বৃহস্পতিবার, ১৯শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খালেদার নিরাপত্তা নিয়ে সরকার বিপাকে

news-image

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া আদালতে যাওয়ার বিষয়টি সামনে আসলেই তার নিরাপত্তার বিষয়টি সামনে আনেন। নিরাপত্তা পেলে তিনি আদালতে হাজির হবেন বলে বার বার বলেন তার আইনজীবীরা। এই অবস্থায় সরকার তার জন্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করলে বিষয়টি স্বাভাবিকভাবে নেন না বলে সরকার এখন আর স্বেচ্ছায় তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে স্থায়ীভাবে পুলিশ দেওয়ার কথা ভাবছে না। এই জন্য খালেদা জিয়া ও বিএনপির বিভিন্ন নেতারাই দায়ী বলে অভিহিত করেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

তিনি বলেন, তার উপর নিরাপত্তার ঝুঁকি বিবেচনা করে সরকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করলে তার ও বিএনপির তরফ থেকে অভিযোগ করা হয় সরকার তার গতিবিধির উপর নজরদারি করছে। আবার সরকার যখন তার বাসার সামনে থেকে পুলিশ তুলে নেয় তখন বলে তিনি নিরাপত্তাহীন। সরকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না।
তিনি বলেন, তাদের এই ধরনের অভিযোগ মেনে নেওয়া যায় না। আমরা জানুয়ারি মাসেও তার নিরাপত্তা বিবেচনা করেই নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তার অফিসের সামনে পুলিশ দিয়েছিলাম। সেটা নিয়ে তারা নেতিবাচক প্রচারণা চালিয়েছে। যেই কয়দিন তার ঝুঁকি ছিল সেটা বিবেচনা করেই নিরাপত্তা দেওয়া হয়। কিন্তু এরপর পুলিশ তার অফিসের সামনে থেকে সরিয়ে নেওয়ার পরও তিনি অফিস ছাড়েননি। সেখানেই ছিলেন। ওই সময়ে আমাদের কাছে সুনির্দিষ্ট তথ্য ছিল বলেই নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এরপর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রচারণার সময়ে তার প্রতি ক্ষুব্ধ জনগণ ও ব্যবসায়ীরা প্রতিবাদ জানায়। গাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটায় প্রতিবাদীরা। ওই ঘটনার পর আমরা তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য পুলিশ দিলাম। তারা বলল যে, তার গতিবিধির উপর নজরদারি করা হচ্ছে। এই রকম বললেতো সমস্যা। আসলে তারা কি চায়, এটাই ঠিক করতে হবে। এরপর বিষয়টি বিবেচনা করা হবে। এর আগে তার জন্য স্থায়ী ভাবে পুলিশের নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব হবে না। পুলিশি নিরাপত্তা নিত চাইলে সুনির্দিষ্ট করেই পুলিশের জন্য আবেদন করতে হবে। না হলে সেটা দেওয়া সম্ভব হবে না।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সাবেক প্রধানমন্ত্রী তাহলেও কোন ধরনের পুলিশি সুযোগ সুবিধা পাওয়ার সুযোগ নেই, নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য আলাদা করে কোন পুলিশ নিয়োগ করারও সুযোগ নেই। প্রটোকল অনুযায়ী এখন তিনি কোন পদে নেই। এখন তাকে পুলিশ দিতে হলে অন্য যেসব পার্টি প্রধান আছেন তাদেরকেও দিতে হবে। সবার জন্যতো সেটা সম্ভব নয়।

খালেদা জিয়ার প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান মনে করেন, সরকার তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। পুলিশ থাকলেও সেটাও প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। কিন্তু তার জীবনের নিরাপত্তাহীনতা বিবেচনা করেই সরকারকে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। আন্দোলন দমন করার জন্য তাকে পুলিশ দিয়ে অফিসের ভেতরে আটকে রাখা হয়। বাইরে বের হতে দেওয়া হয় না। সরকার তখন বলে তিনি নিরাপদ নন। আবার নির্বাচনী প্রচারণায় গেলেও পুলিশ দিয়ে সেটা থামানোর চেষ্টা করা হয়। কিন্তু ওই সময়ে সাবেক একজন প্রধানমন্ত্রী হিসাবে যে নিরাপত্তা দেওয়ার কথা সেটা দেওয়া হয় না। তিনি বলেন, সরকারকেই তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এই জন্য আলাদা করেই আবেদন করা হবে না। কারণ এর আগে যখন তিনি আদালতে যাওয়ার পথে হামলা হয়েছিল ওই সময়ে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য পুলিশ চাওয়া হয়েছিল সেটা দেওয়া হয়নি। সময় সময় সরকার যখন মনে করেছে তাকে ঘর রাখতে হবে, প্রচারণায় যেতে দেওয়া হবে না। তখন পুলিশ দিয়ে আটকে রেখেছে। সরকার যদি মনে করে তার নিরাপত্তার জন্য আবেদন করতে হবে, তাহলে সেই আবেদনতো আগেরই করা আছে। সেই আবেদনের উপর ভিত্তি করেই দিতে পারে। নতুন করে আবেদন করার প্রয়োজন হয় না।

অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, তিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও গুরুত্ব¡পূর্ণ ব্যক্তিত্ব সেই হিসাবে তার নিরাপত্তা সরকারকেই নিশ্চিত করতে হবে। আমরা এটা আগেও অনেকবার বলেছি। কোন ঘটনা ঘটে গেলে সরকার দায় এড়াতে পারে না।

এদিকে সোমবার বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুই দুর্নীতির মামলার শুনানী হতে পারে। সোমবার তার আদালতে হাজির হওয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তার আইনজীবী ৫ মে তার পক্ষে সময় আবেদন করেন। আদালত ২৫ মে তাকে উপস্থিত হওয়ার আদেশ দেন। সেই হিসাবে তার আদালতে যাওয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। দুদকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, তিনি আদালতে হাজির না হলে তার জামিন বাতিল চাইতে পারেন দুদকের আইনজীবী। খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন সাংবাদকিদের বলেছেন, পর্যাপ্ত নিরাপত্তা পেলে দুর্নীতির দুই মামলায় সোমবার অবশ্যই আদালতে হাজির হবেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। দুই দুর্নীতির মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ ও জেরার দিন ধার্য রয়েছে। তার দাবি, খালেদা জিয়া আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। পর্যাপ্ত নিরাপত্তা পেলে, এই সময়ের মধ্যে যদি কোনো ঘটনা না ঘটে তাহলে তিনি অবশ্যই সোমবার আদালতে যাবেন। তার আরো একজন আইনজীবীও জানিয়েছেন, খালেদা জিয়ার আদালতে হাজির হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, তারা নতুন করে আবেদন করলে সরকার বিষয়টি বিবেচনা করবে। না হলে এখন যেমন আছে তেমনটি থাকবে। তবে আদালতে তার উপস্থিত হওয়ার জন্য ওই সব দিনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সব ধরনের নিরাপত্তা দিবে। আইনমন্ত্রীও এই ব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন, যাতে মামলার কাজ স্বাভাবিক গতিতে এগোয় সেই জন্য তার আদালতে উপস্থিত হওয়ার জন্য সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়। নিরাপত্তার অজুহাতে তিনি যেন আদালতে যাওয়া থেকে বিরত না থাকেন।

৫ মে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাক্ষ্য দেন মামলার বাদী দুদকের উপ-পরিচালক হারুন-অর-রশিদ। সোমবার তার সাক্ষ্যগ্রহণ করা ছাড়াও আসামিপক্ষের জেরার দিন ধার্য রয়েছে। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায়ও বাদী হিসেবে সাক্ষ্য দেন হারুন-অর-রশিদ। ৫ মে দুই আসামির পক্ষে তাকে জেরা করেন আসামিপক্ষের আইনজীবী। সোমবার অন্য আসামিদের পক্ষে তাকে অসমাপ্ত জেরারও দিন ধার্য রয়েছে।

আমাদের সময়.কম

এ জাতীয় আরও খবর

হজযাত্রী নিবন্ধনের সময় বাড়লো

খালেদাকে পদ্মা সেতুতে তুলে নদীতে ফেলে দেওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা, চারজনের যাবজ্জীবন

সিলেটে বন্যার্তদের পাশে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ক্লাসরুমে ফ্যান খুলে পড়ে চার ছাত্রী আহত

ঘরে বসে খুব সহজেই করে ফেলুন পার্লারের মতো হেয়ার স্পা

সামরিক সহায়তা চাইলো মিয়ানমারের ছায়া সরকার

হত্যা মামলায় তিন ভাইসহ চারজনের যাবজ্জীবন

এমপির গাড়িবহরে ট্রাকচাপায় লাশ হলেন ছাত্রলীগ নেতা

কান উৎসবে বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের ট্রেইলার, ফ্রান্সের পথে তথ্যমন্ত্রী

শ্রমিকের তীব্র সঙ্কট, বৃষ্টিতে তলিয়ে যাচ্ছে ধান

পল্লবীর অনুপস্থিতিতে ফ্ল্যাটে কে আসতেন, মুখ খুললেন পরিচারিকা