মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মোমঘর’ পান্ডুলিপি থেকে ‘ছায়াচিত্র

news-image

সাহিত্য ডেস্কপাতা ঝরার পর দেখি
…………………..একটি অপূর্ণ বৃক্ষ
নিঃসঙ্গতার দিকে ঝুঁকে আছে আর
তার চারদিকে ডুবে যাচ্ছে ঈশ্বর।

মূলত অন্ধকার নেমে আসলে
ঈশ্বর পূর্ণ চাঁদ নিয়ে খেলা করে
……………………………..তখন
শূন্যতাকে ছুঁয়ে থাকে জন্মান্ধ শূন্যতা

বস্তুত শূন্যতা কেবলই একটি সংখ্যা,
তাকে গুনে যাচ্ছি প্রবাহিত শূন্যতায়।

২.

রাত একটার ট্রেন আসলে আমরা পরস্পর
…………………….বিচ্ছিন্ন হয়ে যাই আর স্টেশনটি
খণ্ডিত নিদ্রার ভেতর নিজেকে উন্মুক্ত করে দেয়।

তার স্তন যুগলে
ক্রিয়াশীল শিল্পের মতো
দ্রুতলয়ে ছড়িয়ে যায় আলো।

বস্তুত আমরা সমুদ্রকে সবুজ দেখতে চাই
এবং মাছকে ভ্রমণরত বৃক্ষ মনে করি।

৩.

বদলে যেতে যেতে খোলসটাই পড়ে আছে

……………………………..দৃশ্যমান কেউ নেই,
আর আমার ভেতর ক্রমাগত বিবর্তিত হচ্ছে মাটি।

হাওয়া এসে অস্তিত্বের কথা বলে গেল…

প্রাণের অস্তিত্ব দৃশ্যত যূথবদ্ধ,
তার বিপরীতে নিঃসঙ্গতা সর্প স্বভাবের।

আধ ভাঙ্গা জল নদীতে জোড়া দিতে এসে দেখি মরে যাচ্ছে নদী …

৪.

শব্দ ঘুরে ঘুরে ফিরে যাচ্ছে
আর হাতের উপর খেলা করছে রোদ্দুর।

…………………..ও আমার বিষ্ণুপ্রিয়া
…………………..বহুদিন হয়নি যাওয়া
………………………………..নদীর ওপারে

নদীর ওপারে
কৃষ্ণ অন্ধকার__পতিত জীবন
ক্ষয়ে যাওয়া জলস্রোত__পূর্ণ অন্ধ চাঁদ ।

আমি একটি নগ্ন কবিতায় শুয়ে আছি
আর স্নানঘর থেকে ক্রমাগত ডেকে যাচ্ছে রাধা।