মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তামাকের অবৈধ ব্যবসার ফলে সরকার প্রতিবছর রাজস্ব হারাচ্ছে ৫ হাজার কোটি টাকা

news-image

অদ্য ৩০ মে ২০১৫ তারিখ সকাল ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস (৩১ মে) উপলক্ষে বাংলাদেশ তামাক বিরোধী জোটের উদ্যোগে জনস্বাস্থ্য রক্ষায় তামাকজাতদ্রব্যের অবৈধ ব্যবসা বন্ধে করণীয় শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করা হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এ দিবসের প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘ঝঃড়ঢ় রষষরপরঃ ঃৎধফব ড়ভ ঃড়নধপপড় ঢ়ৎড়ফঁপঃং’ বাংলায় ‘‘তামাকজাত পণ্যের অবৈধ ব্যবসা বন্ধ কর’’। এ প্রতিপাদ্যের আলোকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত আলোচকবৃন্দ জনস্বাস্থ্য রক্ষায় অবিলম্বে দেশে চোরাচালানকৃত সিগারেট বন্ধ ও বাজেয়াপ্ত করে তা ধ্বংস করার দাবি জানিয়েছে। বক্তারা বলেন, একশ্রেনীর চোরা কারবারির একটি বড় সিন্ডিকেট তৈরী করে তামাক নিয়ন্ত্রন আইন অমান্যের মাধ্যমে তাদের ব্যবসাকে কৌশলে সম্প্রসারিত করছে। এতে একদিকে সরকার প্রচুর রাজস্ব হারাচ্ছে অপরদিকে তামাক নিয়ন্ত্রনে সরকারের যে উদ্দেশ্য তা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। যার ফলে পরোক্ষভাবে জনস্বাস্থ্য মারাত্বক হুমকির মুখে পতিত হচ্ছে।
দি ইউনিয়নের কনসালটেন্ট এডভোকেট সৈয়দ মাহবুবুল আলম আন্তর্জাতিক গবেষণার আলোকে বলেন, তামাকজাত দ্রব্যের চোরাচালানের সাথে তামাক কোম্পানিগুলো জড়িত। কর ফাঁকি দিয়ে, অপেক্ষাকৃত সস্তায় যুব ও স্বল্প আয়ের মানুষদের নিকট সিগারেট পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে চোরাচালান করা হয়। আবার অনেক ক্ষেত্রে সরকারের কর বৃদ্ধি, মোড়কের গায়ে সতর্কবাণী প্রদান এবং তামাক নিয়ন্ত্রণে গৃহীত অন্যান্য নীতিকে অকার্যকর করতে তামাকজাত দ্রব্যের চোরাচালান করা হয়। তামাকজাত দ্রব্যের চোরাচালান জনস্বাস্থ্যের ক্ষতির পাশাপাশি অপরাধীচক্র তামাকজাত দ্রব্যের চোরাচালানের মাধ্যমে মাদকদ্রব্য, অস্ত্র চোরাচালান এবং মানব পাচারের মতো সংঘবদ্ধ কার্যক্রমের আর্থিক যোগান নিশ্চিত করে। সে কারণে এ ধরনের অবৈধ ব্যবসা বন্ধে সরকারের আরো কঠোর হওয়া প্রয়োজন।
ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক ড. শাহ আলম চৌধুরী বলেন, তামাকপণ্যের যোগান ব্যবস্থায় নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠাই তামাকের অবৈধ বাণিজ্যর মূল লক্ষ্য। মূলত যে কারণে তামাকের অবৈধ্য বাণিজ্য সংঘটিত হয় তা হচ্ছে দাম-পার্থক্য অর্থাৎ কিছু দেশে তামাকপণ্যের দাম কম এবং কিছু দেশে বেশী হলে, শুল্ক হার ও কর কাঠামোর তারতম্য অর্থাৎ কিছু দেশে নি¤œ কর হার এবং কিছু দেশে উচ্চ শুল্ক হার চালু থাকলে ও দুর্বল সীমান্তব্যবস্থাপনা বিদ্যমান থাকলে। এছাড়া তামাক কোম্পানিগুলো দেশের অভ্যন্তরে কর ফাঁকি দেওয়ার মাধ্যমেও অবৈধ বাণিজ্য করে থাকে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত বলেন, তামাক পণ্যের অবৈধ বাণিজ্য বন্ধ করা গেলে তামাকজনিত মৃত্যু কমবে এবং সরকারের রাজস্ব আয় বাড়বে। দি ইউনিয়ন এর গবেষণা (২০০৯) অনুসারে, বিশ্বে তামাকপণ্যের অবৈধ বাণিজ্য বন্ধ করা গেলে সামগ্রিকভাবে সিগারেটের দাম ৩.৯ শতাংশ বাড়বে এবং বিশ্বব্যাপি এর ব্যবহার ২ শতাংশ কমবে। ফলে বছরে ১ লক্ষ ৬০ হাজার মানুষের জীবন বাচানো যাবে, যার মধ্যে ১ লক্ষ ৩২ হাজারই নি¤œ ও মধ্যম আয়ের দেশের। পাশাপাশি সারা বিশ্বের সরকারগুলোর অতিরিক্ত ৩১.৩ বিলিয়ন ইউএস ডলার রাজস্ব আয় অর্জন করতে পারবে। এরমধ্যে ১৮.৩ বিলিয়ন ইউএস ডলার আয় হবে নি¤œ ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর সরকারের। এছাড়া এর ফলে তামাকপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে থাকায় তরুণদের তামাক সেবন শুরুর প্রবণতা কমে আসবে, দুর্নীতি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম কমবে, সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হবে এবং সর্বোপরি রাষ্ট্রীয় শাসন ব্যবস্থায় বা গভার্নেন্স সিস্টেমে তামাক কোম্পানির হস্তক্ষেপ কমে আসবে।
পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক এর চেয়ারম্যান ও সাবেক সচিব ড. মিহির কান্তি মজুমদার বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বলেন, বিশ্ব কাষ্টমস কমিউনিটির তথ্য অনুসারে, বিশ্ব বাজারে বিক্রয়কৃত প্রতি ১০টি সিগারেটের ১টি চোরাচালানকৃত। ইউরোপিয় ইউনিয়ন কমিশনের তথ্য অনুসারে ইউনিয়নের সদস্য দেশসমূহ তামাকজাত দ্রব্যের চোরাচালানের কারণে ১০ বিলিয়ন পাউন্ড রাজস্ব ক্ষতির সম্মুখীন হয়। বিশ্বব্যাপী চোরাচালান নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে ২০১২ সালের নভেম্বরে চৎড়ঃড়পড়ষ ঃড় ঊষরসরহধঃব ওষষরপরঃ ঞৎধফব রহ ঞড়নধপপড় চৎড়ফঁপঃং নেগোশিয়েশন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে চুড়ান্ত করা হয়। এই প্রটোকল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ঋঈঞঈ–র অধীন প্রণীত প্রথম প্রটোকল। এ প্রটোকল প্রণয়নে বাংলাদেশও সক্রিয়ভাবে কাজ করছে।
জাতীয় যক্ষা নিরোধ সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি মোজাফফর হোসেন পল্টু বলেন, বাংলাদেশ কাষ্টম বিভাগ প্রতিনিয়ত সিগারেট চোরাচালান রোধে নিয়মিত পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। তথাপি বাংলাদেশের বাজারে চোরাচালানকৃত সিগারেট ও তামাকজাত দ্রব্য বিক্রয় হয়। এষড়নধষ ঞড়নধপপড় ঈড়হঃৎড়ষ (ওএঞঈ) এর উদ্যোগে বিশ্বের ১৪টি মধ্য ও স্বল্প আয়ের দেশ হতে ৩০০০ সিগারেট প্যাকেটের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। বাংলাদেশ হতে ২১০টি সিগারেট প্যাকেটের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। প্রতিটি দেশের আইন অনুসারে সতর্কবাণী এবং ট্যাক্স স্ট্যাম্পকে মানদন্ড ধরে, নির্ধারণ করা হয় সিগারেট প্যাকেটটি চোরাচালানকৃত কিনা। গবেষণার তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৩০০০ প্যাকেটের ২৪ শতাংশই চোরাচালানকৃত সিগারেট।
ঢাকা জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ জসিম উদ্দিন বলেন, ২০১৩ সালে সংশোধিত তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনে প্যাকেটের গায়ে ছবিসহ সরকার নির্ধারিত স্বাস্থ্য সতর্কবাণী প্রদান করার পাশাপাশি বাংলাদেশে তৈরিকৃত সকল তামাকজাত দ্রব্যের মোড়কে ‘শুধু বাংলাদেশে বিক্রয়ের জন্য অনুমোদিত’ লেখা মুদ্রণ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। আগামী ২০১৬ সালের মার্চ মাস হতে এ বিধান কার্যকর হবে। এছাড়া বিদ্যমান আইন অনুসারে ব্যান্ডরোল বা রাজস্ব স্ট্যাম্প লাগানো ব্যতীত তামাকজাত দ্রব্যের বিক্রয় আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।
জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব ড. মোঃ শাহাদাৎ হোসেন বলেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে টাস্কফোর্স এবং জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল সমন্বিতভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করলে দেশে চোরাচালালকৃত তামাকজাত দ্রব্যের ক্রয় ও বিক্রয় কার্যকরভাবে বন্ধ করা সম্ভব। আগামী দিনে এ সকল সংস্থা যাতে সমন্বিতভাবে চোরাচালানকৃত তামাকজাত দ্রব্যের বিক্রয় বন্ধে কাজ করতে পারে সে লক্ষ্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় আরো বলিষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।
গোলটেবিল বৈঠকে আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ তামাক বিরোধী জোটের সম্পাদক এম রফিকুল ইসলাম মিলন, প্রত্যাশা মাদক বিরোধী সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক হেলাল আহমেদ, নিরাপদ ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক ইবনুল সাইদ রানা, ডাব্লিবিবি ট্রাষ্টের ন্যাশনাল এডভোকেসি অফিসার সৈয়দা অনন্যা রহমান ও প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে তামাক বিরোধী কার্যক্রমে ইতিবাচক ও অগ্রণী ভূমিকার জন্য বাংলাদেশ তামাক বিরোধী জোটের সহযোগী পাঁচটি সংস্থাকে ‘তামাক বিরোধী সম্মাননা ২০১৪’ প্রদান করা হয়। সংস্থাগুলো হচ্ছে খুলনা জেলার সিয়াম, নোয়াখালীর আবসা, বরিশাল জেলার ইয়েস বাংলাদেশ, রাজশাহীর বউকস ও ঢাকা জেলার গ্রীণ মাইন্ড সোসাইটি। অনুষ্ঠানে অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, মিহির কান্তি মজুমদার ও মোজাফফর হোসেন পল্টু সম্মাননা হস্তান্তর করেন। সিয়াম এর পক্ষে নির্বাহী পরিচালক মাসুম বিল্লাহ, আবসা’র পক্ষে নির্বাহী পরিচালক মো. আবুল কাশেম, গ্রীণ মাইন্ড সোসাইটির চেয়ারম্যান মো. আমির হোসেন সম্মাননা স্মারক গ্রহণ করেন।

 

এ জাতীয় আরও খবর