শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চশমা বাধ্যতামূলক হচ্ছে ক্যালিফোর্নিয়ার পর্নস্টারদের জন্য!

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ক্যালিফোর্নিয়ার একটি নতুন আইনমতে চশমা পড়তে হবে পর্নস্টারদের। পর্ন ফিল্মে অভিনয় করার সময় পর্নস্টারদের গগলস বা এক বিশেষ ধরনের চশমা পড়ার আবেদন জানিয়েছিলো ডিভিশন অফ অকুপেশনাল সেফটি এন্ড হেলথ স্ট্যান্ডার্ডস (OSHA)। তাদের মতে অনেক স্বাস্থ্যগত বিষয় এখানে জড়িত।

কিন্তু অনেক পর্নস্টার, পর্ন কোম্পানি এমনকি কোনো কোনো স্বাস্থ্যবিদ এ আআনের বিরোধিতা কারেছে। তাদের মতে, এমন আইনের কোনো দরকার ছিলো না।
এডাল্ট ইন্টারটেইনমেন্ট ইন্ডাস্ট্রি এসোসিয়েশিন ফ্রি স্পিচ এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডায়ান ডিউক বলেন, ‘এই নিয়ম নাকি স্বাস্থ্যগত কারণে করা হয়েছে কিন্তু এডাল্ট ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি কিংবা হলিউডও এই সম্পর্কে কিছু জানে না।’ এই নিয়ম আসলে পর্ন ইন্ডাস্ট্রি বন্ধ করার একটি পায়তারা বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
অনেকদিন ধরেই যুক্তরাষ্ট্রের এডাল্ট সিনেমার একটি বড় অংশই ক্যালিফোর্নিয়ায় তৈরি হচ্ছে। ২০১২ সালে লস এঞ্জেলস কাউন্টি পর্ন ফিল্মে কনডম ব্যবহারের জন্য একটি আদেশ জারি করে। এর পরে কনডম ব্যবহার শুরু হলেও এর জনপ্রিয়তা একধাপে ৯০ শতাংশ নেমে যায়।

এখনো ক্যালিফোর্নিয়ায় এ আদেশ জারি রয়েছে এবং পর্নে কনডম ব্যবহার করা হয়। তবে সমালোচকরা জানান, কনডম ব্যবহারে কখনো কাউকে বাধ্য করা হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের শুধুমাত্র ক্যালিফোর্নিয়া এবং নিউ হ্যাম্পশায়ার রাস্ট্রিই পর্ন ফিল্ম তৈরিতে আইনগত কোনেরা বিধিনিষেধ নেই। লস এঞ্জেলসের কনডম ব্যবহারের আইন লাস ভেগাস এবং দক্ষিণ ফ্লেরিডায়ও অনুসরণ করা হয়।
এখন পর্ন কোম্পানিগুলো মনে করছে এই আইনটি এডাল্ট ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিকে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করবে।
প্রস্তাবিত এই নিয়মগুলো প্রতিষ্ঠিত করতে সবচেয়ে বড় অবদান এইডস হেলথকেয়ার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মাইকেল ওয়েন্সটাইনের। অনেকদিন ধরেই তিনি স্বাস্থ্যগত নানা বিষয় পর্ন ফিল্মে যুক্ত করছেন। গগলস এবং কনডম আইন দুটি প্রতিষ্ঠাতেই তার অবদান ছিলো।

মাইকেল বলেন, ‘এটা আসলে পর্নস্টারদেরই নিরাপত্তার কারণেই এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।’ তিনি জানান অন্তত চারজন পর্নস্টার এখন পর্যন্ত এইডসে আক্রান্ত হয়েছে সঠিকভাবে কনডম ব্যবহার না করার কারণে। এবং আরো সহস্রাধিক পারফর্মার অন্যান্য যৌনরোগে আক্রান্ত হয়েছে।

কিন্তু ফ্রি স্পিচ কোয়ালিশন এর বিরোধিতা করে জানায়, এখন পর্যন্ত একজন পারফর্মারও এইডসে আক্রান্ত হয়নি। পর্ন ইন্ডাস্ট্রির মতে এটি একটি সম্পূর্ণ নিরাপদ প্রক্রিয়া এবং পারফর্মারদেরকে কনডম ব্যবহারে বাধ্য করা ‍উচিত নয়। যদি তারা চায় তবে তার পড়তে পারেন, কিন্তু এটি বাধ্যতামূলক করা উচিত ন।
কিঙ্ক পর্ন কোম্পানি’র স্যান ফ্র্যানসিসকো শাখার এক মুখপাত্র মাইকেল স্ট্যাবিল জানান, ‘ওশা’র করা নতুন নিয়মের আমরা বিরোধীতা জানাই। তারা আসলে পর্ন স্টারদের অনিরাপত্তায় ভোগাচ্ছে। কিঙ্কে আমরা পারফর্মারদের অনুমতি নিয়েই কাজ করে থাকি। আমরা তাদের শরীরের ওপর জোর করে কিছু চাপিয়ে দিতে পারিনা।’

ওয়েন্সটেইন বলেন, তিনি খুশি যে সরকার পাঁচ বছর পরে একটু কঠোর অবস্থান নিয়েছে। কিন্তু পর্ন কোম্পানিগুলোর ভাষ্য অন্যরকম। তাদের মতে নতুন এ নিয়ম খুবই হাস্যকর। যদি কনডম ব্যবহারই পর্ন কোম্পানির এতটা ক্ষতিসাধন করতে পারে তবে চশমা ব্যবহারের বিষয়টি এই ইন্ডাস্ট্রিকে একদম ডুবিয়ে ছাড়বে।
তবে নতুন এ নিয়ম পর্ন ইন্ডাস্ট্রিকে সম্পূর্ণরুপে ‘স্বাস্থ্যসম্মত’ করে তুলবে বলে বিশ্বাস করেন অনেকে। কারণ এডাল্ট ফিল্মে অনেক সময় চোখের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তার মানে এই নয়, এই ইন্ডাস্ট্রিই বন্ধ করে দিতে হবে। কিন্তু এটি একটি স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে হওয়া উচিত বলে মনে করেন অনেক।

এ জাতীয় আরও খবর