সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপির ৩১ নেতাকে অব্যাহতি

news-image

ডেস্ক রির্পোট বাসে পেট্রলবোমা মেরে এক পুলিশ হত্যামামলায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এমকে আনোয়ার, যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী ও আব্দুল আউয়াল মিন্টুসহ ৩১ জনকে অব্যাহতি চেয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। একই মামলায় গতকাল সোমবার স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেলসহ ৭ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে। চার্জশিটে স্বাক্ষর করে আগামী ২২ জুন আদালতে তা উত্থাপন করার নির্দেশ দিয়েছেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আমিনুল ইসলাম। 

প্রসঙ্গত, রাজধানীর মৎস্যভবন এলাকার ওই ঘটনায় অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় বিএনপির এই ৩১ নেতাকে অব্যাহতি দেয়ার আবেদন করে পুলিশ। ক্রসফায়ারে নিহত রাজধানীর খিলগাঁও থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নুরুজ্জামান জনিকেও অব্যাহতি দেয়ার আবেদন করা হয়েছে চার্জশিটে। চার্জশিটে সোহেল ছাড়াও যাদের অভিযুক্ত করা হয়েছে তারা হলেন- আনোয়ার হোসেন টিপু, মোহাম্মাদ হোসেন, আব্দুস সাত্তার, মো. রফিক আকন্দ, আলফাজ ওরফে আব্বাস ও মো. শাহ আলম।

অব্যাহতি পাওয়া বিএনপির অন্যান্য নেতার মধ্যে রয়েছেন- আমান উল্লাহ আমান, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, আজিজুল বারী হেলাল, রুহুল কবির তালুকদার দুলু, বরকতউল্লাহ বুলু, মিজানুর রহমান মিনু, আব্দুস সালাম ও মীর সরাফত আলী সপু।

গতকাল গোয়েন্দা পুলিশের এসআই দীপক কুমার দাস দণ্ডবিধি এবং বিস্ফোরক আইনে ঢাকার সিএমএম আদালতে পৃথক দুটি চার্জশিট দাখিল করেন। ঢাকা মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট আমিনুল ইসলাম শনাক্ত করে আগামী ২২ জুন তদন্ত কর্মকর্তার উপস্থিতিতে চার্জশিট দুটি গ্রহণের শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

উল্লেখ্য, গত ১৭ জানুয়ারি বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধের ১২তম রাত পৌনে ৯টার দিকে রাজধানীর মৎস্য ভবন এলাকায় ৩০-৪০ জন পুলিশ সদস্যবাহী একটি বাসে দুর্বৃত্তরা পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করে। ওই ঘটনায় কনস্টেবল শামীম, এএসআই আবুল কালাম আজাদ, কনস্টেবল শিপন, মোরশেদ, বদিয়ারসহ পুলিশের ১৩ সদস্য দগ্ধ হন। পরে কনস্টেবল শামীম ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।

ওই ঘটনার পর মোহাম্মাদ হোসেন, আব্দুস সাত্তার, মো. রফিক আকন্দ ও আলফাজ ওরফে আব্বাস আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। স্বীকারোক্তিতে তারা হাবিবুন-নবী খান সোহলের নির্দেশে এই পেট্রলবোমা হামলা চালান বলে উল্লেখ করেন।

এদিকে পুলিশ হত্যামামলা থেকে বিএনপি নেতাদের অব্যাহতি দেওয়ার ঘটনায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে মির্জা আব্বাসের ঘনিষ্ঠজন বলেন, ওনার নামে অর্ধশতাধিক মামলা রয়েছে। এসব মামলার মধ্যে এটা একটি মামলা। তাই এই মামলা থেকে পুলিশ অব্যাহতি দিয়েছে এ ব্যাপারে মির্জা আব্বাসের কোনো প্রতিক্রিয়া নেই। তবে মির্জা আব্বাস তার এই ঘনিষ্ঠজনের মাধ্যমে বলেছেন, এই সরকারের সময়ে তার বিরুদ্ধে যত মামলা রয়েছে তা যদি সঠিক বিচার ও তদন্ত হয় তাহলে সব মামলা থেকে তিনি অব্যাহতি পাবেন। 

দলটির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল আউয়াল মিন্টুকে না পেয়ে তার ছেলে তাবিথ আউয়ালের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে, তিনি বলেন, আমার বাবার বিরুদ্ধে ১৬টি মামলা রয়েছে। এসব মামলার মধ্যে একটি মামলায় তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। তাই এ ব্যাপারে আমরা কোনো মন্তব্য করতে চাই না। তবে এটা বলতে পারি যদি সব মামলা বিচার বিশ্লেষণ সঠিকভাবে হয় তাহলে তিনি সব মামলায় মুক্তি পাবেন।

স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু বলেন, এ ব্যাপারে মন্তব্য করার কী আছে। মামলা তো এখনো রয়েছে। তবে আমাদের বিরুদ্ধে যেসব মামলা দেওয়া হয়েছে এসব মিথ্যা মামলা। রাজনৈতিকভাবে আমাদের হয়রানি করার জন্য এসব মামলা দেওয়া হয়েছে।