সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভুল চিকিৎসায় প্রসুতির মৃত্যুর অভিযোগ

news-image

মেহেদী হাসান মিলন, বিজয়নগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)॥
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় এক ওষদ ব্যবসায়ীর ভুল চিকিৎসায় প্রসুতির মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে স্থানীয় এলাকাবাসী। জানা যায়, দুই বছর পূর্বে সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের উরশিউড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল লতিফের মেয়ে মোসাম্মত তাহমিনা আক্তার (২২) এর বিয়ে হয় সদর থানা বিয়াল্লিশর গ্রামের মিজান মিয়া (২৬) এর সংগে। এক মাস পূর্বে প্রসবজনিত কারনে তাহমিনা আক্তার স্বামী বাড়ি থেকে বেড়াতে আসেন বাপের বাড়িতে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযাী গত ২৫ মে ছিল তার ডেলিভারীর দিন। নির্ধারিত দিন পেরিয়ে গেলে প্রসুতির পরিবার জেলার নবীনগর উপজেলার শিবপুর গ্রামের দাইমা (প্রসব কাজ যারা করেন) আনোয়ারা বেগম (৬৫) কে ডেকে আনা হয়। দাইমা আনোয়ারা বেগম জানান, ডাক্তার ডেকে আনতে হবে। আজকেই প্রসব করাতে হবে। না হলে রোগীর মৃত্যু হবে। হৃতদরিদ্র কৃষক পরিবারটি দাইমাকেই চিকিৎসকের ব্যবস্থা করতে বলেন। দাইমার পূর্ব পরিচিত রাধিকা বাজারের নাদিয়া ফার্মেসীর মালিক মোঃ নাজমুল হোসেন (২৫) কে মোবাইল ফোনে ডেকে পাঠান। ওই ফার্মেসীর মালিক নিজেকে ডাক্তার বলে পরিচয় দেয় এবং প্রসুতিকে ৩টি (ব্যাথা নাশক) ইনজেকশন ও একটি স্যালাইন পুশ করে। এর কিছুক্ষন পরে প্রসুতির ব্যার্থা সহ্য করতে না পেরে স্যালাইন খুলে ফেলে। দাইমা পুনরায় আরো ৩টি (ব্যাথা নাশক ) ইনজেকশন ও স্যালাইন পুশ করে। এর কিছুক্ষন পরেই একটি মেয়ে বাচ্চা প্রসব করে এবং প্রচুর রক্তক্ষরণ শুরু হয়। তাকে আশংকাজনক অবস্থায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষনা করে। অভিযুক্ত ওই ফার্মেসীর মালিক মোঃ নাজমূল হোসেন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন আমি ডাক্তার নই। আমি ওই প্রসুতির ব্লাড প্রেসার মেপেছি এবং একটি স্যালাইন পুশ করেছি। এদিকে এলাকাবাসী জানান, এলাকার প্রভাবশালীদের সাথে ওই ফামের্সীর মালিকের সখ্যতা রয়েছে। তাই তার বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে সাহস করে না। সে দীর্ঘ দিন ধরে ভুল চিকিৎসা করে আসছে। এছাড়া ওই দোকানদারের ড্রাস লাইসেন্স ও ট্রেড লাইসেন্স নেই। সে ১৫ বছর ধরে এলাকায় চিকিৎসা চালিয়ে আসছে।এরকম ঘটনা এলাকায় প্রায়ই হচ্ছে। এলাকায় বেশির ভাগ ফামের্সীর কোন ড্রাগ লাইসেন্স বা স্বাস্হ্য বিভাগের কোন কাগজ পএ নাই । তাদের কাছে্ এলাকার সাধারণ মানুষ জিম্মী ।এ থেকে পরি্ত্রানের জন্য এলাকাবাসী প্রশাসনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন ।

 

 

এ জাতীয় আরও খবর