মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাত মন্ত্র নিয়ে আগাচ্ছে বিএনপি

news-image

নির্দলীয় সরকারের অধীনে সংসদ নির্বাচনের দাবিতে বিএনপি ২০১৩ থেকে ২০১৫ এই সময়ের মধ্যে আন্দোলন করলেও তাতে লক্ষ্য অর্জিত হয়নি। এই লক্ষ্য অর্জিত না হওয়ার পেছনের কারণগুলো চিহ্নিত করা হয়েছে দলের তরফ থেকে। সেখানে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিভিন্ন টিম কাজ করছে। ওই টিমের মূল্যায়ন হচ্ছে বিএনপি নেতা কর্মীদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে সফল হওয়ার জন্য যে সব কৌশল অবলম্বন করা দরকার ছিল, এর পুরোটা হয়নি। তা না হওয়ার কারণে আগামী দিনের জন্য দলকে প্রস্তুত করার পাশাপাশি নেতা কর্মীদেরকেও বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করতে হবে। সেটা করে যত দ্রুত সম্ভব সফল হতে হবে। সেই সাফল্য আনতে হলে নেতা কর্মীদের সাতটি বিষয় অনুসরণ করতে হবে।

এই সাত মূল মন্ত্রের মধ্যে রয়েছে: তৃণমূল নেতাদের এগিয়ে আসা, কষ্ট স্বীকার, ত্যাগ স্বীকার, দেশের মানুষকে পাশে নেওয়া, নেতৃত্ব দেওয়া, ধৈর্য্য ধারণ ও সাহস রাখা। এগুলো নেতা কর্মীরা করলেই আন্দোলনে জয় আসবে। জয় তাদের বেশি দূরে নয় তারা জয়ের কাছাকাছি সেই সব কথাও তাদেরকে বলা হচ্ছে। তাদের মধ্যে অনুপ্রেরণা যোগানো হচ্ছে।
বিএনপির দলের নীতি নির্ধারক একজন নেতা জানান, বিএনপি এখন লক্ষ্য পূরণের জন্য এই মন্ত্র নিয়ে নতুন করে কাজ করার চেষ্টা করছে। বিএনপির তৃণমূল নেতাদের বলা হচ্ছে আগামী দিনে জয় পেতে আবারও ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। সেই দিক নির্দেশনাও তারেক রহমান শুক্রবার তার দলের নেতা কর্মীদের দিয়েছেন। সেই নির্দেশনা দিয়ে তিনি তাদেরকে কাজ করারও আহ্বান জানিয়েছেন। ওই নির্দেশনা অনুযায়ী আগামী দিনের নেতারা কাজ করার চেষ্টা করবেন বলেও তৃণমূলের সিনিয়র নেতারা কাজ করবেন।

বিএনপির সূত্র জানায়, বিএনপির তৃণমূল নেতাদের উদ্দেশ্যে নীতি নির্ধারক পর্যায় থেকে তাদের বলা হয়েছে, আজকে যারা বিএনপির নেতা রয়েছেন তাদের অনেকেই এর আগেও আন্দোলনে ছিলেন। আন্দোলনের অভিজ্ঞতা তাদের কাছে নতুন নয়। এর আগেও আওয়ামী লীগ যখন সরকারে ছিল ওই সময়ে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আন্দোলন করেছে। ওই আন্দোলনের চেয়ে এখনকার আন্দোলনে বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ে অনেক নতুন নতুন নেতা রয়েছেন। তারাও কাজ করছেন।

বিএনপি তাদের নেতাদের আশস্ত করার চেষ্টা করছেন, বিএনপি এখন যে আন্দোলন করছে এই আন্দোলনে নেতা কর্মীদের অনেক বেশি কষ্ট স্বীকার করতে হচ্ছে, অনেক নির্যাতন স্বীকার করতে হচ্ছে। তাদের বলা হচ্ছে, নেতাদের বুঝতে হবে আপনারা জয়ের খুব কাছাকাছি আছেন। এই কাছাকাছি থাকার কারণে সরকার ভয় পাচ্ছে। এই ভয় পাওয়ার কারণে তাদের নির্যাতনের মাত্রাটা বেশি হচ্ছে। বিএনপির নেতাদের উদ্ধুদ্ধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে এই বলে যে, তারা যে আদর্শ নিয়ে এগুচ্ছেন এই আদর্শ বাস্তবায়ন করতে হলে শত কষ্ট ও নির্যাতন সহ্য করেই এগুতে হবে। পিছু হটলে চলবে না।

তারা নেতাদের এটাও বোঝাতে চেষ্টা করছেন, সরকারের সঙ্গে জনগণ নেই। কিন্তু আপনাদের সঙ্গে জনগণ আছে। সরকারের সঙ্গে জনগণ না থাকার কারণেই সরকার ভীত। এই ভয় থেকেই সরকার ক্ষমতায় থাকার জন্য বিএনপির নেতা কর্মীদের নির্যাতন ও জুলুম করছে।

বিএনপির হাইকমান্ড দলের নেতা কর্মীদের মধ্যে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আর্দশের বিষয়টিও স্মরণ করিয়ে দিচ্ছেন। নেতাদের উদ্দেশ্যে বার্তা পাঠাচ্ছেন তারেক রহমানও। তাদেরকে বলছেন, জিয়াউর রহমান দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছেন। দেশের উন্নতির জন্য কাজ করেছেন। দেশের উন্নতি সাধনের জন্য কাজ করে গেছেন। তিনি আইনের শাসনের জন্য ও মানুষের উন্নতির জন্য কাজ করেছেন।

