মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিক্ষায় বাড়ছে ৯% বরাদ্দ

news-image

টিপস ডেস্ক২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে ৩১ হাজার ৬১৮ কোটি টাকার বরাদ্দের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। এর আগের অর্থবছরে শিক্ষায় প্রস্তাবিত বাজেট ছিল ২৯ হাজার ২১ কোটি টাকা। সে হিসাবে এবার ৮ দশমিক ৯৫ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে চলমান বাজেট ভাষণে এ ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

উচ্চশিক্ষার প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘শিক্ষাক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির প্রয়োগ নিশ্চিত করতে ইতোমধ্যেই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট নির্মাণের কাজ চলছে। এগিয়ে চলছে ১২৮টি উপজেলায় রিসোর্স সেন্টার স্থাপনের কাজ। চলমান রয়েছে বরিশাল প্রকৌশল কলেজ স্থাপনের কাজ।’

তিনি বলেন, ‘পাঁচটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয় ও সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালগুলোর উচ্চশিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিত করতে ‘Accereditation Council’ গঠনের প্রক্রিয়া প্রায় চূড়ান্ত।’

কাগিগরি শিক্ষার উন্নয়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কারিগরি শিক্ষার ব্যাপক প্রসারের জন্য ৯২৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০০টি উপজেলায় একটি করে কারিগরি বিদ্যালয় স্থাপনের কাজ চলছে। প্রতিটি বিভাগীয় শহরে একটি করে গার্লস টেকনিক্যাল স্কুল, ২৩টি জেলায় পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, ৪টি বিভাগীয় শহরে ৪টি মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট এবং সব বিভাগে ১টি করে প্রকৌশল কলেজ স্থাপনের উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এছাড়াও ১৫ থেকে ৪৫ বছর বয়সী নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে মৌলিক স্বাক্ষরতা ও জীবনদক্ষতামূলক প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।’

প্রাথমিক শিক্ষার বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘২০১৮ সালের মধ্যে প্রাথমিক শিক্ষাকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত সম্প্রসারণের পরিকল্পনা চলছে। সেই সঙ্গে বিদ্যালয় নেই এমন গ্রামে ১ হাজার ৫০০টি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ১৯টি বিদ্যালয় নিমার্ণ শেষ হয়েছে। অবশিষ্টগুলো নির্মাণাধীন।’

মানসম্পন্ন শিক্ষার সম্প্রসারণের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘শিক্ষার মানোন্নয়নে ইংরেজি ও গণিত শিক্ষকদের বিশেষ প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চলমান থাকবে। প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট ফান্ডের ১ হাজার কোটি টাকা সিড মানির বিপরীতে অর্জিত ৭৫ কোটি টাকা মুনাফা থেকে স্নাতক ও সমপর্যায়ের মেয়েদের উপবৃত্তি কার্যক্রমও চলমান থাকবে।

এ জাতীয় আরও খবর