শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পানিতেই টাকা ফেলল পানি উন্নয়ন বোর্ড!

news-image

ডেস্ক রির্পোট : কাজ শেষ করার পর বছরের পর বছর ঘুরেও যেখানে প্রাপ্য অর্থ মেলে না ঠিকাদারদের, সেখানে কাজের বরাদ্দের তুলনায় অতিরিক্ত অর্থ পরিশোধ করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। এ ক্ষেত্রে প্রধান প্রকৌশলীর অনুমতি নেয়ারও প্রয়োজন মনে করেননি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। শুধু তাই নয়, কাজ সম্পাদনের ক্ষেত্রে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশও উপেক্ষা করা হয়েছে। নি¤œমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ সারলেও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে তড়িঘড়ি করে অর্থ ছাড় করে দেয়া হয়েছে। নিজেদের স্বার্থ রক্ষায় এভাবেই সরকারি টাকা জলে ফেলার আয়োজন সম্পাদন করেছেন সংশ্লিষ্টরা।
জাতীয় সংসদে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত সরকারি হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে মহাহিসাব নিরীক্ষকের উপস্থাপিত প্রতিবেদনে এ সব তথ্য তুলে ধরা হয়। কমিটি দায়ী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অনধিক তিন মাসের মধ্যে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে কমিটিকে অবহিত করতে বলা হয়।
পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ২০০৮-২০০৯ অর্থ বছরের হিসাব সংক্রান্ত এ প্রতিবেদনে বলা হয়, মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অনুসরণ না করে নদীর তীর সংরক্ষণ কাজে বোল্ডার ও বালি ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলার কারণে ৩৬ লাখ ২৯ হাজার ৬৪৫ টাকা রাজস্ব ক্ষতি হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা করে নির্মাণ সামগ্রীর গুণগতমান নিশ্চিত না করে অর্থ পরিশোধ করার মাধ্যমে বোর্ডের ৭৭ লাখ ৭৯ হাজার ৮৪৫ টাকা আর্থিক অপচয়, মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা করে মান নিয়ন্ত্রণ ও ডাম্পিং কমিটির উপস্থিতিতে সিসিব্লক পানিতে নিক্ষেপ না করা সত্ত্বেও ঠিকাদারকে সিসি ব্লকের মূল্য পরিশোধ করায় ৩১ লাখ ৫৫ হাজার ৬২০ টাকা অপচয়, প্রধান প্রকৌশলী অনুমোদিত খনন কাজের প্রাক্কলনের মঞ্জুরির তুলনায় ঠিকাদারকে অতিরিক্ত খনন মূল্য পরিশোধ করায় ২৮ লাখ ৩৫ হাজার ৪৮০ টাকা ক্ষতি এবং সেচকর বাবদ আদায়কৃত অর্থ হতে ভাউচারের মাধ্যমে ৩৬ লাখ ৭৫ হাজার ৮১৭ টাকা ব্যয় দেখিয়ে আর্থিক ক্ষতি করা হয়েছে।
এ ছাড়া পাউবো’র সেচকর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ব্যর্থতাজনিত কারণে বোর্ডের ৪ কোটি ১৭ লাখ ৫৪ হাজার ৪৯৪ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। একইসঙ্গে কাজ সম্পাদনে ব্যর্থ ঠিকাদারদের পারফরম্যান্স সিকিউরিটি বাজেয়াপ্ত না করায় বোর্ডের আরও ১ কোটি ৬১ লাখ ৮৫ হাজার ৫০০ টাকা ক্ষতির বিবরণও তুলে ধরেছে সিএন্ডএজি অফিস। কমিটি দায়ীদের চিহ্নিত করে অনধিক তিন মাসের মধ্যে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে সিএজির মাধ্যমে কমিটিকে অবহিত করার সুপারিশ করে।
এদিকে, পাউবো’র ফরিদপুর অফিসের অনিয়মও তুলে ধরা হয়েছে প্রতিবেদনে। এতে বলা হয়েছে, নির্বাহী প্রকৌশলী, পাউবো ফরিদপুর অফিসে রেসপনসিভ ১ম সর্বনি¤œ দরদাতার দরপত্র গ্রহণ না করে ৪র্থ সর্বনি¤œ দরদাতার দর গ্রহণ ও চুক্তি সম্পাদন করা হয়েছে। এতে সরকারের ১ কোটি ১১ লাখ ২৯ হাজার ১১৪ টাকা ক্ষতি হয়েছে। কমিটি সিএজি কার্যালয়ে বিষয়টি স্পষ্টীকরণের জন্য পর্যালোচনাধীন থাকায় তাদের গৃহীত সিদ্ধান্তের আলোকে পরবর্তি বৈঠকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানা গেছে।
কমিটির সভাপতি ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীরের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মো. আব্দুস শহীদ, রেবেকা মমিন, মো. শামসুল হক টুকু, মঈন উদ্দিন খান বাদল, মো. রুস্তম আলী ফরাজী এবং ওয়াসিকা আয়েশা খান অংশ নেন। সিএন্ডএজি মাসুদ আহমেদ, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগ ও অডিট অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।