এখন প্রতিপক্ষের কার্যকলাপের কথা বলে নেতাদের বলা হচ্ছে, যদি সেটা দেখা হয় তাহলে দেখা যাবে তারা গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার জন্য তারা বিশ্ববাসীর কাছে পরিচিত হয়েছে। দুর্নীতিতে দেশকে ছড়িয়ে দিয়েছে, দেশে বিদেশে এই অপবাদ নিতে হচ্ছে। গনতন্ত্রকে হত্যার জন্য তারা সমালোচিত হচ্ছে। আইনের শাসন ভূলুণ্ঠিত করেছে। এছাড়াও সরকারের আরো বিভিন্ন দিকের সমালোচনা করে ওই সব নেতাদের কাছে বার্তা দিয়ে সরকারের প্রতি বিষোদগার করা হচ্ছে। সেটা করে এটাও বলা হচ্ছে যে, এই সরকারের প্রতি দেশে বিদেশের বিভিন্ন দেশ ও সংস্থা যারা গণতন্ত্র নিয়ে কাজ করেন তাদের কাছে এদের গ্রহণযোগ্যতা নেই। এটাও বলছে তাদের হাতে দেশ নিরাপদ নয়। নিরাপত্তাহীনতার কারণে দেশে তারা দেশবাসীর জন্য নিরাপত্তা চায় সেটা করতে হবে বিএনপিকে। এই জন্য নেতাদেরকে কাজ করতে বলেন।

সূত্র জানায়, বিএনপির হাইকমান্ড থেকে এটাও বলা হয়েছে তৃণমূল নেতাদের উদ্দেশ্যে, তাহলো বাস্তব হচ্ছে আপনাদেরকে জয় লাভ করতে হবে। জয় ছিনিয়ে আনতে হবে। এই বিজয় ছিনিয়ে আনার জন্য কষ্ট ও ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। এটা না করলে যারা আন্দোলন চলাকালে শহীদ হয়েছেন, আহত হয়েছেন, পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন, নেতারা কারাগারে আছেন, তাদের সুচিকিৎসা দেওয়া ও তাদেরকে জেল খানা থেকে বাইরে বের করে আনা ও দেশকে রক্ষা করা সম্ভব হবে না। এই কারণে সকল নেতা কর্মীকে কষ্ট, নির্যাতন ও জুলুম স্বীকার করারও আহ্বান জানানো হচ্ছে। তাদেরকে বলা হচ্ছে, একটি পরিবারের সবাই কষ্ট করে না। কিন্তু একটি পরিবারকে ভাল রাখতে হলে অবশ্যই পরিবারের কাউকে কাউকে কষ্ট করতে হবে। সেই কষ্ট করেই দেশের ১৮-২০ কোটি মানুষকে ভাল রাখতে হবে। সেই জন্য সাতটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে। সেগুলো হলো তৃণমূল নেতাদের এগিয়ে আসতে হবে। কষ্ট স্বীকার করতে হবে। ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। দেশের মানুষকে পাশে নিতে হবে। নেতৃত্ব দিতে হবে। সরকারের নির্যাতনের কারণে ধৈর্য হারালে হবে না। ধৈর্য ধারণ করতে হবে। সরকারের নির্যাতনে সাহস হারালেও চলবে না। সাহস রাখতে হবে। এই সব বিষয়গুলো মনে রেখে এগুলে সাফল্য আসবে ও জয়ও আসবে।

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যানের ঘনিষ্ট একটি সূত্র জানায়, দলের নেতা কর্মীদের প্রতি এই বার্তা পৌঁছানো হচ্ছে বিভিন্ন ভাবে। তাদের অনেক নেতার সঙ্গে কথা বলছেন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান। পাশাপাশি মেইলে বার্তা পাঠানো হচ্ছে। সেই সঙ্গে তাদের জন্য বিভিন্ন টেলিভিশনেও সাক্ষাৎকার দিয়ে ওই সব বার্তা মাঠের নেতাদের কাছে পাঠানো হচ্ছে। এছাড়াও যোগাযোগের জন্য বিভিন্ন মাধ্যমও ব্যবহার করা হচ্ছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, এখনই কোন কর্মসূচি আসছে না। তবে দলের সাংগঠনিক কাঠামোকে আরো সুদৃঢ় করা ও আগামী দিনে আন্দোলনে সফল হওয়ার জন্য নেতা কর্মীদের তৈরি করতে হবে। ইতোমধ্যে এই কাজ শুরু হয়েছে। বিএনপি তার লক্ষ্যে পৌঁছুবে। এই জন্য একটু সময় লাগবে। তবে সরকার যেভাবে আমাদের নেতা কর্মীদের মাঠে নামতে দিচ্ছে না, মামলা দিচ্ছে, তাদেরকে নির্যাতন করছে এই অবস্থায় নেতারা মাঠে নামতে অনেকেই ভয় পাচ্ছেন। গুলির ভয়ও পাচ্ছেন। আশা করা যাচ্ছে, আগামী দিনে আমরা লক্ষ্যে পৌঁছুতে পারবো। এই জন্য প্রয়োজনীয় সব নির্দেশনা দলের হাইকমান্ড যথা সময়ে দিবেন।

আমাদের সময়.কম

এ জাতীয় আরও খবর