মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আখাউড়া-সিলেট রেলপথের মুকুন্দপুর রেলস্টেশন বন্ধ সিগন্যাল দূরের স্টেশন থেকে

news-image

আমিরজাদা চৌধুরী আখাউড়া-সিলেট রেলপথের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরের মুকুন্দপুর রেলস্টেশন গত ৪ দিন ধরে বন্ধ রয়েছে। সন্ত্রাসীদের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন স্টেশন মাস্টারসহ ওই স্টেশনে কর্মরত ৭-৮ জন স্টাফের সবাই। স্টেশন বন্ধ থাকার কারণে সিগন্যালও হচ্ছে না। দূরবর্তী স্টেশনের সিগন্যালে এই পথে ট্রেন চলাচল করছে। অভিযোগ পাওয়া গেছে, এক ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তার ছোট কয়েক ভাই তাদের দলবল নিয়ে গত ১৯শে মে স্টেশনে এসে হামলা চালায়। এ সময় স্টেশন স্টাফদের সবাই পার্শ্ববর্তী বিজিবি ক্যাম্পে গিয়ে আশ্রয় নেন। বিজিবির সদস্যরা  এসে স্টেশনের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। এ ঘটনার পর থেকে বন্ধ রয়েছে স্টেশনটি। মুকুন্দপুর স্টেশন মাস্টার এসএম  হুমায়ুন কবির জানান, স্টেশনটি এখন তালাবদ্ধ। ঘটনার পর থেকে তারা কেউ আর স্টেশনে যাওয়ার সাহস পাচ্ছেন না। তিনি জানান- গত ১৯শে মে স্টেশনের ভেতরের একটি আমগাছ থেকে আম পেড়ে  স্টেশনের স্টাফরা ভাগ করে নেন। এ কারণে ঐদিন সন্ধ্যায় শাহজাহান, মানিক, মিলন ও মুশফিকুর রহমানের নেতৃত্বে আরও ৭/৮ জন মাতাল হয়ে স্টেশনে আসে আমাকে (স্টেশন মাস্টার) মারতে।  অবস্থা খারাপ দেখে আমিসহ স্টেশনের সকল স্টাফ দৌড়ে পার্শ্ববর্তী বিজিবি ক্যাম্পে গিয়ে আশ্রয় নিয়ে নিজেদের রক্ষা করি। হামলাকারী শাহজাহান, মিলন, মানিক ও মুশফিক কামালমোড়া গ্রামের এলাই মিয়া মেম্বারের ছেলে বলে জানা গেছে। রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি হুমায়ুন কবির তাদের আপন বড়ভাই। স্টেশন স্টাফ ও এলাকার অন্যান্য সূত্র থেকে আরও জানা গেছে- ডিআইজি’র নাম ভাঙিয়ে শাহজাহান, মিলন, মানিকরা দীর্ঘদিন ধরেই স্টেশনের স্টাফদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়ে আসছে। স্টেশনের গাছপালার সকল ফল-ফসল এরা জোর করে নিয়ে যায়। জোরপূর্বক ট্রেনের টিকেট নিয়ে যাওয়া ছাড়াও স্টেশনকেন্দ্রিক আরও নানা অপরাধের নেতৃত্বে রয়েছে ডিআইজি’র এই ভাইয়েরা। তাদের এই তৎপরতার প্রতিবাদ করলেই স্টেশন স্টাফদের ওপর হামলা চালানো হয়। কয়েকদিন আগে স্টেশন মাস্টার এসএম হুমায়ুন কবিরকে তার সরকারি বাসভবনে গিয়ে মারধর করে এরা। গত এক মাসে ৪ বার এমন হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে জানান স্টেশন মাস্টার হুমায়ুন। এদিকে ১৯শে মে থেকে মুকুন্দপুর স্টেশন বন্ধ থাকায় কোন সিগন্যালও হচ্ছে না। পাশের হরষপুর স্টেশনটিও দুপুর ২ টার পর বন্ধ হয়ে যায়। ফলে দূরবর্তী আখাউড়ার আজমপুর স্টেশনের পর মনতলা থেকে সিগন্যালে আখাউড়া-সিলেট রেলপথের এই অংশে ট্রেন চলাচল করছে। এ ব্যাপারে আখাউড়া জিআরপি থানায় অভিযোগ  দেয়ার কথা জানিয়েছেন স্টেশন মাস্টার হুমায়ুন কবির। জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইয়াছিন ফারুক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান- ঘটনার পরদিনই (২০শে মে) তিনি ওই স্টেশনে গিয়েছিলেন। ওই সময় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি মীমাংসা করে দেবেন বলে তাকে জানান। তবে তিনি কোন কমপ্লেন পাননি জানিয়ে বলেন, কমপ্লিন পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। পাহাড়পুর ইউপি চেয়ারম্যান মাঈনুদ্দিন চিশতী বলেন- স্টেশন এখন তালাবদ্ধ। ষ্টেশনের সবকিছু ডিআইজি’র ভাইয়েরা নিয়ন্ত্রন করে বলে জানান ইউপি চেয়ারম্যান। বলেন, তাদের হাতে প্রায়ই স্টেশন স্টাফরা লাঞ্ছিত হয়। এদিকে ঘটনার মীমাংসায় জিআরপির ওসির সঙ্গে কথা বলে তিনি একটি উদ্যোগ নিয়েছিলেন জানিয়ে বলেন, ২০শে মে সন্ধ্যায় আমার নেতৃত্বে মুকুন্দপুর রেলস্টেশনে কামালমোড়া সেজামোড়া, নজরপুর ও গোয়ালনগর গ্রামের লোকজনের একটি সালিশ সভা হয়। এতে ডিআইজি’র ভাইদের আর কখনো এমন করবে না বলে অঙ্গীকার করতে বলা হয়। কিন্তু তাতে রাজী না হয়ে এরা সালিশ সভা ছেড়ে চলে যায়। চেয়ারম্যান বলেন- আমি বিষয়টি শেষ করতে পারিনি বলে জিআরপি থানার ওসিকে জানিয়ে দিয়েছি। 

এ জাতীয় আরও খবর