শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পৃথক ঘটনায় দুই খুন ॥ আহত-১৬

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পৃথক ঘটনায়  ছেলো হাতে পিতাসহ দুই খুন হয়েছে।  এসময় সংঘর্ষে ১৬জন আহত হয়। রবিবার সকালে জেলার বিজয়নগর উপজেলার পাহাড়পুর ইউনিয়নের সেজামুড়া গ্রাম এবং গত শনিবার সন্ধ্যায় নবীনগর উপজেলার পশ্চিম ইউনিয়নের নবীপুর গ্রামে পৃথক এই খুনের ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন মোঃ সুরুজ মিয়া এবং আহাদ মিয়া- (২২)। পুলিশ লাশ দুটো উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে।
এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, রবিবার সকাল ৮টার দিকে বিজয়নগর উপজেলার সেজামুড়া গ্রামে বৃদ্ধ সুরুজ মিয়া ঘরে বসে নাস্তা খাওয়ার সময় তার ছেলে আপেল মাহমুদ (৪০) দা-দিয়ে এলোপাথারী কুপিয়ে তাকে হত্যা করে। এ সময় সুরুজ মিয়াকে রক্ষা করতে গিয়ে তার কন্যা সুরাইয়া বেগম-(২১) আহত হয়। 
এলাকাবাসী ঘাতক আপেল মাহমুদকে আটক করে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে আপেল মাহমুদকে গ্রেপ্তার এবং নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরন করে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই বাদি হয়ে বিজয়নগর থানায় মামলা দায়ের করে।
এ ব্যাপারে বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবদুর রব বলেন, খুনের ঘটনায় মামলা হয়েছে। আমরা আসামীকে গ্রেপ্তার করেছি। তিনি বলেন, গ্রেপ্তারকৃত আপেল মাহমুদকে প্রাথমিকভাবে মানুষিক ভারসাম্যহীন বলে মনে হচ্ছে তবে এটা চিকিৎসক ভালো ভাবে বলতে পারবেন।
অপরদিকে কেরাম বোড খেলাকে কেন্দ্র করে গত শনিবার সন্ধ্যায় নবীনগর উপজেলার পশ্চিম ইউনিয়নের নবীপুর গ্রামে দু’দলের সংঘর্ষে আহাদ মিয়া নামে এক যুবক নিহত হয়েছে। এ সময় উভয়পক্ষের ১৫জন আহত হয়।
নবীনগর থানার এস.আই পিয়ার হোসেন বলেন, কেরাম বোড খেলাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার দুপুরে নবীপুর গ্রামের মালুম মিয়ার সাথে একই গ্রামের সুমন মিয়ার বাকবিতন্ডা হয়। এর জের ধরে শনিবার সন্ধ্যায় উভয় যুবকের লোকজন দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষে আহাদ মিয়া টেটাবিদ্ধসহ উভয়পক্ষের ১৫ জন আহত হয়। আশংকাজনক অবস্থায় আহাদ মিয়াকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পথে সে মারা যায়। 
খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে ও নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে।
আহতদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুমিল্লা  মেডিকেল কলেজ হাসাপতালে ভর্তি ও  চিকিৎসা দেওয়া হয়।
এ ব্যাপারে নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রূপক কুমার সাহা বলেন, পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রনে আছে। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর