শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নারী নির্যাতন প্রতিরোধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া এসপি’র প্রশংসনীয় স্লোগান

news-image

আপনার মেয়েটিকে শ্বশুর বাড়িতে যেমন দেখতে চান, আপনার বাড়িতে বউ হয়ে আসা অন্য মেয়েটিকে সেভাবেই রাখুন’- নারী নির্যাতন প্রতিরোধে এমন স্লোগান সম্বলিত ফেস্টুন টানিয়ে ব্যাপক প্রশংসিত এবং আলোচিত হয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান।
 
১৬ মে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানা পুলিশের ওপেন হাউজ ডে’র অনুষ্ঠানে উল্লেখিত স্লোগান সম্বলিত  ফেস্টুন টানানোর পর মানুষের নজরে আসে।

এছাড়াও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে এ স্লোগান সম্বলিত ফেস্টুনটি পোস্ট করার পর প্রচুর সাড়া মিলে।

মানুষজন এর প্রসংসা করে বিভিন্ন ধরনের মন্তব্য করে। সর্বশেষ শুক্রবার বেলা পৌনে ১২টা পর্যন্ত ফেসবুকের এই পোস্টটিতে দেড় হাজারেরও বেশি লাইক, শতাধিক শেয়ার ও ফেসবুক ব্যবহারকারী মন্তব্য করেছেন। লেখাটি সব মহলে বেশ প্রশংসিত হয়েছে।

জাহেদ স্বপন নামে একজন ওই ছবির কমেন্টস বক্সে লিখেছেন, ‘এই সুন্দর স্লোগানটিকে দেশের প্রতিটি নাগরিকের মনে গেঁথে রাখা উচিত বলে আমি মনে করি’।

তুহিন চৌধুরী লিখেছেন, দেওয়ালের এই পোস্টারটি যেন পৃথিবীর সব মানুষের অন্তরের কথা হয়, এই রইল আল্লাহ’র কাছে আমার প্রার্থনা।
 
এম ওয়াই আলাউদ্দিন ইউনুছ লিখেছেন, দেখবেন একদিন অন্যরাও আপনাকে অনুকরণ করবে, ইনশাআল্লাহ।

এ ফেস্টুনটি নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইনুর রহমান তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে বলেছেন, দেয়ালের এ স্লোগানটি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশ সুপারের। এই সব উদ্ভাবনী চিন্তাধারা আর কাজের মাধ্যমে মানুষের মনের গহীনে জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। হয়তো তিনি নিজেও এতটা ভাবতে পারেননি। যারা ভালো কাজ করে তারা এমনিতেই জনপ্রিয় হয়ে যায়।
 
এই বিষয়ে জানতে চাইলে সদ্য বিদায় নিতে যাওয়া পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে নারী নির্যাতন সংক্রান্ত মামলা বেশি হয়। পরিসংখ্যানও তাই বলে। এই জেলার প্রচুর লোক প্রবাসে থাকেন। স্বামীরা বিয়ের পরপরই বাবা-মা, ভাই-বোনের কাছে তার স্ত্রীকে রেখে পাড়ি জমান প্রবাসে।

স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে মেয়েটির যেমন সম্পর্ক ও সখ্যতা গড়ে উঠার কথা সময় সাপেক্ষে তেমনটি হয়ে উঠে না। ফলে মেয়েটি শ্বশুরবাড়ি কর্তৃক শারিরীক অথবা মানসিক নির্যাতনের শিকার হয়। এর ফলে শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে বউ হয়ে আসা মেয়েটির দূরত্ব সৃষ্টি হয়। দূরত্ব থেকে নারী নির্যাতন মামলার সূচনা হয়।

পুলিশ সুপার বলেন, বিভিন্ন স্কুল, কলেজে অনুষ্ঠিত মা দিবসের অনুষ্ঠানে মায়েরা জানায়, তারা সবাই তাদের মেয়েকে শ্বশুর বাড়িতে সুখী দেখতে চান। এই কারণে আমার কাছে মনে হয়েছে, মেয়েটি তার বাবা-মায়ের কাছে যতটুকু নিরাপদ থাকে, যদি শ্বশুর বাড়িতে ততটুকু নিরাপদ থাকতে পারতো তাহলে  নির্যাতনের শিকার হতো না। হয়তো এর ফলে মামলাও হতো না।

আর শ্বশুরবাড়ির লোকজনদেরও হয়রানির শিকার হতে হতো না। এই চিন্তা থেকেই এমন একটা সহজ ও স্পর্শকাতর বাক্য চিন্তা করেছি, যা মানুষের মনে দাগ কাটতে পারে বলে মন্তব্য করেন পুলিশ সুপার।
 
মনিরুজ্জামান বলেন, নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটলে পুলিশ আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়। সেটা প্রতিরোধ করতে পারলে ঘটনাই যদি না ঘটে, তাহলে সমাজে বিরাট পরিবর্তন আসবে। তখন নারী নির্যাতনের মামলাও কম হবে। প্রত্যেকটা মানুষের মধ্যে ভাল ও খারাপ উভয় দিক রয়েছে। ভাল দিকটা কাজে লাগাতে পারলে পৃথিবীটা সত্যিকার অর্থে বাসযোগ্য হবে বলে মনে করেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।
 
এএসপি আরো বলেন, হুমকি দিয়ে নারী নির্যাতন বন্ধ করা যায় না। তাই মানুষের মধ্যে মানবিকতা জাগিয়ে তুলতে তাদেরকে এই বার্তাটি বুঝানোর চেষ্টা করেছি যে, আপনার মেয়েকে তার শ্বশুরবাড়িতে যেমন দেখতে চান, বউ হয়ে আসা মেয়েটিকে সেভাবে রাখুন।

এ স্লোগানের কারণে মানুষের কাছ থেকে অব্যাহতভাবে প্রশংসা পাচ্ছেন বলেও জানালেন তিনি। বলেন, যেকোন অনুষ্ঠানে এই বাক্য সম্বলিত ফেস্টুন দিয়ে সাজ-সজ্জা করি।

এ পুলিশ সুপার মনে করেন, নারী নির্যাতন বিরোধী এরকম স্লোগান সমাজে প্রতিটি স্তরে স্তরে ছড়িয়ে দিতে পারলে আমাদের মানসিকতা-মানবিকতা উভয়েরই পরিবর্তন আসবে। সামাজিক সচেতনতাই পারে সমাজ থেকে নারী নির্যাতন নিমূল করতে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে বিদায় নিতে যাওয়া এই পুলিশ সুপার ১ জুন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে এআইজি পদে যোগ দিবেন।