মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

উচ্চাভিলাষী বাজেটে চমকের হাতছানি

news-image

ডেস্ক  রিপোর্ট : সাধ আর সাধ্যে টানাপোড়েন। প্রায় ৩ লাখ কোটি টাকার বাজেটের মধ্যে উন্নয়নের ৯৭ হাজার কোটি টাকা বাদ দিলে বাকি পুরো অর্থই ব্যয় হবে বেতনভাতা, নানা ধরনের চলতি খরচসহ অনুন্নয়ন খাতে। এই বিশাল ব্যয়ের ধকল সামলাতে আগামী (২০১৫-১৬) অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে অভ্যনন্তরীণ সম্পদ আহরণেই সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হচ্ছে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতকে।

এই বাজেটে জনকল্যাণমুখী বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ বাড়িয়ে তিনি দেশের মানুষকে উচ্চতর জীবনযাপনের স্বপ্ন দেখাবেন। এই কারণে আগামী বাজেটকে অনেকে লক্ষ্য বা স্বপ্নবিলাসী বাজেট বলে মনে করছেন। কেননা এই বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা চলতি অর্থবছরের চেয়ে প্রায় ৩১ শতাংশ বেশি, যা বর্তমান মন্দা অর্থনীতির মধ্যে অর্জন করা প্রায় অসম্ভব। যদিও অতীতে কখনও ১৯ শতাংশের বেশি রাজস্ব প্রবৃদ্ধি হয়নি।

এছাড়া সরকারের ব্যয়ের সক্ষমতা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। যে কারণে বাজেটের টাকার মানসম্পন্ন খরচ নিশ্চিত করাও একটি বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা। ফলে আগামী অর্থবছরের বিশাল বাজেট বাস্তবায়ন করাই হচ্ছে বড় চ্যালেঞ্জ। আর সবকিছু মেনেই আগামী বৃহস্পতিবার বিকালে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জাতীয় সংসদে আগামী ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণাকালে জনকল্যাণমুখী অনেক স্বপ্নের কথাও বলবেন।

এ বিষয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, বড় বাজেট বাস্তবায়নে চ্যালেঞ্জ থাকবেই। তবে সরকারকে বাজেট বাস্তবায়নে দক্ষতা অর্জন করতে হবে। বড় বাজেট হলেও মাথাপিছু বরাদ্দ খুবই কম। সে হিসাবে বাজেটের আকারকে খুব বেশি বড় বলা যাবে না। তবে চলতি অর্থবছরের চেয়ে বাজেটের আকারকে সরকার অতি উচ্চাভিলাষী মাত্রায় নিয়ে গেছে।
স্বপ্নবিলাসী : এই চ্যালেঞ্জকে সামনে রেখেই সরকার নতুন বাজেটের জন্য বেশ কিছু কৌশল নির্ধারণ করেছে। এর মধ্যে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) পূর্ণ বাস্তবায়ন। যদিও কখনোই এডিপির পূর্ণ বাস্তবায়ন হয়নি। চলতি অর্থবছরের এপ্রিল পর্যন্ত এডিপির বাস্তবায়ন হয়েছে ৫৫ শতাংশ। বাকি ২ মাসে আরও ৪৫ শতাংশ এডিপি বাস্তবায়ন করতে হবে, যা একেবারেই অসম্ভব। ফলে আগামী অর্থবছরের এডিপির পূর্ণ বাস্তবায়ন সম্ভব নয় বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। বৈদেশিক খাত থেকে প্রতিশ্রুতি সহায়তার অর্থ পুরোপরি ছাড় করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু দাতাদের নানা শর্ত ও আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে এটিও সম্ভব হচ্ছে না।

ফলে পাইপলাইনে অনেক প্রতিশ্রুত সাহায্য আটকে রয়েছে। চলতি অর্থবছরেও রাজস্ব আদায়ে বড় ধরনের ঘাটতি হয়েছে। এটি বিবেচনায় না নিয়েও আগামী অর্থবছরের বাজেটে আরও বেশি অংকের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য স্থির করা হয়েছে। এটিও অর্জন করা সম্ভব হবে না বলে মনে করা হচ্ছে। ফলে গত বেশ কয়েক বছরের মতো আগামী অর্থবছরের বাজেটও বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে না বলে সংশ্লিষ্টরা আশংকা প্রকাশ করেছেন।

এ সরকার গত কয়েক বছর ধরেই মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার ৭ শতাংশে নিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিচ্ছে। কিন্তু পারছে না। এবার যে করেই হোক প্রবৃদ্ধির হার ৭ শতাংশের কোঠায় নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এজন্য আগামী বাজেটে প্রবৃদ্ধির হার ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ১ শতাংশ।

চলতি অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে জিডিপির প্রবৃদ্ধির হার ধরা হয়েছিল ৭ দশমিক ৩ শতাংশ। কিন্তু এই হার ৬ শতাংশের ঘরেই থাকছে। তবে বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী প্রবৃদ্ধির হার কমার জন্য বিএনপি ও জামায়াতের রাজনৈতিক আন্দোলনকে দায়ী করবেন বলে জানা গেছে।

চমক থাকছে : এবারের বাজেটে অন্যান্য বাজেটের ধারাবাহিকতার পাশাপাশি আরও কিছু নতুন বিষয় থাকছে। থাকছে বেশ কিছু চমক। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে বলেছেন, আগামী বাজেটে ব্যবসায়ীদের বিশেষ চমক থাকছে, যা বাজেটের দিন অর্থমন্ত্রী ঘোষণা করবেন। এখন প্রশ্ন উঠেছে কি চমক থাকছে?

জানা গেছে, এবারের  বাজেটে অনেকগুলো বিষয় নতুন থাকছে। এর মধ্যে রয়েছে শিশুদের জন্য আলাদা বাজেট তৈরির একটি ঘোষণা থাকবে। তবে সুনির্দিষ্ট কোনো কাঠামো থাকবে না। জেলা বাজেটকে আরও সম্প্রসারণ করা হবে। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য আলাদা একটি ব্যাংক করার ধারণাও থাকতে পারে বাজেটে। গ্রামের মানুষকে সঞ্চয়ের সুবিধা দিতে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের ব্যাপারে একটি ঘোষণা আসতে পারে। সরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে গ্রামীণ সঞ্চয় উৎসাহিত করতে সুদের হার শহরের চেয়ে বেশি করা হতে পারে। ব্যবসায়ীদের জন্য কর্পোরেট কর কমানো হচ্ছে। এর মধ্যে কমছে ব্যাংকিং খাতের করও। শেয়ারবাজারের জন্য থাকছে বিশেষ প্রণোদনা। ঋণের সুদের হার কমানোর একটি ঘোষণাও থাকছে বাজেটে। যদিও ইতিমধ্যে ঋণের সুদের হার কমানোর একটি উদ্যোগ দৃশ্যমান হয়েছে। আগামীতে এটি আরও দৃশ্যমান হবে। এছাড়া বিনিয়োগ বাড়াতে উদ্যোক্তাদের কর অবকাশ সুবিধা দেয়াসহ বিভিন্ন ধরনের সুবিধার কথা থাকছে।
এছাড়া পদ্মা সেতু, চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীতে ট্যানেল নির্মাণ, বুড়িগঙ্গা নদীতে ট্যানেল নির্মাণ, মেট্রোরেল প্রকল্প, ঢাকা-চট্টগ্রাম ডাবল রেললাইন নির্মাণের বিষয়ে কথা থাকছে।

আকার : আগামী অর্থবছরের সম্ভাব্য বাজেটের মোট আকার হচ্ছে ২ লাখ ৯৫ হাজার ২৭২ কোটি টাকা। এই অর্থের একটি বড় জোগান আসবে রাজস্ব খাত থেকে। এই খাত থেকে আয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ১২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবি আর) খাত থেকে আয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭৯ হাজার ৪৫০ কোটি টাকা। এনবি আরবহির্ভূত খাত থেকে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৬ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। করবহির্ভূত খাত থেকে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৭ হাজার ৩৪৫ কোটি টাকা।

এবারের বাজেটে মোট ঘাটতি ধরা হয়েছে ৮৮ হাজার কোটি টাকা। মোট জিডিপির ৫ শতাংশ ঘাটতি ধরা হয়েছে। এর মধ্যে বৈদেশিক উৎস থেকে সংগ্রহ করা হবে ৩০ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। অভ্যন্তরীণ ঋণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৭ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। সঞ্চয়পত্র থেকে নেবে ১৯ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। এবারের বাজেটের অনুন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭৬ হাজার কোটি টাকা। এডিপিতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৯৭ হাজার কোটি টাকা।

সবচেয়ে গুরুত্ব : আগামী বাজেটে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে মানবসম্পদ উন্নয়নকে। সব মিলে এই খাতে বরাদ্দ বাড়ানো হচ্ছে। সরকার মনে করে, মানবসম্পদের উন্নয়ন হলে অর্থনৈতিক কর্মকা- বাড়বে। বেড়ে যাবে কর্মসংস্থান। এর পাশাপাশি আইনশৃংখলা, সশস্ত্র বাহিনী খাতেও বরাদ্দ বাড়ানো হচ্ছে। অনুৎপাদনশীল খাতের ব্যয়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যয় হবে ঋণ ও ঋণের সুদ পরিশোধ খাতে।

