মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নরেন্দ্র মোদির সফরে গতি পেতে পারে আশুগঞ্জের কয়েকটি প্রকল্প

news-image

মেহেদী হাসান মিলন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া॥
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের উপর নির্ভর করছে আশুগঞ্জের দীর্ঘদিনের ঝুলিয়ে থাকা বেশ কয়েকটি প্রকল্প। আর এ সফরেই গতি পেতে পারে প্রকল্প গুলো। তাই আশুগঞ্জবাসী চেয়ে আছেন নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের দিকে। কারণে এ সফরেই আশুগঞ্জের অনেক প্রকল্পের অর্থায়ন ও বাস্তবায়নের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। প্রকল্প গুলো হলো আশুগঞ্জ আভ্যন্তরীন কন্টেইনার টার্মিনাল ও আশুগঞ্জ-আখাউড়া ৫০ কিলোমিটার চার লেন সড়ক প্রকল্প। আর এ প্রকল্প গুলোর অর্থায়ন পেলে আশুগঞ্জের উন্নয়নের গতি এগিয়ে যাবে আরো কয়েক ধাপ। তাই আশুগঞ্জবাসী ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফর খুবই গুরুত্বের সাথে পরোক্ষ করছেন। তবে একটি সূত্রে জানাগাছে, আশুগঞ্জ কন্টেইনার টার্মিনাল প্রকল্প ও বন্দরের উন্নয়নে অর্থায়নে ভারতের পাশাপাশি বিশ্বব্যাংকও অর্থায়ন করার সম্ভাবনা রয়েছে। এজন্য বিশ্ব ব্যাংকের একটি প্রতিনিধি দল সম্প্রতি আশুগঞ্জ নদী বন্দর পরিদর্শন করেন। বিশ্ব ব্যাংক প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে ছিলেন বিশ্বব্যাংকের বিনিয়োগ বিভাগের সিনিয়র স্পেসালিষ্ট দিয়েপ এনগোয়েন ভ্যান হাউতি। তবে তিনি এ বিষয়ে সাংবাদিকদের কোন প্রশ্নের উত্তর দেননি।
আশুগঞ্জ কন্টেইনার টার্মিনাল প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী মাইদুল ইসলাম জানা, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিষয়টি নিয়ে দু-দেশের উচ্চ পর্যায়ে আলোচনা হবে।
অভ্যন্তরীণ কন্টেইনার টার্মিনালঃ
মন্ত্রী, সচিব, দপ্তর প্রধান, হাই কমিশনারসহ জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক একাধিক বিশেষজ্ঞ ও প্রতিনিধি দল’র পরিদর্শনেই পেরিয়ে গেছে আশুগঞ্জ মাল্টিকমপ্লেক্স কন্টেইনার টার্মিনাল প্রকল্পের (আইসিটি) ৫ বছর। অবকাঠামো উন্নয়ন কাজ শুরু করাতো দুরের কথা,ভূমি অধিগ্রহনই হয়নি গত ৫ বছরেও। ফলে  ভূমি মালিকদের কোটি কোটি টাকা লোকসান গুনতে গুনতে পথে বসার উপক্রম হচ্ছে তাদের। সিদ্ধান্ত না হওয়ায় জমিতে কোন ধরনের স্থায়ী অবকাঠামো বা জমি বিক্রি পর্যন্ত করতে পারছেন না এবং যাদের চাতালকলসহ অন্যান্য ছোট ছোট শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে তারা নিজেরা কোন কাজ করতে পারছেন না। এমনকি কেউ অধিগ্রহনের ভয়ে ভাড়াও নিচ্ছে না। ফলে প্রস্তাবিত জমির ভূমির মালিক ও ক্ষুদ্র শিল্প মালিকরা আইনি গ্যাড়াকলে পড়ে এখন নিঃস্ব হতে চলেছেন। সর্বশেষ নভেম্বর মাসে শেষ সাপ্তাহে নৌ মন্ত্রী শাজাহান খান এমপি আশুগঞ্জ নৌ-বন্দরে পরিদর্শন করেছেন। তিনি প্রস্তাবিত অভ্যন্তরীণ কন্টেইনার  টার্মিনাল (আইসিটি) কাজ আগামী ৩মাসের মধ্যে শুরু হওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। কিন্তু অর্থের সংস্থান না হওয়ায় আটকে আছে প্রকল্পটির অগ্রগতি। আওয়ামী লীগ সরকার ২০০৮ সালে দ্বিতীয় বারের মত ক্ষমতা  গ্রহনের পর আশুগঞ্জ নদী-বন্দরকে পোর্ট অব কল ঘোষনা করে। পাশপাশি আর্ন্তদেশীয় নৌ-বাণিজ্য সম্প্রসারনে জন্যে আশুগঞ্জ নদী-বন্দরে আর্ন্তজাতিক মানের অভ্যন্তরীণ কন্টেইনার টার্মিনাল (আইসিটি) প্রকল্প স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়। আশুগঞ্জ আন্তর্জাতিক মানের অভ্যন্তরীণ কন্টেইনার টার্মিনাল (আইসিটি) প্রকল্প স্থাপনের জন্য ২০১০ এর জানুয়ারি মাসে একনেকের সভায় অনুমোদন করে ২শ ৪৫ কোটি টাকা। তাছাড়া ২০১০ এ তৎকালীন ভারতীয় অর্থমন্ত্রী প্রণব মুখার্জীর ঢাকা সফরে দুই দেশের মধ্যে সম্পাদিত এক বিলিয়ন ডলারের ঋণ সহায়তা চুক্তির আওতায় নির্ধারিত ১৪টি প্রকল্পের অন্যতম আশুগঞ্জ আঞ্চলিক ট্রান্সশিপমেন্ট কেন্দ্রের বরাদ্দ ছিল ৩৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। সম্ভাব্য প্রায় ১‘শ বিঘা ভুমি অধ্যুষিত এ প্রকল্পে ছিল তিনটি আন্তর্জাতিক মানের টার্মিনাল জেটি, কাস্টমস্ অফিস, বিআইডব্লিউটি’র অফিস, বন্দর কর্তৃপক্ষের অফিস, কন্টেইনার টার্মিনাল, ক্রেন ইয়ার্ড, ওয়্যার হাউজ, ইলেকট্রিক সাবস্টেশন, ট্রাক ইয়ার্ড, রেস্ট হাউজসহ বিভিন্ন স্থাপনা।
আশুগঞ্জ-আখাউড়া চার লেন প্রকল্পঃ
প্রায় ১৬শ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের যৌথ অর্থায়নে আগামী ৩বছরের মধ্যে শেষ হবে এই সড়কের নির্মাণ কাজ। ১৬০৮ কোটি টাকা ব্যয়ে এই কাজে ভারত সরকার সহায়তা করবে ১৫৭৩ কোটি টাকা ও বাংলাদেশ সরকার প্রদান করবে ৩৫ কোটি টাকা। এই সড়ক চার লেনে উন্নীত করা হলে এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক উন্নয়ন বেগমান হবে। কিন্তু এখনো পর্যন্ত অর্থের ছাড় দেওয়া হয়নি। তাই মোদির এ সফর উপলর্ক্ষে অর্থের ছাড়ারের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে বলে আশাকরেন এলাকাবাসী। ১৯৭২ সালের মুজিব-ইন্দিরা নৌ-প্রটোকল চুক্তির আওতায় বিশেষ মানবিক কারণে কোনো প্রকার শুল্ক ও ব্যাংক নিশ্চয়তা ছাড়াই আশুগঞ্জ নৌ-বন্দর ও আখাউড়া স্থলবন্দর ব্যবহার করছে ভারত সরকার। এর মধ্যে ভারত আশুগঞ্জ নৌ-বন্দর ব্যবহার করে ২০১২ সালে পালাটানার বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মালামাল ও ২০১৪ সালে ১০ হাজার মেট্রিকটন চাল দুই দফায় ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে পরিবহন করে। চলতি বছরে আরও ২৫ হাজার মেট্রিকটন চাল এই দুই বন্দর ব্যবহার করে ভারতে পরিবহন করার কথা রয়েছে। এছাড়া এ সড়কটি ব্যবহার করে বাংলাদেশের বিভিন্ন পন্য ভারতের ত্রিপুরাসহ ৭টি রাজ্যে রফতানী করে থাকে। কিন্তু সড়কটির বেহাল অবস্থার কারণে বাংলাদেশী পন্য নিয়ে ট্রাকে পরিবহন করতে অনেক কষ্টের সুম্মখীন হতে হয় ব্যবসায়ীক ও পরিবহন চালকদের। এসব পণ্য পরিবহন করার জন্য আশুগঞ্জ-আখাউড়া সড়কটি তেমন উপযোগী নয়। তাই এই সড়কটি চারলেনে উন্নীত করতে চায় ভারত ও বাংলাদেশ সরকার। আর আশুগঞ্জে বন্দরের ট্রাক মালিকদের পরিবহন খাতে বছরে দেড়শ কোটি টাকা আয় হলেও এ সড়কটি চালু হলে বছরে আয় হবে অন্তত ৩শ কোটি থেকে ৪শ কোটি টাকা। তাই অতিদ্রুত সড়কটির চালু দাবি জানিয়েছেন পরিবহন ব্যবসায়ীরা।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর