বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরাইলে কর্মসৃজন প্রকল্পে লুটপাট ৬ শতাধিক গায়েবি শ্রমিক, অর্ধকোটি টাকা গিলছে কর্তাবাবুরা

news-image

স্টাফ রিপোর্টার সরাইলব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে কর্মসৃজন প্রকল্পের টাকা নিয়ে দেদারছে চলছে লুটপাট । শ্রমিকের সংখ্যা সীমাবদ্ধ শুধুই কাগজে। ছয় শতাধিক অতিদরিদ্র গায়েবি শ্রমিকের টাকা নিচ্ছেন পিআইও ও প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা। পিআইও’র সাফ কথা-‘কাজ নয়, আমার টাকা চাই।’ একাধিক জনপ্রতিনিধি বলছেন গায়েবি শ্রমিকের বিষয়টি স্যাররা জানেন। টাকা ও উত্তোলন হয়। টাকাটা কোথায় যায় বলতে পারব না। আইন না থাকলেও কাজ করছে শিশু শ্রমিকরা।  শ্রমিকের টাকা প্রদানে নিয়মের ধার ধারছেন না ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। স্বাক্ষর ও টিপসহিতে চলছে অনিয়ম। সরকারের মহৎ উদ্যেশ্যকে জবাই করে মোটা তাজা হচ্ছেন নিজেরা। বৃষ্টি হলেই কাজ বন্ধ করে দেওয়ার কথা জানিয়েছেন খোদ প্রকল্পের সুপার ভাইজার মোঃ সালাহ উদ্দিন। কিছু ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে কর্মসৃজনের শ্রমিক দিয়ে ধান কাটা, সিদ্ধ করা ও বন (খের) শুকানোর কাজ করানোর অভিযোগ রয়েছে। অনিয়মের প্রতিবাদ করায় সরকারি স্কুলের প্রধান শিক্ষককে লাঞ্ছিত করেছে সৈয়দ আলী নামের এক ইউপি সদস্য। পিআইও অফিস সূত্রে জানা যায়, গত ১৮ এপ্রিল থেকে সরাইলের ৯টি ইউনিয়নে শুরু হয়েছে কর্মসৃজন (দ্বিতীয় ধাপ) প্রকল্পের কাজ। এবার ৪৩ টি প্রকল্পে কাজ করছে মোট ১ হাজার ৮৩৫ জন শ্রমিক। এবার কমে গেছে ১৫৯ জন শ্রমিক। ৪০ দিনে শ্রমিকের মজুরি বাবদ সরকারি বরাদ্ধ রয়েছে ১ কোটি ৬৮ লাখ ৮০ হাজার টাকা। সরজমিনে দেখা যায়, ভেল্কিবাজির অত্যাধুনিক চিএ। অরুয়াইল ইউনিয়নের রানিদিয়ায় বাঁশের ব্রীজের গোড়ার প্রকল্পে ৬৬ জনের মধ্যে কাজ করছে মাত্র ২৫ জন। ৪১ জন কম কেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে শ্রমিকরা বলে তারা পরে আইব। দুবাজাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠের প্রকল্পে ৩৩ জনের মধ্যে কাজ করছে ২০ জন। ধামাউড়া খালেক চেয়ারম্যানের বাড়ির পূর্বদিকের প্রকল্পে কাজ করছে ৩২ জনের মধ্যে ২০ জন। দুবাজাইল সরকারি প্রাথমিক ্িদ্যালয়ের মাঠের প্রকল্পে ৩৩ জন শ্রমিক কাজ করার কথা। শুরু থেকে ২০-২৫দিন কাজ করেছে মাত্র ৮/৯ জন শ্রমিক। গত ১০-১৫ দিন ধরে কাজ বন্ধ। এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন কমিটির সহ সভাপতি মোঃ সামছু মিয়া। ক্ষোভে গত ২৬ মে শিক্ষার্থীদের সামনে প্রধান শিক্ষক মোঃ সিরাজুল ইসলামকে পিটিেিয় লাঞ্ছিত করেছেন ইউপি সদস্য সৈয়দ আলী ও তার বাহিনী। এ ঘটনায় সরাইল থানায় ২৭ মে মামলা দায়ের হলেও নথিভুক্ত হয়নি আদৌ। নোয়াগাঁও ইউনিয়নের চৌরাগুদা মুড়াহাটি সুলতান মিয়ার বাড়ি সংলগ্ন প্রকল্পে দেখা যায় ৫-৬ জন মাটি কাটছেন। সর্দার নেই। কিছুক্ষণ পর পাশের বাড়িঘর থেকে পরিস্কার কাপড়ছোপর পড়া বেশ কয়েকজন মহিলা পুরুষ বেড়িয়ে এসে বলে স্যার আমার নামটা যেন বাদ না যায়। ওই বাড়িতে একটু বিশ্রাম নিতে গেছিলাম। কবে থেকে প্রকল্প শুরু হয়েছে? কে কতদিন কাজ করেছে? কত টাকা পাবে? কিছুই বলতে পারেনি তারা। শুধু জানে সময় হলে স্যাররা টাকা দিবে। তিয়োরকোনা বজেন্দ্র সরকারের বাড়ির প্রকল্পে কাজ করছেন ৩৪ জনের মধ্যে মাত্র ২০ জন শ্রমিক। ১৪ জন শ্রমিক কম কেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে শুধূ দাঁত বের করে হাসেন সর্দার লাল মিয়া। হাঁসির পেছনে রহস্য কি? বলতেই লাল মিয়া বলেন, স্যার কি বলব। আপনারা তো সবই জানেন। বচিউড়া হাজী সাত্তার মিয়ার বাড়ি ও বাড়িউড়া আকবর মিয়ার বাড়ির প্রকল্পে ৩৬ জন কাজ করার কথা। কিন্তু সরজমিনে সেখানে কোন শ্রমিক পাওয়া যায়নি। কালিকচ্ছ ইউনিয়নের মঠখলা সড়কে ৭৪ জনের মধ্যে কাজ করছে মাত্র ৪৪ জন। এখানে মাসুদ (১০), লিটন মিয়া (১৩) ও সজল (১২) নামের তিন শিশু শ্রমিক রয়েছে। ৩০ জন কম কেন? এ প্রশ্নের উত্তরে সর্দার বলে স্যার একটু দাঁড়ান একজন লোক আসতেছে। গলানিয়া সড়কের কুষার ব্রীজের নিকটে কাজ করছে ৬২ জনের মধ্যে ৫০ জন শ্রমিক। এ ছাড়া এ প্রকল্পে স্বপন মল্লিক (১২), সাজন (১০), অরুনা বেগম (১৫) ও রাজন (১৬) নামের চার শিশু শ্রমিক কাজ করছে। ১২ জন কম কেন? অট্রহাঁসি হেঁসে ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলান ছোট্র মিয়া বলেন, অবশ্যই ১২ জন কম। বিষয়টা শতভাগ সত্য। কেন কম এটা উপরের স্যাররা ভাল জানেন। কারন তারা কম শ্রমিক খাঁটানোর বুদ্ধি দিয়েছেন। কালিকচ্ছ পরিবার পরিকল্পনা অফিস হইতে কুষারপাড় ব্রীজ পর্যন্ত প্রকল্পে ৬৪ জন শ্রমিক কাজ করার কথা। বরাদ্ধ ৫ লাখ ১২ হাজার টাকা। এ প্রকল্পে কোন শ্রমিক পাওয়া যায়নি। স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান, এখানকার শ্রমিকরা অন্য জায়গায় কাজ করার কথা। কিন্তু কাজ হচ্ছে না। তারা এখন বসে আছেন। কিন্তু টাকা উঠছে। ভাগ বাটোয়ারা ও হচ্ছে। পানিশ্বর ইউনিয়নের দেওবাড়িয়া কবরস্থানের পুকুরের উত্তর পাড়ের প্রকল্পে ৬৫ জন কাজ করার কথা থাকলেও কাজ করছে ৩০ জন। উপরের স্যারদের টাকা না দিলে বিল আটকে দিবে। এ জন্য ৩৫ জন শ্রমিক কম। এমনটাই বললেন একজন শ্রমিক। ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে কিভাবে? এ প্রশ্নের উত্তরে ওই শ্রমিক বলেন, স্যারে যে কি কয়। যার হিসাব নাম্বার সে তো জানেই না। আর জানলে তারে ফাউ কিছু টেহা দিয়া দিলে ঝামেলা খতম। সবার টিপ লাগে না। একজনেই হগলের টিপ দেয়। চুন্টা ইউনিয়নের আজবপুর ও রসুলপুর বিলের রাস্তা মেরামত হইতে বাঘাসূতা  প্রকল্পে ৫০ জনের মধ্যে কাজ করছে মাত্র ২৬ জন শ্রমিক। শ্রমিকরা জানায়, আরো পরে কিছু লোক কাজ করতে আইব। আর নরসিংহপুরের প্রকল্পে কাউকে পাওয়া যায়নি। গত ১৭ মে পাকশিমুল ইউনিয়নের ‘ফতেহপুর নদীর ঘাট থেকে হাজী হাসান আলীর বাড়ি’ ও ‘পরমানন্দপুর ইদ্রিছ মিয়ার জমি হইতে সরকার বাড়ি পর্যন্ত’ ৫০ জন এবং ‘বড়ইচারা কবরস্থান হইতে কুদ্দুছ আলীর বাড়ি পর্যন্ত’ প্রকল্পে ২৬ জন শ্রমিক কাজ করার কথা থাকলেও কাউকে পাওয়া যায়নি। স্থানীয় একাধিক শিক্ষক ও গন্যমান্য ব্যক্তি জানান, ২-৩দিন এখানে মাটি কাটতে দেখেছি। এরপর আর কেউ কাজ করছে না। ওই মহিলারা এখন ধানের কাজে ব্যস্ত। অনেকে ইউপি সদস্যের ধান বন শুকানোর কাজ করছেন। ১৮ মে সরজমিনে দেখা যায় ‘জয়ধরকান্দি পশ্চিম পাড়া ছাদেক মিয়ার জমি হইতে গোলাপ মিয়ার জমি পর্যন্ত’ ও ‘তেলিকান্দি মোহাম্মদ আলীর বাড়ি হইতে নুর মিয়ার বাড়ি পর্যন্ত’ প্রকল্পে কাজ বন্ধ।  ৫৩ জন শ্রমিকের কারো দেখা মিলেনি। স্থানীয় লোকজন জানায়, প্রথম কয়েক দিন দেখেছি। ১০-১২ দিন ধরে আর কাউকে মাটি কাটতে দেখছি না। শাহবাজপুর উত্তর প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে আতকা বাজার পর্যন্ত প্রকল্পে ৬৩ জনের মধ্যে কাজ করছে মাত্র ৪২ জন। আর ধীতপুর সফিক মিয়ার বাড়ির প্রকল্পে কোন শ্রমিক নেই। ৯ টি ইউনিয়নের প্রত্যেকটি প্রকল্পেই রয়েছে হাজারো অনিয়ম। ভাগবাটোয়ারা করে গায়েবি শ্রমিকের নাম দেওয়া আছে। যারা কখনো কাজে যায় না। ওই নামের টাকা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে নেন জনপ্রতিনিধিরা। টাকা প্রদানে নিয়মের ধার ধারছে না ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। পিয়ন ও দারোয়ানরা দেয় পেমেন্ট। ৩-৪ জন শ্রমিক মিলে দেড় দুই শতাধিক শ্রমিকের টিপ সহি দিয়ে থাকেন। অনেক সময় ইউপি সদস্যরাই দিয়ে বসেন সকল টিপসহি। বিনিময়ে ব্যাংককে দিতে হয়  টুপাইস। কার টাকা কোথায় যায় খোদা জানেন। পরে গায়েবি শ্রমিকের লক্ষ লক্ষ টাকা গিলে খান পিআইও অফিস ও প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।  নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রকল্প সংশ্লিষ্ট একাধিক ব্যক্তি জানান, পিআইও অফিসকে বেশী টাকা দিতেই তো গায়েবি শ্রমিক। তারপরও স্যারকে খুশি রাখতে পারি না। প্রত্যেক ইউনিয়নে গড়ে কমপক্ষে ৬০-৭০ জন করে গায়েবি শ্রমিকের নাম রয়েছে। ৯ ইউনিয়নে মোট গায়েবি শ্রমিকের সংখ্যা ৬ শতাধিক। অনিয়মের মাধ্যমে মোট আয়ের টার্গেট ৫০ লক্ষাধিক টাকা। পিআইও অফিসের লক্ষ মাত্রা ৪০ লক্ষাধিক টাকা। বাকি  টাকা ভাগ করে নিবে প্রকল্প সংশ্লিষ্ট স্থানীয় প্রতিনিধিরা। গরীবের টাকা যাবে বড় লোকের পেটে। তাই প্রকল্পের কর্তা ব্যক্তিদের মদদেই চলছে অনিয়ম। সোনালী ব্যাংক সরাইল শাখার ব্যবস্থাপক মোঃ ছানোয়ার হোসেন বলেন, শাহবাজপুরের সকল শ্রমিকই টাকা নিয়ে গেছে। আমি গ্লাসের ভিতর থেকে সবকিছু খেয়াল করতে পারি না। কর্মকর্তাই টাকা প্রদান করেন। কৃষি ব্যাংক কালিকচ্ছ শাখার ব্যবস্থাপক জে এইচ এম সুলমান ভূইয়া বলেন, সকলেই টাকা নিয়েছে। নোয়াগাঁও-এর কিছু লোকে বাকি রয়েছে। পরে নিবে। এখানে অনিয়মের কোন সুযোগ নেই।  উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আবুল কালাম মিয়াজী তার বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কিছু শ্রমিক অনুপস্থিত থাকতেই পারে। অধিক সংখ্যক শ্রমিক নিয়মিত অনুপস্থিত থাকলে বিষয়টি ইউএনও স্যারকে জানান। অন্য বিষয় গুলো আমার জানা নেই। 

 

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা