বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাঞ্ছারামপুরে লঞ্চ টার্মিনালের টাকা উত্তোলনকে কেন্দ্র করে যুবলীগের দু’গ্রপের সংঘর্ষ, আহত- ২৪

news-image

মেহেদী হাসান মিলন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া॥ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার মরিচাকান্দি বাজারে লঞ্চ টার্মিনালের এক যাত্রীর কাছ থেকে ইজারার তিন টাকা আদায় করাকে কেন্দ্র করে যুবলীগের দুই নেতার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ছয়জন গুলিবিদ্বসহ ২৪জন আহত  হয়েছে। গত শুক্রবার দুপুর ১২ টার দিকে স্থানীয় সোনারামপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি দোলারামপুর গ্রামের বাসিন্দা শাহীন ও উপজেলা যুবলীগের সহ-সম্পাদক মরিচাকান্দি গ্রামের বাসিন্দা, লঞ্চ টার্মিনালের ইজারাদার মাহফুজুর রহমান উজ্জলের সমর্থকদের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ২১ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্তনে আনেন । পুলিশের গুলিতে আহতরা হলেন-ইসলাম মিয়া (২৫), দুলাল মিয়া (৪২), বুট্টু মিয়া (৪৫), বাবুল মিয়া (৪৫), নবী হোসেন (১৮) ও সজীব আহমেদ (১৭)।সংঘষে আহতরা হলেন যুবলীগের উপজেলা কমিটির সহ-সম্পাদক মাহফুজুর রহমান উজ্জল (৪০),সোনারামপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সাহীন আহমেদ(৪০)  দরিয়াদৌলত ইউনিয়নের যুবলীগের সহ-সম্পাদক হেলাল হোসেন (২৭), শেখ সাদী(৩৫),সজিব (২২),হাবিবুর রহমান (৩৫),মরম ব্লী (৫৫).খলিল মিয়া(৪০), বাবুল (৩৫),মুতি মিয়া (৫০),সোহাগ(১৭),হবি মিয়া(২৫),শুক্কুর আলী(৩০)।।আহতদের বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও স্থানীয়ভাবে চিকিৱসা দেয়া হয়েছে। এসময় নদীর ঘাটে থাকা পাচটি স্পীডবোট ও বাজারের পাচ-ছয়টি দোকান ভাংচুর করা হয়। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মরিচাকান্দি বাজারে লঞ্চ টার্মিনালের এক যাত্রী লঞ্চ টার্মিনালে ইজারার তিন টাকা দিতে পাচ’শ টাকার নোট দেয়। এসময় ওই যাত্রীকে শাসায় টার্মিনালের ইজারাদারের লোক হৃদয় মিয়া ও আল আমিন । এ ঘটনায় দুলারামপুর গ্রামের শুক্কুর আলী ও শাহজালাল প্রতিবাদ করেন। এই নিয়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি ঘটনা ঘটে। পরে দুলারামপুর গ্রামে এই খবর ছড়িয়ে পড়লে সোনারামপুর ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি শাহীনের নেতৃত্বে তারলোকজন মরিচাকান্দি বাজারে এসে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা যুবলীগের সহ-সম্পাদক, টার্মিনালের ইজারাদার, মরিচাকান্দি গ্রামের মাহফুজুর রহমান উজ্জ্বল ও তার সমর্থকদের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। মরিচাকান্দি বাজারে দেশিয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে এলোপাথারি সংঘর্ষ হয়।

পরে সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনতে ২১ রাউন্ড রাবার-বুলেট ছুড়ে। এ সময় পুলিশের গুলিতে ছয়জন গুলিবিদ্ধ হয়। সোনারামপুর ইউনিয়নের যুবলীগের সভাপতি শাহীন আহমেদ জানান, এক যাত্রীর সাথে ইজারাদারের লোকজন খারাপ ব্যবহার করায় আমাদের গ্রামের ২ লোক প্রতিবাদ করলে  এদেরকে মারধর করে। খবর পেয়ে আমরা গেলে আমাদের উপরও হামলা করে উজ্জলের লোকজন। উপজেলা যুবলীগের সহ-সম্পাদক মরিচাকান্দি গ্রামের লঞ্চ টার্মিনালের ইজারাদার মাহফুজুর রহমান উজ্জল জানান, ইজারার ৩ টাকার জন্য ৫০০ টাকার নোট দিলে ভাংতি দিতে বলায় আমার লোকজনকে দুলারামপুর গ্রামের লোকজন মারধর করে। এঘটনার খবর পেয়ে আমি গেলে আমাকেও মারধর করে দুলারামপুর ও শান্তিপুরের লোকজন। বাঞ্ছারামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অংশু কুমার দেব জানান, বর্তমানে মরিচাকান্দি বাজারে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।