উন্নয়ন খাত : আগামী ২০১৫-১৬ অর্থবছরের উন্নয়ন বাজেটে আকার ধরা হয়েছে ৯৭ হাজার কোটি টাকা, যা চলতি বছরের সংশোধিত এডিপির চেয়ে ২২ হাজার কোটি টাকা বেশি। এর বাইরে স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা অথবা কর্পোরেশনের নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পের অনুকূলে ৩ হাজার ৯৯৭ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

এর মধ্যে স্থানীয় মুদ্রা ৬২ হাজার ৫০০ কোটি এবং প্রকল্প সাহায্য থেকে ৩৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এ বরাদ্দের মধ্যে পদ্মা সেতুর গুরুত্ব বিবেচনায় পরিবহন খাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। বিদ্যুৎ খাতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বরাদ্দ, ভৌত পরিকল্পনা, পানি সরবরাহ ও গৃহায়ন খাতে তৃতীয়, শিক্ষা ও ধর্ম খাতে চতুর্থ এবং স্বাস্থ্য, পুষ্টি, জনসংখ্যা ও পরিবার কল্যাণ খাতে পঞ্চম সর্বোচ্চ বরাদ্দ দেয়া হয়। এর মধ্যে আগামী অর্থবছরের বাজেটে পদ্মা সেতুর জন্য বরাদ্দ থাকছে ৭ হাজার ২০০ কোটি টাকা।

অর্থমন্ত্রী রাজস্ব আয় বাড়ানোর পাশাপাশি বেশ কিছু সংস্কারেরও প্রস্তাব করবেন। ২০১৬ সালের ১ জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়নেরও চাপ রয়েছে তার ওপর। নতুন কাস্টমস আইনও বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া চলছে। আয়কর আইনের সংস্কার চলছে। সবকিছু মিলিয়ে অর্থমন্ত্রীর বাজেট প্রস্তাবে কর ছাড়ের পাশাপাশি ভ্যাট ও করের আওতা ব্যাপক বাড়ানোর পরিকল্পনা থাকবে বলে জানা গেছে।

কর্পোরেট কর হার : ব্যবসায়ী সমাজের দীর্ঘদিনের দাবি কর্পোরেট কর হার কমাতে হবে। কিন্তু রাজস্ব আদায়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়ার আশংকায় তা উপেক্ষা করেছে সরকার। ২১ মে প্রধানমন্ত্রী এফবিসিসিআই নেতাদের বললেন, নতুন বাজেটে ব্যবসায়ীদের জন্য চমক আছে। কি সেই চমক?

এ প্রশ্ন করা হলে এফবিসিআইয়ের সাবেক প্রেসিডেন্ট কাজী আকরাম উদ্দিন সোমবার জানান, শেষ পর্যন্ত কর্পোরেট কর হার কমছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের দায়িত্বশীল সূত্রও নিশ্চিত করেছে, প্রধানমন্ত্রীর চমক হচ্ছে কর্পোরেট কর হার কমানো। রাজস্ব আদায়ের ঝুঁকি সত্ত্বেও নতুন অর্থবছরে ব্যাংক, বীমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্পোরেট কর কমছে আড়াই শতাংশ। আগামী অর্থবছরে পাবলিকলি ট্রেডেড কোম্পানির (পুঁজিবাজারে যেসব কোম্পানি রয়েছে) বিদ্যমান কর হার ২৭ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হচ্ছে। একই সঙ্গে ব্যাংক, বীমা ও অর্থলগ্নিকারী প্রতিষ্ঠানের (মার্চেন্ট ব্যাংক ছাড়া) ওপর বিদ্যমান কর ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৪০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে পাবলিকলি ট্রেডেড ও নন-পাবলিকলি ট্রেডেড সিগারেট প্রস্তুতকারী কোম্পানির ওপর থাকা বিদ্যমান করভার কমানো হচ্ছে না।

