শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তুরস্কে কুর্দিদের উৎসব

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্কতুরস্কে পার্লামেন্ট নির্বাচনের ফলকে কেন্দ্র করে উৎসবে মেতেছে কুর্দিরা। তারা আতশবাজি ও ফাঁকা গুলি ছুড়ে রাতভর উৎসব করেছে।

আজ সোমবার বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, গতকাল রোববারের প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ পার্লামেন্ট নির্বাচনে দেশটির কুর্দিপন্থী পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টির (এইচডিপি) বিস্ময়কর উত্থান ঘটেছে। এবারই তারা প্রথম দলীয়ভাবে পার্লামেন্টে যাচ্ছে। দলটির এই সাফল্য দেশটির রাজনীতিতে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

প্রায় ৯৯ শতাংশ ভোট গোনা হয়েছে। এতে এইচডিপি ১৩ শতাংশ ভোট পেয়েছে। পার্লামেন্টে আসন পেতে ১০ শতাংশ ভোট পেতে হয়। দলটি সহজেই ওই সীমা ছাড়িয়েছে। প্রাপ্ত ভোটের অনুপাত হিসেবে ৫৫০ আসনের পার্লামেন্টে এইচডিপি ৭৯টি আসন পেতে পারে। এর মধ্য দিয়ে এই প্রথম পার্লামেন্টে যাচ্ছে এইচডিপি।

নির্বাচনে দেশটির ইসলামপন্থী ক্ষমতাসীন দল জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি (একেপি) সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারিয়েছে। ক্ষমতার ১৩ বছরের মধ্যে প্রথম এমন ঘটনা ঘটেছে। এতে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের ক্ষমতা বাড়ানোর উচ্চাকাঙ্ক্ষা হোঁচট খেয়েছে।

ক্ষমতাসীন একেপি ৪১ শতাংশ ভোট পেয়েছে। গতবারের নির্বাচনের তুলনায় তা প্রায় ১০ শতাংশ কম। প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, একেপি ২৫৮ আসন, রিপাবলিকান পিপলস পার্টি (সিএইচপি) ১৩২ আসন, ন্যাশনালিস্ট মুভমেন্ট পার্টি (এমএইচপি) ৮১ আসন পেতে পারে।

দেশটিতে বিদ্যমান ব্যবস্থায় এরদোয়ানের দলকে এখন জোট গঠন করতে হবে। ২০০২ সালে ক্ষমতায় আসার পর এবারই প্রথম দলটি এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছে। বিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, এমএইচপির সঙ্গে জোট করতে পারে একেপি।

নির্বাচনের ফলাফল আসতে থাকার প্রেক্ষাপটে তুরস্কের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের কুর্দি অধ্যুষিত দিয়ারবাকির শহরের রাজপথে নেমে আসে উৎসবমুখর জনতা। অনেকে গাড়ি নিয়ে বের হয়। তারা গাড়ির হর্ন দিয়ে ভেঁপু বাজিয়ে, নেচেগেয়ে, চিৎকার-চেঁচামেচি করে আনন্দ প্রকাশ করে। তারা বিজয়সূচক ‘ভি’ চিহ্ন দেখায়। কেউ কেউ আকাশে ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

এইচডিপির সমর্থকেরা স্লোগান দিতে দিতে বলেন, ‘আমরা এইচডিপি, আমরা পার্লামেন্টে যাচ্ছি।’

তুরস্কের মোট জনসংখ্যার ২০ শতাংশ কুর্দি। কুর্দিরা দেশটির সবচেয়ে বড় সংখ্যালঘু। এবারের নির্বাচনের মাধ্যমে পার্লামেন্টে কুর্দিদের সত্যিকারের প্রতিনিধিত্ব সৃষ্টি হতে যাচ্ছে।

উৎসবে অংশ নেওয়া ৪৭ বছর বয়সী হুসেইন দুরমাজ বলেন, ‘এটা উৎসবের রাত।’

তুরস্কের রাজনীতিতে এইচডিপির এই উত্থানকে কুর্দিদের ঐক্যের প্রতীক এবং গণতন্ত্রের পথে এগিয়ে যাওয়ার একটি পদক্ষেপ হিসেবে বর্ণনা করেছেন দলটির সমর্থক ইয়ালমান। তাঁর ভাষ্য, ‘একেপির একনায়কসুলভ কর্তৃত্বের বিরুদ্ধে এটা একটা সতর্কতা।’

তুরস্কের অর্থনীতির সার্বিক পরিস্থিতি সন্তোষজনক নয়। এরদোয়ানের শাসনের কর্তৃত্ববাদী প্রবণতা নিয়েও জনমনে উদ্বেগ আছে। তাই আগে থেকে ধারণা করা হচ্ছিল, এরদোয়ানের দল ২০১১ সালের নির্বাচনের তুলনায় এবার কম ভোট পাবে।

প্রধানমন্ত্রী পদে ১১ বছর দায়িত্ব পালনের পর ২০১৪ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন এরদোয়ান। এবারের নির্বাচনে দুই-তৃতীয়াংশ আসনে জয় নিয়ে একেপির সংখ্যাগরিষ্ঠতা আশা করছিলেন তিনি। একটি নতুন সংবিধান প্রণয়নের মাধ্যমে তুরস্কের সংসদীয় সরকারব্যবস্থা পাল্টে প্রেসিডেন্টের একচ্ছত্র শাসন চালু করার পরিকল্পনা করছিলেন এরদোয়ান। নির্বাচনের ফলে সেই পরিকল্পনা ভেস্তে যেতে বসেছে।

এ জাতীয় আরও খবর