মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মোদির সফরে বন্ধ হবে সীমান্ত হত্যা!

news-image

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরকে কেন্দ্র করে সীমান্ত হত্যা বন্ধ হবে বলে আশাবাদি দেশের মানুষ। মোদির বাংলাদেশ সফর শেষে হয়তো সীমান্তে প্রাণ দিতে হবে না এ দেশের মানুষকে। বিএসএফের গুলি, অনুপ্রবেশ,অপহরণসহ দেশের মানুষের ওপর নির্যাতন অত্যাচার বন্ধ হতে পারে বলে মত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে রোববার সকালেও বেনাপোলে বিএসএফের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন এক গরু ব্যবসায়ী। আবু সাইদ নামে (২৭) ওই ব্যবসায়ী গরু আনতে গেলে পুটখালী সীমান্তে বিএসএফ তাকে গুলি করে। পরে স্থানীয় থানা পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। আবু সাইদ র্শাশার রামপুর গ্রামের ওয়াহাবের ছেলে।

গত ৭ মে বাংলাদেশ -ভারত স্থল সীমান্ত চুক্তির পরেও থেমে নেই বিএসএফ’র হত্যাকান্ড। স্থল চুক্তির পরেও এ পর্যন্ত বিএসএফ প্রায় ৪ বাংলাদেশীকে গুলি করে হত্যা করেছে। ১৩ মে এবং ১৪ মে আরো দুই জনকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করেছে বিএসএফ।

এদিকে মানবাধিকার ভিত্তিক সংগঠন ‘অধিকার’ বলছে এখনো প্রর্যন্ত ভারত-বাংলাদেশের সীমান্ত বিশ্বের সবচেয়ে বেশি অনিরাপদ এবং রক্তক্ষয়ী সীমান্ত। শুধুমাত্র গত ৪ মাসেই বিএসএফর গুলিতে নিহত হয়েছে মাত্র ১৭জন এবং আহত হয়েছে ২৭জন।

অধিকারের রির্পোট বলছে গত ২০০৮ সাল থেকে চলতি বছরে বিএসএফের গুলিতে নিহত হয়েছে ৫শ’র বেশি। এ সময়ে গুলিতে আহতের ঘটনা ঘটেছে সাড়ে ৫’শ মানুষ। একই সময়ে বিএসএফ অপহরণ করেছে প্রায় ১হাজার মানুষ। তাদের মধ্যে নারী পুরুষও রয়েছে। ২০০৮ সাল থেকে বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকারের ঘটনা ঘটেছে ৫ হাজারের বেশি।

অধিকার থেকে পাওয়া গেছে, গত ২০০৮ সালে বিভিন্নভাবে বিএসএফর হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছে ২১১ জন, ২০০৯ সালে ৩০৮জন, ২০১০ সালে ১৯৭ জন, ২০১১তে ১২৫ জন। ২০১২সালে সালে নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় এ সময়ে নির্যাতনের শিকার হয়। দেশের ২’শ ৩৮ জন মানুষ। ২০১৩তে নির্যাতন বেড়ে যাওয়ায় সাড়ে ৩’শ মানুষ শিকার হয়। ২০১৪সালে ২০৯ জন নির্যাতনের শিকার হয়েছে। অপরদিকে চলতি বছরের শুরু থেকে গত ৪ মাসেই নির্যাতনের শিকার হয়েছে ৬০ জন।

সম্প্রতি স্থলসীমান্ত চুক্তির সময়ে বিএনপির নেতারা সাধুবাদ জানালেও তারা সীমান্তে হত্যা বন্ধের আহবান জানিয়েছেন। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড.মইন খান বলেছেন, এ দেশের মানুষের নিরাপত্তার স্বার্থে সীমান্ত হত্যা বন্ধের ব্যাপারে ভারতের চিন্তা-ভাবনা করা দরকার।

এ জাতীয় আরও খবর