করমুক্ত আয়সীমা : ব্যক্তি শ্রেণীর করদাতাদের করমুক্ত আয়ের সীমা বর্তমানের দুই লাখ ২০ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা করা হচ্ছে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেটের আয়করের এ পরিবর্তন আনা হচ্ছে বলে জানা গেছে। একই সঙ্গে ব্যক্তি শ্রেণীর করদাতাদের ন্যূনতম করের পরিমাণও বর্তমানের ৩ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৪ হাজার টাকা করা হচ্ছে। শুধু ব্যক্তি শ্রেণীর কারদাতাদেরই নয়, মহিলা ও বয়স্ক করদাতাদের এবং যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা করদাতাদের আয়করমুক্ত সীমাও বাড়ানো হচ্ছে। বর্তমানে নারী ও ৬৫ বছর ঊর্ধ্ব করদাতাদের করমুক্ত আয়ের সীমা রয়েছে দুই লাখ ৭৫ হাজার টাকা।

আগামী অর্থবছরে এটিকে বাড়িয়ে তিন লাখ টাকায় উত্তীর্ণ করা হচ্ছে। একই সঙ্গে প্রতিবন্ধী করদাতাদের করমুক্ত আয়ের সীমা বিদ্যমান তিন লাখ ৫০ হাজার থেকে বৃদ্ধি করে তিন লাখ ৭৫ হাজার টাকা করা হয়েছে। গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের করমুক্ত আয়ের সীমা বিদ্যমান চার লাখ থেকে বাড়িয়ে চার লাখ ২৫ হাজার টাকা করার প্রস্তাব করা হচ্ছে।
সিমট্যাক্স : মোবাইল কোম্পানিগুলোর দাবি সিমট্যাক্স কমাতে হবে। কিন্তু নতুন বাজেটে এই ট্যাক্স আরও বাড়ছে। এতে গ্রাহকদের ওপর কোনো প্রভাব পড়বে না। কারণ সিমট্যাক্স দিতে হয় মোবাইল অপারেটরদের। বর্তমানে সিমপ্রতি ট্যাক্স ৩শ’ থেকে বাড়িয়ে সাড়ে ৩শ’ টাকা করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। এছাড়া মোবাইল ফোনে বেশি কথা বলা নিয়ন্ত্রণেও নতুন কর বসছে। নতুন বছরে একনাগাড়ে ৫ মিনিটের বেশি কথা বললে একটি নির্দিষ্ট অংকের ভ্যাট দিতে হবে।
সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার : নতুন ভ্যাট আইনে সম্পূরক শুল্ক সম্পূর্ণ উঠে যাচ্ছে। ২০১৬ সালের ১ জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকরের কথা বলবেন অর্থমন্ত্রী। এজন্য  মাত্র ১৭০টি পণ্য রেখে বাকি সব পণ্য থেকেই প্রত্যাহার করা হবে সম্পূরক শুল্ক। চলতি অর্থবছরে ৭৭০টি পণ্যের সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার করা হয়েছে। স্থানীয় শিল্পের সহনীয় ক্ষমতা বিচেনায় রেখে অসম ট্যারিফ যৌক্তিকীকরণের স্বার্থে অর্থমন্ত্রী আরও সাড়ে ৪শ’ পণ্য থেকে সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহারের ঘোষণা দেবেন বলে জানা গেছে। বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) বিধিবিধান মেনেই সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার করা হচ্ছে।

তৈরি পোশাকে উৎসে কর : তৈরি পোশাক শিল্পের রফতানি ওপর উৎসে আয়কর বাড়ানো হচ্ছে। তৈরি পোশাক মালিকদের আপত্তি উপেক্ষা করে আগামী বাজেটে এ শিল্পে উৎসে কর কার্যকরের ঘোষণা দেবেন অর্থমন্ত্রী। রফতানিকে উৎসাহিত করতে এখন তৈরি পোশাক শিল্পে উৎসে কর কর্তন করা হয় শূন্য দশমিক ত্রিশ পয়সা। এর বাইরে অন্যান্য রফতানি খাতে এই কর হার শূন্য দশমিক ষাট পয়সা। নতুন বাজেটে পোশাক খাতের উৎসে কর বিদ্যমানের চেয়ে বাড়িয়ে শূন্য দশমিক ৮০ পয়সা ও অন্যান্য খাতে এক টাকা নির্ধারণ করা হতে পারে।

সিগারেট-বিড়ির কর বাড়বে : আসন্ন বাজেটে নিু আয়ের মানুষের ব্যবহৃত বিড়ি, তামাক ও গুলের ওপরও কর বাড়ানো হচ্ছে। বিদ্যমান কর হারের চেয়ে আগামী কর প্রায় দ্বিগুণ পর্যন্ত বাড়ানো হচ্ছে বলে জানা গেছে। একই সঙ্গে সব ধরনের সিগারেটের মূল্যস্তর পরিবর্তন করে সম্পূরক শুল্ক আরও বাড়ানো হচ্ছে।-যুগান্তর।

এ জাতীয় আরও খবর