শুক্রবার, ২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাজা শেষ হলেও পাকিস্তানের কারাগারে ১১৭ বাংলাদেশি

news-image

আফগানিস্তানের মির আগা ও আব্দুল ওয়ালিকে অনুপ্রবেশের অভিযোগে এক বছরের সাজা দিয়েছিল পাকিস্তানের বেলুচিস্তান প্রদেশের আদালত। ২০১৩ সালে তাদের সাজার মেয়াদ শেষ হয়েছে কিন্তু নিজ দেশের বৈধ কোন কাগজপত্র না থাকায় তাদের দেশে ফেরত পাঠাতে পারছে না পাক সরকার। এ ছাড়া আফগান সরকারের পক্ষ থেকেও তাদের ফেরত নিতে আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না।

আফগানিস্তানের আগা ও ওয়ালির মতো আরো ৩০টি দেশের ৩৬২ জন অবৈধ নাগরিকের জেলের মেয়াদ শেষ হলে পাকিস্তানের সরকার তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে পারছে না। সাজাপ্রাপ্তদের নিজ দেশের সরকার তাদের ফেরত নিতে ভ্রমণ খরচ দিচ্ছে না। তাই মেয়াদ শেষ হলেও তারা কারাগারেই অবস্থান করছে।

এ বিষয়ে পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চৌধুরী নিসার আলী খান সম্প্রতি দেশটির সংসদে জানিয়েছিলেন, বিমানের টিকিট ও বৈধ কাগজপত্র না থাকায় মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও বিদেশিদের কারাগারে রাখতে হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে শিগরিই তাদের দেশে পাঠানো হবে বলে নিসার জানান। তবে মন্ত্রী নির্দিষ্ট কোন সময় নির্ধারণ করে দেননি।

পাকিস্তান পিপলস পার্টির আইনজীবী নওয়াবজাদা সাইফুল্লাহ মাগসি সংসদে বিদেশি নাগরিকদের বিষয়ে বিস্তারিত সমীক্ষা পেশ করেন। সমীক্ষা অনুযায়ী, পাকিস্তানের কারাগারে সব চেয়ে বেশি সংখ্যক বাংলাদেশের নাগরিক বন্দি সাজার মেয়াদ শেষ করে কারাগারেই অবস্থান করছে।

সমীক্ষায় বলা হয়েছে ১১৭জন বাংলাদেশি নাগরিক বিভিন্ন মেয়াদে সাজা ভোগ করে মেয়াদ শেষেও কারাগারে অবস্থান করছে। এছাড়া আরো ২৯টি দেশের নাগরিক আছে। বাকিদের মধ্যে আফগানিস্তানের ৫০ জন, ভারতের ৪১জন, নাইজেরিয়ার ৪০ জন, বৃটেনের ২৯ জন, মঙ্গোলিয়ার ১৫জন, জিম্বাবুয়ের ৮ জন , জাম্বিয়া ও নেপালের ৬জন করে। যুক্তরাষ্ট্রের ৫ জন, ফিলিপাইনের ৪ জন, তুরস্ক, মিয়ানমার, কেনিয়া ও আইভরি কোস্টের যথাক্রমে ৩ জন করে।

স্পেন, নরওয়ে, মালি ও ম্যাক্সিকোর ২জন করে। এছাড়া রাশিয়া, ইরাক, জার্মানী, ব্রুনাই, গাম্বিয়া, গিনি, কানাডা, ইরান,লাইবেরিয়া ও চীনের ১জন করে নাগরিক পাকিস্তানের কারাগারে মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও অবস্থান করছে বলে সমীক্ষায় বলা হয়েছে।

সিন্ধু প্রদেশের করাচি ও হায়দারাবাদের কারাগারে সর্বোচ্চ ২৬৭ জন বিদেশি বন্দি সাজার মেয়াদ শেষ করেও অবস্থান করছে। এছাড়া পাঞ্জাবের কারাগারে ৮২জন, বেলুচিস্তানে কারাগারে ১২জন, মাখের কারাগারে ৩জন আর কোয়েটা ও খাইবার পাকতোনখোয়া কারাগরে ১জন করে বন্দি সাজার মেয়াদ শেষ করে অবস্থান করছে।

পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বালিগ- উর-রেহমান বলেন, ‘আমরা এ অপরাধীদের নিজ নিজ দেশের দূতাবাসের সাথে যোগাযোগ করেছি কিন্তু সাজার মেয়াদ শেষ হলেও দেশে ফেরত নিতে কোন আগ্রহ দেখাচ্ছেনা দূতাবাসগুলো।’

সূত্র: এক্সপ্রেস ট্রিবিউন