শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রেসিপিঃ ইলিশ বাদাম পোস্ত (এক্সক্লুসিভ)

news-image

P1270882

সাহাদাত উদরাজী: রেসিপি লাভার্স বন্ধুদের শুভেচ্ছা জানিয়ে আজকে আমাদের এই এক্সক্লুসিভ রেসিপি পোষ্ট করতে যাচ্ছি। এই সিরিজের রেসিপি গুলো এক্সক্লুসিভ বলার কারন এই যে, এই রেসিপি গুলো অন্যান্ন রেসিপি থেকে একটু আলাদা থাকবে, মশলা ভেজষে নূতনত্ব থাকবে, স্বাদ ঘ্রান সব কিছু মিলিয়ে আরো মজাদার হবে। প্রায় ৮০০ রেসিপি পোষ্ট হয়ে গেছে, এখন কিছু এই ধরনের রেসিপি আশা করি আপনাদের আরো আনন্দ দিতে সক্ষম হবেই। যারা রান্না ভাল জানেন এই সিরিজের রেসিপি গুলো তাদের কাছেও ভাল লাগবে।

আজকের এই রেসিপি, ইলিশ মাছ দিয়ে তবে আগেই বলে নেই এই ইলিশ মাছটা উপহার হিসাবে পাওয়া। রান্না না করে আমাদের বড় আপা সরাসরি এই মাছটা পাঠিয়েছেন, আমাদের ইচ্ছানুযায়ী রান্না করে খাবার জন্য। রান্না করার আগেও ধন্যবাদ, খেয়ে মজা পেয়েও উনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে দিলাম। প্রায় এক কেজির বড় এই ইলিশ মাছের জন্য আবারো ধন্যবাদ।

আর একটা কথা না বলেই নয়, এই এক্সক্লুসিভ রেসিপি গুলো আপনাদের জন্য চিন্তা এবং গবেষনার দায়িত্বে আছেন আমার সহধর্মিনী জনাবা ব্যাটারী! তিনি এই রেসিপি গুলোতে বিশেষ কাজ দেখাবেন বলে আমাকে জানিয়েছেন। রেসিপি গুলো ভাল লাগলে, উনার কৃতিত্ব বেশী থাকবে। তিনি ভাল রান্না করেন, আমার রান্না শেখার মাষ্টার তিনিই। রান্নাঘরে আমরা এখনো এক সাথে কাজ করি, এটা এক ধরনের আনন্দ, ভালবাসা বাড়ে। ঝগড়া ঝাটি যাই করি আবার রান্নাঘরে এক হয়ে যাই! হা হা হা, তবে আমার অভিজ্ঞতায় বলি, স্বামীদের রান্নাঘরে টিকে থাকা সহজ কর্ম নয়, স্ত্রীরা সুযোগ এবং সহজভাবে মেনে না নিলে এক বেলার জন্যও টিকে থাকা সম্ভব নয়। দুই পক্ষের চেষ্টায় ভাল কিছু হয়, এটাই বাস্তবতা!

চলুন, আজকের রেসিপি দেখে নেই। তবে আমাদের জাতীয় মাছ ইলিশ এমন একটা মাছ যে, পুড়িয়েও পেটে চালান দেয়া যায়, এত অদ্ভুত স্বাদের মাছ দুনিয়াতে আর আমি দেখি নাই (আমার অভিজ্ঞতা হয়ত কম)। সিম্পলি আমি বলবো, আই লাভ ইলিশ!

উপকরন ও পরিমানঃ (১ টুকরা এক জন!)
– ইলিশ মাছের কয়েক টুকরা (আমরা ৫ টুকরা নিয়েছিলাম, সাইজ একটু বড় করে কাটা হয়েছিল)
– বাদাম বাটা, দুই টেবিল চামচ
– পোস্ত দানা বাটা, দুই চা চামচ
– পেঁয়াজ বাটা, তিন টেবিল চামচ
– আদা বাটা, এক টেবিল চামচ
– রসুন বাটা, এক টেবিল চামচ
– কাঁচা মরিচ বাটা, এক টেবিল চামচ
– হলুদ গুড়া, হাফ চা চামচ
– কাঁচা মরিচ, আস্ত, কয়েকটা
– লবন, পরিমান মত, দুই ধাপে
– তেল, হাফ কাপ কম বেশি
– পানি, পরিমান মত (ঝোল কেমন রাখবেন তা আপনি নিজেই আন্দাজ করুন)

অফশন্যালঃ
– দুই চিমটি চিনি
– ধনিয়া পাতার কুঁচি (আপনার ইচ্ছা মত)

প্রনালীঃ
মাছ প্রিপারেশনঃ

মাছ কেটে ধুয়ে নিয়ে সামান্য হলুদ ও সামান্য লবন দিয়ে মেখে নিন।


সামান্য তেলে মাছ গুলো ভেঁজে নিন, বেশী ভাঁজা নয়, অল্প।


এক পিট হয়ে গেলে অন্য পিট উল্টে দিন।


এবার মাছ গুলো তুলে রাখুন।

মশলা প্রিপারেশনঃ

মশলা ও ভেজষ আগেই রেডি করে রাখা উত্তম।

মুল রান্নাঃ

কড়াইতে (যে পাত্রে মাছ ভেজেছেন সেই পাত্রে আরো কিছু তেল দিয়ে) তেল দিয়ে তাতে সব মশলা ও সামান্য লবন দিন।


আগুন মাঝারি আঁচে, ভাঁজুন।


ভাঁজুন।


ঘ্রান বের হলে, এবার হাফ কাপ পানি দিন।


ভাল করে মিশিয়ে নিন, এই রকম দেখাবে।


আগুন মাধ্যম আঁচে থাকবে, ঢাকনা দিন। ভাল করে কষিয়ে নিতে হবে, চুলার ধার ছেড়ে যাবেন না, মাঝে মাঝে নাড়িয়ে দিতে হবে। (এই অবস্থায় দুই চিমটি চিনি দিতে পারেন, স্বাদ বাড়বে, না দিলেও স্বাদ কম্বে না!)


ঝোল কিছুটা গাঢ় হলে মাছ গুলো দিয়ে দিন। আস্ত মরিচ দিন।


ঢাকনা দিয়ে অল্প আঁচে রাখুন। মাছে মশলা লাগুক, অপেক্ষা করুন।


কিছুক্ষন পরেই এমন হয়ে যাবে, ফাইন্যাল লবন দেখুন, লাগলে দিন, না লাগলে ‘ওকে’ বলে আগে বাড়ুন।


ঝাল চাইলে আরো কয়েকটা মরিচ চিরে দিতে পারেন, ইচ্ছা।


ব্যস, পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।


অনেকে ইলিশের রান্নায় ধনিয়া পাতার কুঁচি পছন্দ করেন না তবে যারা ধনিয়া পাতা পছন্দ করেন তাদের জন্য এটা শেষ সুযোগ, হাঁড়িতে সামান্য ঝোল থাকলে তাতে ধনিয়া পাতার কুঁচি দিন এবং মিশিয়ে পরিবেশিত বাটিতে ঢেলে দিন। ব্যস হয়ে গেল। এটা একটা চরম বুদ্ধি বটে!


এই নিন একদম ফাইন্যাল পরিবেশনা।


সাদা ভাত কিংবা পোলাউ দিয়ে আপনি পরিবেশন করতে পারেন।  আমরা সাদা ভাতের সাথে খেয়েছি। স্বাদ বলে বুঝাতে পারবো না! শুধু ঝোল দিয়েই এক প্লেট সাবাড় করে দেয়া গেছে!

সবাইকে শুভেচ্ছা। আমরা আসছি আরো আরো নুতন মজাদার রান্না নিয়ে আমাদের সাথে থাকুন।

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন