সোমবার, ২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অসাধু কর্মকর্তার বেড়াজালে বন্দি ভূমি অফিস

এক শ্রেণির অসাধু কর্মকর্তার বেড়াজালে বন্দি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ইউনিয়ন পর্যায়ের ভূমি অফিসগুলো। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, বাড়তি টাকা ছাড়া জমির সাধারণ কাগজপত্র পাওয়া যেন সোনার হরিণ। আর প্রশাসন বলছে, কোনো অনিয়মের প্রমাণ পেলেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার ধরখার এবং বিজয়নগর উপজেলার হরষপুর ইউনিয়নের ভূমি অফিসগুলোতে বাড়তি টাকা ছাড়া কোনো ধরনের কাজ হচ্ছে না বলে অভিযোগ সেবা নিতে আসা গ্রাহকদের।

জমির মালিকদের অভিযোগ, ভূমি সংক্রান্ত মাঠপর্চা, খাজনা আদায়, জমা খারিজসহ যে কোনো দলিলের কপি পেতে হলে তহশিলদারকে দিতে হয় মোটা অঙ্কের টাকা। আর টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে ভোগান্তির শেষ থাকে না।

তবে এ বিষয়ে প্রথমে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে না চাইলেও, পরে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেন ধরখার ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি-কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, 'আমি কোনো টাকা নেয় না। সাধারণ মানুষ আবেদন জমা দেয়। আমাদের কাছে আবেদন আসলে আমরা সেটার প্রতিবেদন দিয়ে দেয়।'

অবশ্য অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানালেন দুই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আহসান হাবিব বলেন, 'কারো কাছে যদি কোনো কারণে আবেদনপত্র পড়ে থাকে তাহলে আমি অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেবো।'

আর বিজয়নগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ বশিরুল হক ভূঞা বলেন, 'অভিযোগের বিষয়গুলো খতিয়ে দেখছি। অভিযোগ প্রমাণিত হলে আমরা তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। সে বাংলাদেশের যে জায়গাতেই থাকুক না কেন সে যদি কোনো অপরাধ করে তাকে কোনোভাবেই আমরা ছাড় দেবো না।'

এদিকে, ভূমি অফিসের এসব অনিয়ম ও দুর্নীতি রোধ করতে প্রশাসনকে আরো কঠোর হতে হবে বলে জানালেন ভূমি প্রশাসনের সাবেক আইনজীবী এম তারিক হোসেন জুয়েল।

তিনি বলেন, 'অভিযোগগুলো যদি আমলে নিয়ে তদন্ত করা হয় তাহলে এই চক্রগুলো বের হয়ে আসবে। জাল দলিল করে যারা খারিজ করে হয়তো এই চক্র থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব।'

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ৯টি উপজেলায় মোট ১শ' ২টি ইউনিয়ন রয়েছে। আর এসব ইউনিয়নে উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তার কার্যালয় রয়েছে মোট ৭৪টি।

 

somoynews.tv

এ জাতীয় আরও খবর