বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হরতাল বন্ধে ইচ্ছা নেই সরকারের

news-image

কেউ হরতাল পছন্দ করেন না। কিন্তু রাজনৈতিক দলগুলো এখনো হরতাল বাতিলে কোনো উদ্যোগ নেয়ার পক্ষে নেই। হরতাল নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন ৯৬ থেকে ২০০১ সালে ক্ষমতাসীন ছিলেন, তখন সাহসীকতার সঙ্গে ঘোষণা দিয়েছিলেন, বিরোধীদলে গেলে তিনি আর হরতাল করবেন না। বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এ সাহস দেখাতে পারেন নি। তবে হরতাল এই দুই নেত্রীও পছন্দ করেন না। তবুও হরতাল বন্ধে রাজনৈতিক ঐক্য কখনো সম্ভব হবে কি না বলা মুস্কিল।

গত শনিবার এসএসসির ফলাফল ঘোষণা হবার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিরোধীদলের হরতাল, অবরোধ ও জ্বালাও পোড়াও না হলে এ ফলাফল আরো ভাল হত। এর মাত্র একদিন পর সোমবার সংসদে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক হরতাল বন্ধে সরকারের কোনো ইচ্ছা নেই বলে সাফ জানিয়ে দিলেন।

বরং সংসদে আইনমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোটের তথাকথিত অবরোধের নামে নাশকতার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলাগুলোর বিচারে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠনের প্রয়োজন নেই। নাশকতার মামলাগুলো যে সব অপরাধের জন্য দায়ের করা হয়েছে সেসব অপরাধগুলো সুনির্দিষ্ট আইনে সন্নিবেশিত রয়েছে এবং সেগুলো বিচারের জন্য আদালত বিদ্যমান।

তবে হরতাল-অবরোধ বন্ধে আইন প্রণয়ন সংক্রান্ত সরকারি দলের তাজুল ইসলামের পৃথক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী জানান, হরতাল ও অবরোধ বন্ধ করার লক্ষ্যে কোন আইন প্রণয়নের পরিকল্পনা আপাতত সরকারের নেই। হরতাল, অবরোধ ও বিভিন্ন প্রকার নাশকতার নামে দেশের জনসাধারণ ও তাদের জানমাল যারা ধবংস করেছে তাদেরকে বিদ্যমান সন্ত্রাস বিরোধী আইন, ২০০৯-এর আওতায় এনে শাস্তির বিধান রয়েছে। উক্ত আইনের সংশ্লিষ্ট বিধান অনুযায়ী বিগত দিনগুলোতে সংঘটিত অপরাধের জন্য সারাদেশে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, দায়েরকৃত এসব মামলাসমূহের বিচার কার্য যাতে থেমে না থাকে সেজন্য সন্ত্রাস বিরোধী আইনের ধারা ২৮ এর উপধারা (১) ও (২) এর বিধান অনুযায়ী সন্ত্রাস বিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন ও বিচারক নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত উক্ত আইনের ধারা ২৭ এর বিধান অনুযায়ী দায়রা জজ বা অতিরিক্ত দায়রা জজ র্কর্তৃক উক্তরূপ মামলার বিচারকার্য পরিচালনার জন্য ২০০৯ সালের ৯ই জানুয়ারি আইন মন্ত্রণালয় থেকে একটি পরিপত্র জারি করে সকল জেলা ও দায়রা জজকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। মোহাম্মদ সুবিদ আলী ভূইয়ার প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, বিকল্প পদ্ধতিতে বিরোধী নিষ্পত্তির মাধ্যমে মামলার জট কমানোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতি জেলায় কেস ম্যানেজমেন্ট কমিটি গঠনের মাধ্যমে দ্রুত মামলা নিষ্পত্তির পদক্ষেপ হাতে নেয়া হয়েছে। এছাড়া অধিক সংখ্যক বিচারক নিয়োগ করে সরকার আদালতের সংখ্যা বৃদ্ধি করেছে।

রাজপথে যানবাহনে অগ্নিসংযোগ, বোমা বিস্ফোরণ এমন অভিযোগ বিরোধী দলের নেতাদের বিরুদ্ধে এনে মামলা হয়েছে। এসবই যদি হরতালের উপসর্গ হয়ে থাকে তাহলে হরতাল চিরতরে বন্ধ করার মত সংসদে সংখ্যাগরীষ্ঠতা নিয়েও সরকার কেন তা করছে না এ এক বিরাট প্রশ্ন।

আমাদের সময়.কম

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা