রবিবার, ২২শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কানে এশিয়ার দাপট !

news-image

চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য কান একটা ঐতিহ্যবাহী চিত্রমেলা। শিল্পশোভন ও সুকুমার মনোবৃত্তির ছবি যারা নির্মাণ করেন তাদের কাছে কান একটি লোভনীয় স্থানই বলা যায়। তাই এশিয়া মহাদেশে যারা শিল্পশোভন চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন তাদের কাছে এই উৎসবটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। সবারই লক্ষ্য থাকে কান উৎসব। উৎসবের ৬৮তম আসরে এশিয়ান চলচ্চিত্রের দাপট সুস্পষ্ট।

ইউরোপ ও আমেরিকার নির্মাতাদের যেসব ছবি উৎসবে স্থান পায়নি তাদের মনে মনে ক্ষোভ থাকতেই পারে। কারণ এক সময় কান ছিল হলিউড ও ইউরোপীয় নির্মাতাদের তীর্থ ভূমি। এশিয়ার সরব উপস্থিতির কারণে পাশ্চাত্যের নির্মাতাদের গুরুত্ব অনেকটাই খর্ব হয়ে এসেছে এ উৎসবে। এবারই প্রথম তা প্রকটভাবে লক্ষ্য করা গেছে। ভারত, জাপান, চীন, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান আর ফিলিপাইনের এক বা একাধিক ছবি স্থান পেয়েছে কানের এ আসরে। ভারতীয় গ্ল্যামারের বন্যায় প্রায় ভেসে গেছে কান উৎসব। উৎসবের অষ্টম দিনে বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে প্রতিযোগিতা বিভাগে হয়ে গেলো চীনা নির্মাতা জিয়া ঝ্যাং-কি পরিচালিত ‘মাউন্টেনস মে ডিপার্ট’ ছবির উদ্বোধনী প্রদর্শনী। এর চীনা নাম ‘শান হি গু রেন’। কথাটার বাংলা অর্থ- পুরনো বন্ধুরা অনেকটা পর্বত ও নদীর মতো। এ নিয়ে চতুর্থবার কানের প্রতিযোগিতা বিভাগে স্থান পেলো ঝ্যাং-কি’র ছবি। দুবছর আগে তার ‘অ্যা টাচ অব সিন’ প্রিক্স দু সিনারিও পুরস্কার জেতে। নতুন ছবি নিয়ে তিনি বলেন, ‘চীনাদের দৈনন্দিন জীবনে সাম্প্রতিক পারস্পরিক অঙ্গীকারবদ্ধ সম্পর্কে গভীর পতন লক্ষ্য করেছি।’

উৎসবের প্রতিযোগিতা বিভাগে এশীয় অঞ্চল থেকে আরো আছে তাইওয়ানের হু সিয়াও সিয়েনের ‘দ্য অ্যাসাসিন’। এছাড়া আগেই জাপানের কোরি-ইদা হিরোকাজুর ‘আওয়ার লিটল সিস্টার’ ছবির প্রদর্শনী হয়ে গেছে।

আনসার্টেন রিগার্ড বিভাগেও এশীয়দের উপস্থিতি লক্ষণীয়। দক্ষিণ কোরিয়ার নারী নির্মাতা শিন সু ওনের ‘ম্যাডোনা’ প্রদর্শিত হয়েছে। এটি তার তৃতীয় পূর্ণদৈর্ঘ্য কাহিনিচিত্র। ছবিটি নির্মাণে এডভার্ড মাঞ্চের একই নামের সৃষ্টিকর্ম অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে তাকে। এর গল্পে দেখা যায়, শিওল-ও নামের এক প্যারালাইজড রোগীর সেবা করে সেবিকা হায়ে-রিম। শিওলের হƒৎপিণ্ড প্রতিস্থাপন করা জরুরি। বাবার সুস্থতার কথা ভেবে তার ছেলে স্যাঙ-উ টাকা কিংবা ক্ষমতার জোরে সবই করতে প্রস্তুত। একদিন দুর্ঘটনায় আহত হয়ে হাসপাতালে আসে মি-না নামের একটি মেয়ে। টাকার বিনিময়ে স্যাঙয়ের কথা মেনে চলতে থাকে হায়ে-রিম। সে মি-নার পরিবারকে খুঁজে বের করে হƒৎপিণ্ড দান করার অনুমতি নেওয়ার পাঁয়তারা করে। রিম জানতে পারে মি-নার ডাকনাম ম্যাডোনা। মেয়েটা খুব দরিদ্র। কিন্তু তার অতীত জানতে পেরে ভড়কে যায় হায়ে-রিম।

আনসার্টেন রিগার্ড বিভাগে এশিয়া থেকে নারী নির্মাতাদের মধ্যে আরো স্থান পেয়েছে জাপানের নাওমি কাওয়াসের ‘অ্যান’। এর ইংরেজি নাম- ‘সুইট রেড বিন পেস্ট’। একই বিভাগে গত কদিনে দেখানো এশীয় অন্য দুটি ছবি হলোÑ জাপানের কুরোসাওয়া কিওশির ‘জার্নি টু দ্য শোর’  এবং দক্ষিণ কোরিয়ার ওহ-সিউঙ ওক পরিচালিত ‘দ্য শেমলেস’। এশিয়ার আরেক দেশ ফিলিপাইনের ব্রিলান্তে মেনদোজা পরিচালিত ‘তাকলুব’ প্রদর্শিত হয় আগের দিন। ২০১৩ সালের ৮ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড়ের প্রেক্ষাপটে তৈরি করা এর চিত্রনাট্য। আনসার্টেন রিগার্ড বিভাগে সাল বাজিনে প্রদর্শিত ভারতীয় নির্মাতা নীরাজ ঘাইবানের ‘মাসান’ মুগ্ধ করেছে সমালোচক ও দর্শকদের। তাই সবাই পাঁচ মিনিট ধরে দাঁড়িয়ে অভিবাদন জানান এর কলাকুশলীকে। এ সময় আনন্দাশ্র“ দেখা যায় ছবিটির অভিনেত্রী রিচা চাড্ডা ও শ্বেতা ত্রিপতির চোখে। টুইটারে নীরাজ বলেন, ‘অবিরাম প্রশংসার বৃষ্টিতে ভিজে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েছি। সবাইকে ধন্যবাদ।’ হিন্দি শব্দ ‘মাসান’-এর অর্থ শ্মশান। নীরাজ এর আগে অনুরাগ কাশ্যাপের ‘গ্যাংস অব ওয়াসেপুর’ চবির দুটি পর্বে সহকারী হিসেবে কাজ করেছেন। অনুরাগই প্রযোজনা করেছেন ‘মাসান’। এটাই নীরাজের প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য কাহিনিচিত্র। আনসার্টেন রিগার্ডে ভারতের একটি পাঞ্জাবি চলচ্চিত্রও আছে। ‘চাউথি কুত’ (দ্য ফোর্থ থট) নামের ছবিটি পরিচালনা করেছেন গুরবিন্দর সিং। অভিনয়ে নিখিল সাহানি, ভিকি কৌশল ও সঞ্জয় মিশ্র। এটিও প্রশংসিত হয়েছে।

অন্যান্য বিভাগে এশিয়া : উৎসবের শুরুর দিকে মধ্যরাতের আয়োজনে আগের দিন ছিল দক্ষিণ কোরিয়ার হঙ ওন চ্যানের ‘অফিস’। কান ক্ল্যাসিকসে আছে ফুকাসাকু কিনজির ‘ব্যাটেলস উইদাউথ অনার অ্যান্ড হিউম্যানিটি’ (১৯৭৩), হু কিংয়ের ‘অ্যা টাচ অব জেন’ (১৯৭১), মিজোগুচি কেনজির ‘দ্য স্টোরি অব দ্য লাস্ট রাইস্যানথিমাম’ (১৯৩৯)। এছাড়া সাগরপাড়ে দেখানো হয়েছে আকিরা কুরোসাওয়ার ‘রান’ (১৯৮৫)।

অরসন ওয়েলেসকে শ্রদ্ধা : হলিউডের বিখ্যাত নির্মাতা অরসন ওয়েলেসকে উৎসবের ধ্র“পদী বিভাগে বিশেষ শ্রদ্ধা জানানো হলো। এদিন সন্ধ্যা ৭টায় প্রদর্শিত হয়েছে তাকে নিয়ে নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র ‘দিস ইজ অরসন ওয়েলেস’। বানিয়েছেন দুই নারী নির্মাতা ক্লারা ও জুলিয়া কাপারবার্গ। এরপরই দেখানো হয় অরসন ওয়েলেসের অস্কারজয়ী ছবি ‘সিটিজেন কেন’ (১৯৪১)। দুটিরই প্রদর্শনী হয়েছে সাল বুনুয়েলে। একই স্থানে কান ক্ল্যাসিকস বিভাগে ছিল লঁরা ওথের ‘বার্নড আইস’ (১৯৮৬)।

তারার আলো : প্রতিদিনই আয়োজন ছিল লালগালিচায় হেঁটে যাওয়ার। তবে লালগালিচায় আলাদাভাবে নজর কেড়েছেন বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন, মার্কিন অভিনেত্রী জেন ফন্ডা, সিয়েনা মিলার, ব্রিটিশ অভিনেত্রী যাচেল ভাইস, ফরাসি অভিনেত্রী সোফি মার্সো, এমা ডি কুন্স, ফরাসি নির্মাতা ভ্যালেরি দনজেল্লি, ডাচ মডেল লরা স্টোন প্রমুখ।

এ জাতীয় আরও খবর

‘দাদাগিরি’র গ্র্যান্ড ফিনালেতে নাচলেন সৌরভ-ডোনা

ফাঁকিবাজ শিক্ষকদের শাস্তিযোগ্য বদলি প্রয়োজন: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

আমি কোন সার্জারি করিনি, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা: সাফা কবির

বড় পরিবর্তন আসছে এনটিআরসিএতে, থাকছে না নিবন্ধন পরীক্ষা

ইসরায়েলি বাহিনীর গুলিতে ফিলিস্তিনি কিশোর নিহত

বজ্রপাতে মাঠেই পুড়লো কৃষকের ধান

গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবনে বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি’

নওগাঁয় ঝরে পড়া আম বিক্রি হচ্ছে ২ টাকায়

সিভিল কেস ‘বেগুন ক্ষেতের মতো’, এটা পরিবর্তন করতে হবে

‘পানি সংকটে’ রাজশাহীতে কমেছে গমচাষ

ভোটগ্রহণের দিনে নির্বাচন স্থগিতের নির্দেশ আদালতের

তালাক দেওয়ায় স্ত্রীর ‘আপত্তিকর’ ছবি ফাঁস করলেন স্বামী