বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ধূমপান ৯০% ফুসফুস ক্যান্সারের কারণ

news-image

পৃথিবীতে ক্ষতিকর বস্তুগুলোর মধ্যে তামাক অন্যতম। তামাকজাত দ্রব্যগুলোর মধ্যে ধূমপান বিশেষভাবে ক্ষতিকারক। ধূমপানের ফলে শুধুমাত্র ধূমপায়ী নয়, অধূমপায়ী ব্যক্তিও পরোক্ষ ধূমপানের ক্ষতির শিকার হয়ে থাকে। অন্যান্য ধোঁয়াবিহীন তামাকজাত দ্রব্য যেমন, গুল, জর্দ্দা, সাদাপাতা, খৈনীও একইভাবে ক্ষতি করে। শুধু তাই নয়, তামাক অর্থনৈতিক, সামাজিক ও পরিবেশগতভাবে ক্ষতি করে থাকে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, স্বল্পোন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোতে ধূমপায়ীর সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। বর্তমান বিশ্বে ধূমপায়ীর সংখ্যা একশ কোটিরও উপরে। এই ধারা অব্যাহত থাকলে খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে এই সংখ্যা ১৬০ কোটি ছাড়িয়ে যাবে এবং তামাক ব্যবহারজনিত কারণে মৃত্যু ঘটবে ৫ কোটি লোকের।

অতি প্রাচীন কাল হতে বাংলাদেশে তামাক ব্যবহারের প্রচলন রয়েছে। দেশে বর্তমানে প্রায় ৩ কোটি লোক ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহার করে থাকে। স্বাস্থ্যগত দৃষ্টিকোণ থেকে ধূমপান একটি নিরব ঘাতক। যা অজান্তে মানুষকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়। প্রতিটি জ্বলন্ত সিগারেট এক একটি কেমিক্যাল ফ্যাক্টরী। যা হতে প্রায় ৪ হাজার ক্ষতিকর বস্তু বের হয়। যেমন, এমোনিয়া, কার্বন মনোঅক্সাইড, নিকোটিন, নাইট্রিক এসিড, হাইড্রোজেন ছায়ানাইট, পারদ, আলকাতরা, নিকেল, সিসা, ক্যাডসিয়াম, বেনজিন ও কার্বনিল অন্যতম। এর মধ্যে ৪৩টি বস্তু সরাসরি ক্যান্সারের জন্য দায়ী। শতকরা ৯০% ফুসফুস ক্যান্সারের কারণ ধূমপান। ধূমপানে যে সমস্ত রোগ হয়ে থাকে থ্রম্বোসিস, হার্ট এ্যাটার্ক, সেরিব্রাল থ্রম্বোসিস, প্যারালাইসিস, স্ট্রোক, উচ্চ রক্তচাপ, কিডনি সমস্যা, গাংগ্রিন, ক্যান্সার, সন্তান জন্মদানে অক্ষমতা, চোখের সমস্যা, দাঁত ও মাড়ির সমস্যা, আলসার ও ত্বকের সমস্যাসহ ইত্যাদি।

স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, প্রতিটি সিগারেট মানুষের জীবন থেকে কেড়ে নেয় ১১ মিনিট আয়ু। তামাক ব্যবহারের কারণে প্রতি বছর বাংলাদেশে ৫৭ হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যু ঘটছে। অনুরূপভাবে ৩ লাখ ৮২ হাজার মানুষ পঙ্গুত্ববরণ করছে। ধূমপান শুধু স্বাস্থ্যগত নয়, অর্থনৈতিকও ক্ষতির কারণ। তামাক ব্যবহারের ফলে দেশে প্রতি বছর চিকিৎসার পিছনে ব্যয় হয় ১১ হাজার কোটি টাকা। তামাকের এ কুফল তুলে ধরে তামাকবিরোধী সংগঠণের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে সরকার ২০০৫ সালে ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন ২০০৫ নামে একটি আইন করে। আইনের বেশ কিছু সীমাবদ্ধতার প্রেক্ষিতে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নে আশানুরূপ সুফল না পাওয়ায় বাংলাদেশ তামাক বিরোধী জোট, সিয়াম ও এইড সহ বেশ কিছু তামাক বিরোধী সংগঠণ সমূহে অব্যাহত আন্দোলনের মুখে ২০১৩ সালের ২৯ এপ্রিল মহান জাতীয় সংসদে সংশোধিত তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৩ পাস করা হয়। যা চলতি বছর গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রশ্ন হচ্ছে, ২০০৫ সালের আইনটি সংশোধিত আকারে যুগোপযোগী করা হলেও আইনের যথাযথ প্রয়োগ না থাকায় তামাক নিয়ন্ত্রণে আইন কোন কাজে আসছে না। জেলা এবং বিভাগীয় পর্যায়ে আইনের কিছুটা প্রয়োগ দেখা গেলেও উপজেলা পর্যায়ে উদাসীন আইন বাস্তবায়নকারী সংশ্লিষ্টরা। আইনে জেলা প্রশাসককে জেলা তামাক নিয়ন্ত্রণ টাস্কফোর্স কমিটির সভাপতি এবং ইউএনওকে উপজেলা পর্যায়ে সভাপতি করে কমিটি গঠণ করার কথা থাকলেও অধিকাংশ উপজেলায় কার্যকারিতা নেই টাস্কফোর্স কমিটি।

অনেকেই মনে করেন, তামাক বিরোধী সংগঠণের সচেতনা ও প্রচার-প্রচারণামূলক কার্যক্রম বৃদ্ধিসহ টাস্কফোর্স কমিটিগুলো শক্তিশালী করা হলে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন কাজে আসবে।

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা