রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

একটি আহত প্রাণীর জন্য

news-image

অন্যরকম ডেস্কপ্রাণীটি তার নিরাপদ দিনের আশ্রয় ছেড়ে কিছুটা এগিয়ে ঢালু বেয়ে উঠেছিল পিচের রাস্তাটির পাশে। পথটা সে পাড়ি দেবে আড়াআড়িথ ঢুকবে ওপাশের বিশাল গ্রামীণ বনটিতে। নিশাচর সে, রাতভর চরে হেঁটে বেড়াবে মাঠ-বাগান-খালপাড়ে। ভোর হওয়ার আগেই ফিরবে দিনের এই আস্তানাটাতে। তার পর দিনভর ঘুম আর ঝিমুনি।
ডান দিকথ বাগেরহাটের দিক থেকে মধ্যম গতিতে ছুটে আসছে একখানা মাঝারি মানের বাস। ওদিকে তাকাতেই প্রাণীটির চোখে বাসের হেডলাইটের জোরালো ফোকাস সরাসরি পড়তেই চোখে কেমন যেন একটা ধন্ধ লেগে গেল। তবুও সে দিল দৌড় রাস্তাটি পার হওয়ার জন্য, টাইমিং হলো নাথ বাসটা আঘাত করল প্রাণীটির ডান পাশটাতেথ ছিটকে পড়ল রাস্তার পাশে। ছাগল চাপা দিয়েছে ভেবে বাসটি দ্রুতবেগে চলে গেল ফকিরহাটের দিকেথ চাই কি, শেষ স্টপেজ খুলনার রূপসা পর্যন্ত চলে যাবে জরিমানা ও পিটুনির ভয়ে। ছাগল চাপা দেওয়া বলে কথা!
পিচের রাস্তাটির দক্ষিণ প্রান্তে সাতশৈয়া গ্রাম। উত্তর পাশে বারাশিয়া গ্রাম। রাস্তাটি পূর্ব দিকের বাগেরহাট থেকে মোটামুটি সরলরেখায় এসে সোজা চলে গেছে পশ্চিমেথ ফকিরহাট, বাহিরদিয়া, সামন্তসেনা, কর্ণপুর, তার পরে রূপসা। দূরত্ব ৩২ কিলোমিটার। এককালে এ রাস্তাটির সমান্তরালেই ছিল রেলপথ। দক্ষিণের সাতশৈয়া থেকে সরু যে পিচপথটি এই পিচের
রাস্তাটাতে এসে মিশেছে, ওখানেই ছোটখাটো চায়ের দোকান কয়েকটা। দোকানের সামনে বসে আড্ডা দিচ্ছিল জনাকয়েক কিশোর-তরুণ। বাসটি যে কোনো প্রাণীকে ধাক্কা দিয়েছে, তা টের পেয়েই দৌড়ে ওরা সামনে এগোলোথ বড়সড় খাটাশটি পড়ে আছে কাত হয়ে। চোখ বোজা, রক্তে ভেসে যাচ্ছে প্রাণীটির মাথার ডান পাশটা। ডান চোয়ালটা বুঝি গুঁড়োই হয়ে গেছে, রক্ত বেরোচ্ছে। প্রকৃতি ও প্রাণিপ্রেমী কিশোর-তরুণ নূর ইসলাম, মিরাজ, লিয়াকত, সজল, শান্ত, তরিকুল, সুজন, রাহুল, শফিক ও সোহেল মিলে ধরাধরি করে প্রাণীটিকে সরিয়ে নিল নিরাপদ জায়গায়। সবাই-ই মনে করল, তাদের এক অতি আপনজন অ্যাক্সিডেন্টে আহত হয়েছে। যেভাবেই হোক, বাঁচাতে হবে প্রাণীটিকে; প্রয়োজনে নিতে হবে ফকিরহাট হাসপাতালে। অনেকেই শরীর টিপেটুপে, গা টেনেটেনে, চোয়াল ফাঁক করে ও পাঁজর চেপেচেপে বুঝে নিল আঘাতটা কতটা গুরুতর। না, শুধু ডান চোয়ালটা একটু থেঁতলে গেছেথ ভেঙে গেছে ডান চোয়ালের একটি দাঁত, তা ছাড়া শরীরের বড় কোনো ক্ষতি হয়নি। নিশাচর প্রাণী। দিনভর পানিও খায়নি। অতএব, ওই তরুণ-কিশোররা পানি খাওয়াল, গা-শরীর মাথা ম্যাসাজ করল, পা চারখানা টেনেটুনে দিল। এ সময় ওখানে উপস্থিত হলেন একটি হাইস্কুলের সিনিয়র শিক্ষকথ বাংলাদেশ ওয়াইল্ড লাইফ ক্লাবের অন্যতম কর্ণধার শেখ মোস্তাহিদ সুজা। তিনি মোবাইলে যোগাযোগ করলেন ঢাকায়থ বন্যপ্রাণী গবেষক-লেখক ও সর্বোপরি বন্যপ্রাণী চিকিৎসক প্রফেসর ড. আ ন ম আমিনুর রহমানের সঙ্গে। তিনি কিছু পরামর্শ দিলেন, ওষুধের কথাও বললেন। তার পর ঘণ্টাখানেক যাওয়ার পর প্রাণীটি প্রথমে চোখ খুলল, মানুষ দেখে ঘাবড়ে গিয়ে দ্রুত উঠে দাঁড়াতে গিয়ে কাত হয়ে পড়ল আবার, সরে এলো উল্লাসধ্বনি দিয়ে কিশোর-তরুণরা। প্রাণীটি কিছুক্ষণ পড়ে রইল চুপচাপ। তার পরে টলতে টলতে উঠে দাঁড়ালথ দাঁড়িয়েই রইল কিছুক্ষণ। এর পরে সেই পিচের রাস্তাটাই আড়াআড়ি পাড়ি দিয়ে পড়ল গিয়ে ওপাশের বাগানটিতেথ ওটাতেই তো সে যেতে চেয়েছিল। একটি প্রাণীকে বাঁচাতে পেরে কিশোর-তরুণদের বুকের ভেতরে কী রকম অনাবিল শান্তির ঢেউ যে বয়ে গেল! ঢাকায় বসে খবর পেয়ে আমার মনটাও প্রশান্তিতে ভরে উঠল। সাতশৈয়া আমার গ্রাম। ওই গ্রাম তো বটেইথ আমার বাল্য-কৈশোরে খাটাশ ছিল আমাদের নিত্যপ্রতিবেশী, প্রতি রাতেই দেখা হতো ওদের সঙ্গে। বৃহত্তর খুলনা জেলায় তখন এমন কোনো গ্রাম ছিল না, যে গ্রামের বন-বাগানে দু-পাঁচজোড়া খাটাশ ছিল না। তখন মানব বসতি ছিল কম, বন-বাদাড় ছিল বেশিথ ছিল অনেক পতিত জমি ও ভিটা। ৫০ বছর পরে অবস্থা পাল্টে গেছে। ওদের আশ্রয়স্থল নেই-ই বলতে গেলে। কালেভদ্রে চোখে পড়ে আজকাল। তবুও টিকে আছে ওরা অস্তিত্ব সংকটের বিরুদ্ধে প্রচ- লড়াই করে। খুলনা-বাগেরহাট-পিরোজপুরসহ অন্যান্য অঞ্চলে ওদের আরও টিকে থাকার প্রধান কারণ অনেক পানের বরজ, গ্রামীণ বাগান ও পারিবারিক পুরনো ইটের পাঁজায় দুর্গের মতো আশ্রয় থাকা। খাদ্যাভাব এখনও নেই। মানুষের অকারণে মারার প্রবণতা আজও প্রবলথ শত্রু ভেবেও মারা হয়। কেননা, এদের খাদ্য তালিকায় গেরস্থের পোষা দুর্বল ছাগল, ছাগলছানা, রাজহাঁস, পাতিহাঁস, মুরগি রয়েছে। সে রকম সংকট-সন্ধিক্ষণে বারাশিয়া গ্রামের এই দশজন প্রাণিপ্রেমী যে মহৎ কাজটি করেছেন, তা একটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। ওরাও চেনে-জানে প্রাণীটিকে, স্বভাব-চরিত্র সম্পর্কে ধারণাও আছে কিছু। কিন্তু ওরা ডিজিটাল যুগের ছেলে। ওরা জানে প্রকৃতির জন্য, প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার জন্য একটি বন্যপ্রাণী টিকে থাকা কতটা জরুরি। ওরা এ-ও জানে, এই প্রাণী ক্ষতির চেয়ে উপকার করে কয়েকশ’ গুণ বেশি। ধানক্ষেত-আখক্ষেতসহ অন্যান্য ফসলের ক্ষেতের বিধ্বংসী ধেনোইঁদুর-মেঠোইঁদুরসহ পোকা-পতঙ্গ খেয়ে এরা কৃষকদের মহা উপকার করেথ এগুলোই ওদের প্রধান খাদ্য। এরা মেঠোশামুকের মাংস খায়, লম্বা বড় শামুকের মাংস খায় বিশেষ কৌশলে শক্ত খোলা ভেঙে। এই প্রাণীকে নিয়ে লেখা একটি বই বেরোবে আমার আগামী বইমেলায়। তাতে খুঁটিনাটি তথ্যসহ প্রাণীটি সম্পর্কে বিস্তারিত পাওয়া যাবে।
প্রাণীটি বাগেরহাটে পরিচিত ‘খাটাশ’ নামে। অনেকেই বলে গোইলো (বাগেরহাট অঞ্চলে গোইলোর অর্থ হলো কালা বা কম কানে শোনা), এদের কাছ থেকে ধাওয়া দিলে বা হৈচৈ করলেও এরা ফিরে তাকায় না। তাই মনে করা হয়, কানে শোনে না এরা অথবা কম শোনে, তাই এই নাম। আসলে কানে মোটেই কম শোনে না। এরা জেদি, সাহসী, লড়াকু এবং এদের ভেতরে আছে একটা ডোন্ট কেয়ার ভাব। বাগডাশও বলা হয় ফকিরহাট-বাগেরহাটে। ইংরেজি নাম খধৎমব রহফরধহ পরাবঃ, বৈজ্ঞানিক নাম ঠরাবৎৎধ ুরনবঃযধ। শুধু শরীরের মাপ ৮০ সেন্টিমিটার। লেজটির মাপ ৪৫ সেন্টিমিটার। ওজনে সর্বোচ্চ ২০-২৫ কেজি পর্যন্ত হতে পারে। উচ্চতায় পোষা গ্রামীণ কুকুরের সমান প্রায়। এদের খাদ্যতালিকায় আরও আছে ব্যাঙ, ঝরে পড়া বিভিন্ন রকম ফল, পাখি ও পাখির ডিম ও ছানা, বড় বড় পোকাপতঙ্গ।
এদের বেশ কয়েকটি অনিবার্য স্বভাব আছে। এরা মলত্যাগ করবে নির্দিষ্ট একটা জায়গায়থ যেটাকে বলা যায় খাটাশের ল্যাট্রিন বা টাট্টিখানা। হয়তো দূরে আছে, বেগ চেপেছে দারুণ, তখন দ্রুত ছুটবে টাট্টিখানার দিকে, যদি অবস্থা হয় গড়গড়থ ধরে রাখা কঠিন, তাহলে শুকনো লতাপাতা, বিশেষ করে বাঁশপাতা বা শুকনো ঘাস গোল করে পাকিয়ে মলদ্বারে গুঁজে দেবে সামনের দু’পায়ের আঙুল দিয়ে (হ্যাঁ, এরা সামনের পা দু’খানা অনায়াসে হাতের মতো ব্যবহার করতে পারে, ক্যাঙ্গারুর ভঙ্গিতে উঁচু হয়ে দাঁড়াতেও পারে)। এদের সম্পর্কে আরেকটি মজার তথ্য হচ্ছে, মেয়ে-পুরুষ উভয় খাটাশেরই পশ্চাদ্দেশে, লেজের গোড়ার তলায় ছোট একটা গ্রন্থি থাকে, যা থেকে সুগন্ধযুক্ত আঠালো রস বেরোয়। এর নাম সিভেট সেন্ট বা খাটাশ-সুগন্ধি। নামিদামি সুগন্ধিসামগ্রী নির্মাণে ব্যবসায়িক ভিত্তিতে এটি ব্যবহৃত হয়। পাশাপাশি আছে দুর্গন্ধি গ্রন্থি, যেটা থেকে বিপদের সময় এরা উৎকট দুর্গন্ধ-রস পেছন দিকে স্প্রে করেথ এভাবে পেছনে ধাবমান, বিশেষ করে কুকুরকে এরা সাময়িকভাবে অন্ধ করে দেয়।
বছরে কমপক্ষে দু’বার বাচ্চা দেয় এরা। বাচ্চা হয় সাধারণত তিনটি। পাঁচটি পর্যন্তও হয়। বাচ্চারা হয় কুচকুচে কালো রঙের, তাতে ছাইয়ের আভা থাকে। পূর্ণাঙ্গ খাটাশ ছাই-ধূসর রঙের, তাতে হালকা হলদেটে আভা জড়িয়ে থাকতে পারে, তার ওপরে চওড়া সাদা-কালো ডোরার জন্য প্রাণীটিকে ভয়ঙ্করই দেখায়। আদতে নিরীহ স্বভাবের প্রাণী এরা।
আহত সেই খাটাশটি সুস্থ আছে, ভালো আছে। দিনের আশ্রয় সে একই জায়গায় নিচ্ছে। বাঁ পাটা সামান্য টেনে হাঁটে। প্রকৃতিই ওটা ঠিক করে দেবে। ভালো থাকুক ও। এই প্রাণীটিকে কমবেশি সারাদেশেই দেখা যায়। কমে যাচ্ছে দ্রুত অনিবার্য কারণে। মানুষের ভালোবাসাই টিকিয়ে রাখতে পারে এই উপকারী প্রাণীটিকে।

এ জাতীয় আরও খবর

‘দাদাগিরি’র গ্র্যান্ড ফিনালেতে নাচলেন সৌরভ-ডোনা

ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের শাস্তিযোগ্য বদলি প্রয়োজন: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

আমি কোন সার্জারি করিনি, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা: সাফা কবির

বড় পরিবর্তন আসছে এনটিআরসিএতে, থাকছে না নিবন্ধন পরীক্ষা

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত

বজ্রপাতে মাঠেই পুড়লো কৃষকের ধান

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবনে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি’

নওগাঁয় ঝরে পড়া আম বিক্রি হচ্ছে ২ টাকায়

সিভিল কেস ‘বেগুন ক্ষেতের মতো’, এটা পরিবর্তন করতে হবে

‘পানি সংকটে’ রাজশাহীতে কমেছে গমচাষ

ভোটগ্রহণের দিনে নির্বাচন স্থগিতের নির্দেশ আদালতের

তালাক দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আপত্তিকর’ ছবি ফাঁস করলেন স্বামী