বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দাঁত ও মাড়ির সমস্যা থেকে মুক্ত রাখবে দারুণ কার্যকরী ১০ টি অভ্যাস

news-image

স্বাস্থ্য ডেস্কদাঁত হারানোর পর আসলে দুঃখ করে কোনই লাভ নেই, কিন্তু আমরা এই কাজটিই করি। এমন সব অভ্যাস গড়ে তুলি যা আমাদের দাঁতের ক্ষতি করে, দাঁতের ক্ষয় করে এবং মাড়ির রোগ বৃদ্ধি করে। তারপর যখন আর সময় থাকে না তখন আফসোস শুরু করি। কিন্তু আগে থেকেই একটু সতর্ক থাকলে এমনটি হবে না কখনোই। একটু কষ্ট করে কিছু অভ্যাস গড়ে নিলে, বিশেষ করে ছোটদের একেবারেই শিশুকাল থেকে কিছু কার্যকরী অভ্যাস করিয়ে নিলে চিরকাল দাঁত এ মাড়ির সমস্যা থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব হবে বেশ সহজেই।

১) আঁশযুক্ত ও কিছুটা শক্ত প্রকৃতির ফল যেমন-গাজর, পেঁয়ারা, আমড়া, আঁখ, আনারস, নাশপাতি, আপেল, নারকেল ইত্যাদি দাঁত ও মাড়ি সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এবং এগুলো চোয়ালের স্বাভাবিক গঠনে বিশেষ ভাবে কার্যকরী।

২) লেবু, আমলকী, কমলা, টমেটো ও বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজি যেগুলোতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি ও অন্যান্য ভিটামিন রয়েছে প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখার চেষ্টা করুন। ভিটামিন সি জাতীয় খাবার দাঁত ও মাড়ির জন্য অত্যন্ত উপকারী। তাই দাঁত ও মাড়ির সুরক্ষায় খাদ্যতালিকায় রাখুন এইসকল খাবার।

৩) ঘুমুতে যাওয়ার আগে কখনো বিস্কুট, কেক, চকলেট ধরণের খাবেন না এবং বাচ্চাদের খেতে দেবেন না। কারণ এগুলো খুব সহজে দাঁতে আটকে যায়। আর খেলেও ভালো করে দাঁত পরিষ্কার করে ফেলবেন, তা না হলে রাতে দাঁতের ক্ষতি হয় অনেক বেশি।

৪) প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে এবং রাতে ঘুমানোর আগে টুথপেস্ট ও ব্রাশ দিয়ে ওপর থেকে নিচে এবং নিচ থেকে ওপরের দিকে দাঁত ব্রাশের সঠিক নিয়মে ভালো করে দাঁত ব্রাশ করে নেবেন। এবং দাঁতের ভেতর দিকেও ভালো করে মাজতে ভুলে যাবেন না। এতে খাদ্যকণা আটকে দাঁতের ক্ষয় করবে না।

৫) দাঁতের যেসব জায়গা ব্রাশ দিয়ে পরিষ্কার করা সম্ভব নয় সেসব জায়গায় ডেন্টাল ফ্লস ব্যবহার করবেন। এবং সেইসাথে জিহ্বাও ভালো করে পরিষ্কার করে নেবেন।

৬) ফ্লোরাইড যুক্ত যে কোনো টুথপেস্ট দাঁতের জন্য বেশ উপকারী। তবে দুই থেকে তিন মাস পর পর টুথপেস্টের ব্র্যান্ড বদল করে নেয়া ভালো, কারণ বিভিন্ন পেস্টে বিভিন্ন ধরনের উপাদান থাকে। এবং জেল জাতীয় টুথপেস্ট ব্যবহার করবেন না।

৭) অনেকের কয়লা বা গুল ধরণের জিনিস দিয়ে দাঁত ব্রাশের অভ্যাস রয়েছে যা খুবই ক্ষতিকর। কয়লা, গুল, টুথ পাউডার, ছাই, মাটি, গাছের ডাল ইত্যাদি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। এতে দাঁত ও দাঁতের মাড়ির ক্ষতিই বেশি হয়।

৮) চিনি জাতীয় এবং বিশেষ ধরণের কিছু খাবার যেমন-পাউরুটি, বিস্কুট, কেক, চকলেট, আইসক্রিম ইত্যাদি খাওয়ার পর খুব ভালো করে দাঁত পরিষ্কার করে নেবেন। তা না হলে ক্যাভিটি হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

৯) ধূমপান করা এড়িয়ে চলুন। তামাক পাতা ও পান-সুপারিও খাবেন না একেবারেই এতে দাঁত ক্ষয় হয়ে যায় বেশ দ্রুত। এছাড়াও ধূমপান, পান ও তামাকের কারণে মুখ ও মাড়ির ক্যান্সারের সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

১০) মুখ খুলে ঘুমানোর অভ্যাস থাকলে তা দূর করার চেষ্টা করুন, কারণ মুখ খুলে ঘুমানোর ফলে মুখ ও দাঁতের রোগ বেড়ে যায়।

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা