বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রবাসে দশ বছরে ২৪ হাজার বাংলাদেশীর মৃত্যু

news-image

বিদেশে বাড়ছে প্রবাসী বাংলাদেশীদের মৃতের সংখ্যা। প্রতিদিনই প্রবাসীদের মরদেহ আসছে বাংলাদেশে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে বাংলাদেশীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় মূলত ওই অঞ্চল থেকেই মরদেহ যাচ্ছে সর্বাধিক। এর মধ্যে তালিকায় প্রথমে আছে সৌদি আরব। ২য় তালিকায় মালয়েশিয়া, আরব আমিরাত, ওমান, কুয়েত । ২০০৯ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত গত ছয় বছরে শুধু সৌদি আরব থেকেই ৪ হাজার ৩শ ৩ জনের মরদেহ বাংলাদেশে পাঠানো হয়েছে। গত ১০ বছরে কেবল সরকারি হিসেবেই বিভিন্ন দেশে মারা গেছেন ২৪ হাজার ৩শ ৮১জন। এই হিসেব কেবল বিমানবন্দর হয়ে যেসব মরদেহ বাংলাদেশে গেছে এবং দূতাবাস ও জনশক্তি রফতানি ব্যুরো (বিএমইটি) যেসব বাংলাদেশীর মরদেহ বাংলাদেশে পাঠাতে দাফতরিক সহায়তা দিয়েছে তাদের নিবন্ধিত হিসেব মাত্র। প্রকৃত হিসেব কত তা জানা যায়নি।

এছাড়া যাদের মরদেহ ওইসব দেশেই দাফন করা হয়েছে তাদের বিষয়ে কোনো তালিকা বাংলাদেশের ওইসব দপ্তরে নেই বলে জানা গেছে। বেসরকারি হিসেবে এই সংখ্যা আরো অনেক বেশি বলে বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন। মানব পাচারকারীদের মিথ্যা প্ররোচনায় কত মানুষ সমূদ্র পথে কিংবা অবৈধ পথে বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছে, তারপর আর হদিস মিলছে না সমূদ্রেই সলিল সমাধি হচ্ছে, এই রকম সংখ্যা তো একেবারে কম নয়। থাইল্যান্ড-মালয়েশিয়ার গহীন জঙ্গলে শত শত গণকবরের হিসেব পাল্টে দিচ্ছে সব হিসেব নিকেশ।

জানা যায়, সরকারি হিসেবে ২০০৫ সাল থেকে চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত বিদেশের মাটিতে প্রবাসী বাংলাদেশী মারা গেছেন ২৪ হাজার ৩শ ৮১জন। তবে ১০ বছরের তুলনায় সাম্প্রতিক কয়েক বছরে বিদেশে প্রবাসী মৃত্যুর হার দ্বিগুণেরও বেশি। এক পরিসংখ্যানে জানা যায়, দেশে প্রতি মাসে প্রবাসীর লাশ যাচ্ছে ১৯৭টি। তবে গত ৪ মাসের হিসেব আরো উদ্বেগজনক। প্রতিদিন গড়ে ১০জনের মরদেহ দেশে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

 

উক্ত হিসেবের বাইরে যাদের বিদেশে দাফন করা হচ্ছে তাদের সংখ্যা কত সে ধরনের কোনো তথ্য সংশ্লিষ্ট কারো কাছে পাওয়া যায়নি। বিশেষ করে ইউরোপ-আমেরিকার দেশগুলোতে বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশী আছেন যারা স্বপরিবারে কয়েক যুগ ধরে বিদেশে আছেন। তাদের স্বজনরা ওই দেশেই দাফন করছেন। দৈত নাগরিকতার অধিকারীদের মৃত্যুর পর বিদেশেই দাফন করার হার বেশি। কিন্তু তাদের কোনো নিবন্ধন রাখছেনা বাংলাদেশ দূতাবাস। তাই বিদেশে এ পর্যন্ত কতজন বাংলাদেশীকে দাফন করা হয়েছে তার কোনো সঠিক হিসেব পাওয়া যায়নি। বিভিন্ন দেশের বাংলাদেশ দূতাবাসে যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু ওইসব দেশে কতজন বাংলাদেশীকে দাফন করা হয়েছে তার কোনো হিসেব তারা দিতে পারেননি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েও এইসব তথ্য রাখার মতো কোনো আলাদা ডেস্ক নেই বলে জানা গেছে। বাংলাদেশ সরকারের প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ ওয়েজ আনার্স কল্যাণ বোর্ডের পরিসংখ্যানে জানা গেছে, প্রতি বছরই প্রবাসে বাংলাদেশীদের মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। তাদের হিসেবে ২০০৫ সালে বিদেশে মারা গেছেন ১২৪৮ জন। ২০০৬ সালে এর সংখ্যা আরো ২শ জন বেড়ে দাঁড়ায় ১৪০২ জন। তারপর ২০০৭ সালে ১৬৭৩ জন, ২০০৮ সালে ২০৯৮ জন, ২০০৯ সালে ২৩১৫ জন, ২০১০ সালে ২৫৬০ জন।

গত চার বছরে প্রবাসে মৃত্যুর সংখ্যা আগের হিসেবের দ্বিগুণ। ২০১১ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত চার বছরে বিদেশে মারা গেছেন ১১ হাজার ৮শ ৭৪ জন। এর মধ্যে ২০১১ সালে মারা গেছে ২৫৮৫ জন। ২০১২ সালে ২৮৭৮ জন, ২০১৩ সালে ৩০৭৬ জন এবং ২০১৪ সালে মারা গেছে ৩৩৩৫ জন। আর চলতি বছর এপ্রিল মাস পর্যন্ত ১হাজার ২শ ১১জনের মরদেহ দেশে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

পরিসংখ্যানে জানা যায়, স্বাভাবিক মৃত্যুর বাইরে সড়ক দূর্ঘটনা, কর্মক্ষেত্রে দূর্ঘটনা, অগ্নিকান্ড, আত্মহত্যা এমনকি প্রবাসে বাংলাদেশীরা খুনের ঘটনারও শিকার হচ্ছেন। এছাড়া বিভিন্ন অপরাধে ৪৭টি দেশে ৭৮ জন বাংলাদেশীকে ওইসব দেশের আদালতের রায়ে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া মানবিক কারণে ২৯ জনের মৃত্যুদন্ড রহিত করে তাদের অন্য দন্ড দিতে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানা গেছে।

জানা যায়, প্রবাসে বাংলাদেশী মৃত্যুর তালিকায় শীর্ষে আছে সৌদি আরব। এরপরের অবস্থানে মালয়েশিয়া। তবে থাইল্যান্ড সীমান্তে মানব পাচারকারীদের হাতে নিহত বাংলাদেশীদের সঠিক হিসেব এবং শত শত গণকবরে বাংলাদেশীদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেলে সৌদি আরবকে পেছনে ফেলে উক্ত তালিকায় এক নম্বরে চলে যেতে পারে মালয়েশিয়া কিংবা থাইল্যান্ড। গত কয়েক বছরে বিদেশ থেকে যত লাশ এসেছে তার প্রায় ৬৫ ভাগ লাশ এসেছে সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, আরব আমিরাত, ওমান, কুয়েত থেকে। ২০০৯ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত গত ছয় বছরে শুধু সৌদি আরব থেকেই বাংলাদেশে প্রবাসীদের মরদেহ পাঠানো হয়েছে ৪ হাজার ৩শ ৩ জনের।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ওয়েজ আনার্স কল্যাণ বোর্ড প্রবাসী শ্রমিকদের মরদেহ দেশে পাঠানোর খরচ বহন করে থাকে। ওই বোর্ডের দেয়া তথ্য মতে ১৯৯৩ সাল থেকে সর্বমোট ২১ হাজার ২২৯ জনের মরদেহ দেশে পাঠানো বাবদ ৫৮ কোটি ৯৮ লাখ ৭৮ হাজার টাকা ব্যয় করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া ৯ হাজার ৭শ ৫৪ জন শ্রমিকের পরিবার ক্ষতিপূরণ বাবদ ওই বোর্ডের তহবিল থেকে অনুদান পেয়েছে। আমলাতান্ত্রিক জটিলতা, প্রশাসনিক ধীর গতি, হয়রানিসহ নানা কারণে বেশির ভাগ শ্রমিকের পরিবার ক্ষতিপূরণ পায়নি বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা