মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দক্ষতা ও আর্থিক সক্ষমতায় শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

news-image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিভিন্ন দেশের সরকারগুলোর দক্ষতা ও তাদের অর্থনৈতিক কার্যক্রমের সফলতার ভিত্তিতে বৈশ্বিক প্রতিযোগিতা সক্ষমতা নিয়ে একটি র্যাংকিং প্রকাশ করেছে সুইজারল্যান্ডের বিজনেস স্কুল আইএমডি। শক্তিশালী আর্থিক খাত, অবকাঠামো খাতে দক্ষতা ও উদ্ভাবনে প্রবল প্রণোদনার জন্য তালিকার শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তালিকার শীর্ষ দশে যথারীতি উন্নত বিশ্বের অবস্থান হলেও এশিয়ার দেশগুলোর ফলাফল ছিল মিশ্র।

‘২০১৫ ওয়ার্ল্ড কম্পিটিটিভনেস র্যাংকিং’ শিরোনামের এ তালিকা প্রণয়নে ৬১টি দেশের সার্বিক অর্থনীতির নানা খাতকে বিবেচনা করেছে আইএমডি। এ প্রসঙ্গে আইএমডি ওয়ার্ল্ড কম্পিটিটিভনেস সেন্টারের পরিচালক অধ্যাপক আরটুরো ব্রিস বলেন, ‘এ তালিকার একটি প্রাথমিক বিশ্লেষণ হচ্ছে, শীর্ষস্থানীয় অর্থনীতিগুলো তাদের মৌলিক ভিত্তির প্রতি নজর বৃদ্ধি করেছে। প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান চালিকাশক্তি হচ্ছে উত্পাদনশীলতা ও দক্ষতা বৃদ্ধি করা। নিজেদের কার্যক্রমের মাধ্যমে পরিবেশের ওপর প্রভাব যথাসম্ভব কমাতে ও সাংগঠনিক কাঠামো আরো মজবুত করতে এসব দেশের কোম্পানিগুলো প্রতিনিয়ত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।’

তালিকায় সুইজারল্যান্ডকে চতুর্থ অবস্থানে ঠেলে দিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে যথাক্রমে হংকং ও সিঙ্গাপুর। শীর্ষ দশের বাকি রাষ্ট্রগুলো হলো— কানাডা (৫), নরওয়ে (৭), ডেনমার্ক (৮), সুইডেন (৯) ও জার্মানি (১০)। গত বছর ১১তম স্থানে থাকলেও এ বছর ষষ্ঠ স্থানে উঠে এসেছে লুক্সেমবার্গ।

তবে মিশ্র অবস্থায় রয়েছে এশিয়ার দেশগুলো। মালয়েশিয়া (১২ থেকে ১৪), জাপান (২১ থেকে ২৭), থাইল্যান্ড (২৯ থেকে ৩০) ও ইন্দোনেশিয়া (৩৭ থেকে ৪২) তালিকায় পিছিয়ে পড়েছে। অন্যদিকে কিছুটা এগিয়েছে তাইওয়ান (১৩ থেকে ১১), দক্ষিণ কোরিয়া (২৬ থেকে ২৫) ও ফিলিপাইন (৪২ থেকে ৪১)। এশিয়ার যেসব দেশ পিছিয়ে পড়েছে, তাদের প্রায় সবারই অর্থনীতি ও অবকাঠামো খাতে কার্যক্রমের সংকোচন ছিল লক্ষণীয়।

এশিয়ার মতোই এগিয়েছে পূর্ব ইউরোপের অর্থনীতিগুলো। পোল্যান্ড (৩৬ থেকে ৩৩), চেক রিপাবলিক (৩৩ থেকে ২৯) ও স্লোভানিয়া (৫৫ থেকে ৪৯) এগিয়েছে সামনের দিকে। তবে বাল্টিক অঞ্চলের দেশগুলো পিছিয়েছে। ওদিকে রাশিয়া (৩৮ থেকে ৪৫) ও ইউক্রেনের (৪৯ থেকে ৬০) পতন দেখে বোঝা যায়, চলমান ভূরাজনৈতিক সংকটে দেশ দুটির প্রতিযোগিতা সক্ষমতা কতটা পতনের দিকে রয়েছে।

পতনের ধারা লক্ষ করা গেছে লাতিন আমেরিকায়ও। চিলি (৩১ থেকে ৩৫), পেরু (৫০ থেকে ৫৪) ও আর্জেন্টিনা (৫৮ থেকে ৫৯) ক্রমাগত নিচের দিকেই যাচ্ছে। আর ভেনিজুয়েলা তো রয়েছে তালিকার একদম সবার নিচে।বৃহত্তর অর্থনীতিগুলোর মধ্যে ব্রাজিল (৫৪ থেকে ৫৬) ও দক্ষিণ আফ্রিকা (৫২ থেকে ৫৩) কিছুটা পিছিয়েছে। তবে চীন (২৩ থেকে ২২) ও মেক্সিকো (৪১ থেকে ৩৯) এগোতে পেরেছে। অন্যদিকে ৪৪তম অবস্থানেই অপরিবর্তিত আছে ভারত। এ প্রবণতার মাধ্যমে বোঝা যাচ্ছে, উদীয়মান অর্থনীতিগুলো পুনরুদ্ধারে এখনো হিমশিম খাচ্ছে। শিক্ষা ও সরকারি ব্যয় বাড়ানোর ফলে তালিকায় কিছুটা অগ্রগতি দেখাতে পেরেছে চীন। অন্যদিকে স্থানীয় অর্থনীতির গতি ব্যাহত হওয়ায় পিছিয়েছে ব্রাজিল।এছাড়া আলাদাভাবে ব্যবসায় খাতে দক্ষতা নিয়ে প্রণীত একটি তালিকায় শীর্ষ দশে আছে প্রতিযোগিতা সক্ষমতা তালিকার শীর্ষ নয়টি দেশ। অধ্যাপক ব্রিস বলেন, ‘সহজভাবে বলতে গেলে, ব্যবসায় দক্ষতার সঙ্গে একটি অর্থনীতির সার্বিক উত্পাদনশীলতা ও প্রতিযোগিতা সক্ষমতা সম্পর্কযুক্ত। শ্রমবাজার, আর্থিক কাঠামো, ব্যবস্থাপনা প্রথা ও ব্যবসায় পরিবেশের ওপর ভিত্তি করে ব্যবসায় খাতে দক্ষতা নিরূপণ করা হয়েছে।’

প্রতিযোগিতা সক্ষমতার তালিকায় সবচেয়ে বেশি এগিয়েছে লুক্সেমবার্গ (১৪ থেকে ৪)। এছাড়া ব্যবসায় খাতে দক্ষতা বাড়িয়ে এ তালিকায় ১৯ থেকে ১৩তম অবস্থানে চলে এসেছে কাতার। জার্মানি, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইন্দোনেশিয়ার পতনও ব্যবসায় খাতে দক্ষতা বৃদ্ধিতে ব্যর্থতার কারণ।

এ জাতীয় আরও খবর