মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাড়ছে ভর্তি ফি

news-image

ক্যাম্পাস প্রতিবেদক: নতুন নিয়মে ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন আগামী ৬ জুন থেকে শুরু হবে। আগামী ১৮ জুন পর্যন্ত আবেদন করতে পারবে শিক্ষার্থীরা। আর ভর্তির তালিকা প্রকাশ করা হবে ২৫ জুন। আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব কমিটির এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ ছাড়া নতুন শিক্ষাবর্ষে কলেজে ভর্তির ফিও কিছু বাড়বে বলে জানিয়েছেন বোর্ড চেয়ারম্যানরা। তারা জানান, ফির বিষয়টি ঠিক করে ভর্তি নীতিমালা শিগগিরই চূড়ান্ত করা হবে।
সিলেট শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মমতাজ শামীম বলেন, নতুন পে-স্কেলে বোর্ডের খরচ প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে যাবে। তাই কলেজে ভর্তির ফিও কিছু বাড়ানোর চিন্তা করা হচ্ছে। কিন্তু এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। আগামী ৬ জুন এ বিষয়ে একটি বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। সে বৈঠকেই ফি বাড়ানোর বিষয়টি ঠিক করা হবে। এ ছাড়া ভর্তির নীতিমালা ইতোমধ্যেই ঠিক করা হয়েছে। ৩০ জুনের মধ্যে সব ভর্তি কার্যক্রম শেষ করতে হবে। উল্লেখ্য, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ঘোষিত নিয়ম অনুযায়ী ১ জুলাই থেকে একাদশ শ্রেণির ক্লাস শুরু হবে।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও বোর্ড থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, নতুন নিয়মে টেলিটক মোবাইলে এসএমএসের মাধ্যমে আবেদনের সঙ্গে সঙ্গে অনলাইনেও কম খরচে আবেদন করতে পারবে শিক্ষার্থীরা। অনলাইনে wxiclassadmission.gov.bd ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এই আবেদন করতে হবে। অনলাইনে এক আবেদনেই পাঁচটি কলেজের নাম পছন্দক্রম অনুযায়ী দেওয়া যাবে। এর জন্য ফি নেওয়া হবে ১৫০ টাকা। আর টেলিটকে প্রতিটি কলেজের জন্য আলাদাভাবে আবেদন করতে হবে। আর প্রতিটি আবেদনের জন্য ১২০ টাকা দিতে হবে। ফলে পাঁচটি কলেজে টেলিটকে আবেদনের জন্য লাগবে ৬০০ টাকা। কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান-সবার জন্যই একই নিয়মে আবেদন করতে হবে।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ডগুলোর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী একাদশ শ্রেণিতে শিক্ষার্থীরা কোন কলেজে ভর্তি হবে-তা নির্ধারণ করবে শিক্ষা বোর্ড। অনলাইনে শিক্ষার্থীর আবেদনের পছন্দক্রম থেকে তার এসএসসি ও সমমানের ভিত্তিতে একটি কলেজ নির্ধারণ করা হবে। সেখানে শিক্ষার্থীকে ভর্তি হতে হবে। একজন শিক্ষার্থী আবেদন করা পাঁচটি কলেজের কোনোটিতেই ভর্তির যোগ্য না হলে তাকে তখন শূন্য আসন থাকা কলেজে ভর্তি হতে হবে।
গত শনিবার এসএসসির ফল প্রকাশ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, আসনের অভাবে কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হতে পারেনি-এমন কোনো ঘটনা এখন পর্যন্ত ঘটেনি। প্রতি বছর কলেজগুলোতে এসএসসি পাস করা শিক্ষার্থীদের ভর্তি শেষে এক লাখের বেশি সিট খালি থাকে।
কলেজে ভর্তির নতুন নিয়ম শিক্ষার্থীদের জন্য ভালো হয়েছে বলে মনে করছেন আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ শাহান আরা বেগম। তিনি বলেন, প্রচলিত নিয়মে দেখা যায়, একজন শিক্ষার্থী তিন-চারটা কলেজে আবেদন করে সবগুলোতেই চান্স পেয়েছে। আরেকজন কোনোটাতেই পায় না। এখন আর এ সমস্যা থাকবে না। এ ছাড়া অভিভাবকদেরও সন্তানদের ভর্তি নিয়ে হয়রানির শিকার হতে হবে না। তাদের অর্থ অপচয়ও কম হবে।
চলতি ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির নীতিমালা অনুযায়ী সেশন চার্জসহ ভর্তি ফি সর্বসাকল্যে মফস্বল/পৌর (উপজেলা) এলাকায় এক হাজার টাকা, জেলা সদরে দুই হাজার টাকা, ঢাকা বাদে অন্যান্য মেট্রোপলিটন এলাকায় তিন হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। আর ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকা, আংশিক এমপিওভুক্তির ক্ষেত্রে বাংলা মাধ্যমে সর্বোচ্চ নয় হাজার টাকা এবং ইংরেজি মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা নির্ধারিত ছিল। এ ছাড়া উন্নয়ন খাতের ফি বাবদ সর্বোচ্চ তিন হাজার টাকা নির্ধারিত ছিল। শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ভর্তির সময় আদায় করা বোর্ড অনুমোদিত ফি’র মধ্যে ছিল-রেজিস্ট্রেশন ফি ১২০ টাকা, ক্রীড়া ফি ৩০, রোভার/রেঞ্জার ফি ১৫, রেড ক্রিসেন্ট ফি ২০, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফি ৭, বার্ষিক ক্রীড়া মঞ্জুরি ফি (শুধু প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রদেয়) ২০০ টাকা। এর বাইরে কোনো শিক্ষার্থীর পাঠ বিরতি থাকলে এজন্য ১০০, বিলম্বে ভর্তি ফি বাবদ ৫০ এবং বিষয় বা শাখা পরিবর্তন বাবদ ২৫ টাকা অতিরিক্ত আদায়ের জন্য নির্ধারণ করা ছিল। 

এ জাতীয় আরও খবর