালো ফর্মে থাকা রুবেলকে আরেকটা সুযোগ তো দেওয়াই যেত।

মাত্র ২ টেস্ট খেলা শহীদ এখন বাংলাদেশের উদ্বোধনী বোলার। ওপাশে তাঁকে সঙ্গ দিতে বল হাতে তুলে নিলেন সৌম্য সরকার​!

স্কোয়াডে থাকা পেসার আবুল হাসানকে খেলানোর চেয়ে আরেকজন বাড়তি স্পিনার নিয়ে খেলাটাই বেশি যৌক্তিক মনে করেছে টিম ম্যানেজমেন্ট। স্পিনের বিপক্ষে বরাবরই স্বচ্ছন্দ ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের থামাতে বাংলাদেশ ব্যবহার করছে চার স্পিনার! সবাইকে যে বিশেষজ্ঞ স্পিনার, তাও নয়। অবশ্য বাংলাদেশ করবেই বা কী? স্পিনই বাংলাদেশের প্রধান বোলিং ভরসা। টেস্টের দীর্ঘ মেয়াদে ভরসা জাগানোর​ মতো পেসার কোথায়?

খুব স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্নটা ঘুরে ফিরে আসছে—বাংলাদেশ দলে পেসার সংকট এত তীব্র কেন? পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই টেস্ট মিলিয়ে পাকিস্তানের যে ২৪ উইকেট নিয়েছিলেন বাংলাদেশের বোলাররা, তার মধ্যে পেসাররা নিয়েছিলেন মাত্র ৬টি! 

গত পাঁচ বছরে টেস্টে বাংলাদেশ দলের সবচেয়ে সফল চার পেসারই দলে নেই। উইকেট প্রাপ্তিতে সবচেয়ে সফল পেসার রবিউল ইসলাম। ২০১০ থেকে ২০১৪—এ সময়ে রবিউল ৯ টেস্টে নিয়েছেন ২৫ উইকেট। এরপর রুবেল; ১৬ টেস্টে ২১ উইকেট, শাহাদত হোসেন ১০ টেস্টে ১২ উইকেট, আল আমিন ৬ টেস্টে ৬ উইকেট। রুবেলের ব্যাপারটা বলাই হলো, শাহাদত নেই চোটের কারণে। রবিউল গত বিসিএলে এক উইকেট নিয়ে নিজেও নিজের দাবি জোরালো করতে পারেননি। আল আমিন তো বিশ্বকাপ থেকেই ‘অজানা’ কারণে দলে ব্রাত্য। তাসকিনকে এখনো টেস্টের জন্য প্রস্তুত বলে ভাবছে না টিম ম্যানেজমেন্ট। 

পাকিস্তান টেস্ট সিরিজ শেষের সংবাদ সম্মেলনে ব্যর্থতার পেছনে মুশফিকুর রহিম আলাদাভাবে দায়ী করেছিলেন পেসারদের। তিনি প্রশ্ন তুলেছিলেন, পেসারদের নিষ্ঠা আর অনুশীলনে পরিশ্রম করার মানসিকতা নিয়েও। নিজেদের ফিটনেস ধরে রাখার ক্ষেত্রে পেসাররা কতটা সচেতন, তা নিয়েও আছে প্রশ্ন। তবে এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড় প্রশ্নটা এখন, তীব্র পেসার সংকট কাটাতে বিসিবিই কতটা উদ্যোগী? 

একটা সময় ফাস্ট বোলার তুলে নিয়ে আসতে ‘পেসার হান্ট’ নামের কর্মসূচি ছিল। যেখান থেকে উঠেছিল রুবেল, রবিউল, শফিউলদের মতো পেসাররা। কর্মসূচিটা চলেছিল দু্ই দফা—২০০৫ ও ২০০৭ সালে। এরপর গত আট বছর বন্ধ। প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে পেসার তুলে নিয়ে আসার এ কর্মসূচির অন্যতম কারিগর সরওয়ার ইমরান।

সকালে যখন তাঁর সঙ্গে ফোনে কথা হলো। তিনি তখন হাইপারফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটের প্রস্তুতির ম্যাচে। পেসার হান্ট কর্মসূচি বন্ধ হওয়া নিয়ে তাঁর রাগ আছে। তবে সেই রাগের কিছুটা বর্ষালেন সাংবাদিকদের ওপরও, ‘যখন বন্ধ হয়ে গেল, তখন এ নিয়ে লিখলেন না কেন? ২০০৭-এর পর আট বছর পর অতিবাহিত হয়েছে। এত দিনে কারও ঘুম ভাঙল না?’ খানিকটা থেমে বললেন, ‘২০০৫ ও ২০০০৭ এর পর নিজের তাগিদে ২০০৯-এ আরেকটা কর্মসূচি করেছিলাম। তবে সেটাকে পরিপূর্ণ পেসার হান্ট বলা যাবে না।’ মানসম্মত পেসার উঠে না আসার পেছনে কর্মসূচিটি নিয়মিত না হওয়াটাও একটা কারণ বলে মনে করেন তিনি। 

টেস্টে জিততে প্রতিপক্ষের ২০ উইকেট নিতেই হবে। উপমহাদেশের স্পিন সহায়ক কন্ডিশনেও কমপক্ষে দুজন বোলারকে দরকার। নতুন বল স্পিনারদের হাতে তুলে দেওয়া মানে তাদের ওপর চাপ তৈরি করে আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলাতে ভূমিকা রাখা। ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকার মতো কন্ডিশনে তিন থেকে চারজন পেসার থাকা উচিত দলে। সেখানে বাংলাদেশ একজন পেসারই খুঁজে পাচ্ছে না। 

বিশ্ব ক্রিকেটে একটা সময় বাঁ হাতি স্পিনার ছিল বিরল প্রজাতির। বিস্ময়করভাবে বাংলাদেশ বাঁ হাতি স্পিনারদের উর্বর ক্ষেত্রে। বর্তমানে একাধিক বাঁ হাতি স্পিনার তো আছেই, উঠে আসছে আরও কয়েকজন। এমনিতেই দেশের উইকেট পেসারদের জন্য মোটেও উৎ​সাহব্যঞ্জক নয়। এই দেশে বোলার হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করতে চাইলে স্পিনই তুলনামূলক নিরাপদ। বয়সভিত্তিক ক্রিকেট শুরুর সময় একজন উঠতি ক্রিকেটার পেসের বদলে স্পিনের দিকেও বেশি করে ঝুঁকছে কিনা, সেটিও ভেবে দেখার। আমাদের শারীরিক গঠন, আবহাওয়াও এতে ভূমিকা রাখছে হয়তো।

ভবিষ্যৎ​ নিয়ে আশাবাদী হওয়ার মতো পাইপলাইনেও নেই পর্যাপ্ত ভালোমানের পেসার। এইচপি স্কোয়াড কিংবা অনূর্ধ্ব ১৯ দল অন্তত নিকট ভবিষ্যৎ পেসার সংকট কাটাতে সে রকম কোনো ভূমিকা রাখতে পারবে না। ওয়েস্ট ইন্ডিজ আর দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ জেতা যুবদলে প্রধান ভূমিকা রেখে স্পিনাররাই। সেখানেও আছে একাধিক বাঁ হাতি স্পিনার! এ বছর শ্রীলঙ্কায় দুটি যুব টেস্টে শীর্ষ তিন বোলারের দুজনই বাংলাদেশি, কিন্তু সেই দুজনই স্পিনার। পেসারদের মধ্যে সফল কেবল মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। তাঁর সংগ্রহে ​ছিল মাত্র দুটি উইকেট। ডানহাতি পেসার সাইফ অবশ্য দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৭ ম্যাচে নিয়েছিলেন ১১ উইকেট।

এ ছাড়া গত বছর আমিরাতে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে বাঁহাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান নিয়েছিলেন ৯ উইকেট। পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে চমক দেখানো মোস্তাফিজ এইচপি স্কোয়াডে জায়গা করে নিয়েছেন, ঠাঁই হয়নি সাইফের।

উপমহাদেশ বাকি তিনটি দেশের মধ্যে পাকিস্তান বরাবরই দুর্দান্ত সব পেসারের জন্ম দিয়ে এসেছে। শ্রীলঙ্কাতেও পেসার​ সংকট অন্তত হয়নি। হ্যাঁ, ভারত ভুগেছে। কিন্তু এটি নিয়ে ভারত দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা করেছে বলেই উমেশ যাদব-মোহাম্মদ সামির মতো পেসার উঠে এসেছে। এমনকি এমআরএফ পেস ফাউন্ডেশনের বর্তমান পরিচালক হিসেবে বিসিসিআই নিয়োগ দিয়েছে গ্লেন ম্যাকগ্রাকে। 

কুসুমকুমারী দেবী থাকলে হয়তো আক্ষেপ করে লিখতেন, ‘আমাদের দেশে হবে সেই পেসার কবে…।’

এ জাতীয় আরও খবর