মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাঞ্ছারামপুরে ৭৩ প্রতিদ্বন্দ্বীর সবাই আওয়ামী লীগের

news-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর পৌরসভার প্রথম নির্বাচন এককভাবেই করছে আওয়ামী লীগ। নির্বাচনের চেহারা ‘আমরা-আমরা’ টাইপের হলেও প্রতিদ্বন্দ্বীর কমতি নেই। মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে লড়তে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৭৩ জন। নিশ্চিত ভোট কারচুপির আশঙ্কায় বিএনপি বা তাদের জোটের কেউই এ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন না বলে জানান বিএনপি নেতারা। আগামী ১৫ই জুন এ পৌরসভার ভোটগ্রহণ। মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষদিনে মেয়র পদে ১৮, ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৫ এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১০ জন মনোনয়পত্র জমা দেন। তাদের সবাই আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী। যদিও মেয়র পদে দলের একক সমর্থন দেয়া হয়নি এখনও কাউকে। ১৮ জনের মধ্যে দলের মনোনয়ন কে পাচ্ছেন তা নিয়েই আলোচনা সবার মধ্যে। দলীয় সূত্র জানায়, এলাকার সংসদ সদস্য সাবেক মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ক্যাপ্টেন (অব.) এ বি তাজুল ইসলামের দিকেই চেয়ে আছেন মেয়র পদের এ প্রার্থীরা।

দলীয় মনোনয়ন পেতে চেষ্টা-তদবির চলছে তাদের। এ বিষয়ে ক্যাপ্টেন (অব.) এ বি তাজুল ইসলাম বলেন, আমরা এখনও কোন সিদ্ধান্ত নিইনি। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়তো একটা উদ্যোগ নিতে পারেন। তবে আমি মনে করি বিএনপি যেহেতু নেই আর সবাই আমাদের, তাই একক করে কাউকে সমর্থন দেয়া হবে নাকি সবাই প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকবেন, সেটি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির সঙ্গে কথা বলে আমরা ঠিক করবো। আর বিএনপি নির্বাচনে না আসার অন্য কোন কারণ নেই। আসলে তাদের কোন প্রার্থীই নেই। এখানে বিএনপির একক নেতৃত্বও নেই। কেন্দ্রীয়ভাবেও বিএনপির অবস্থা নড়বড়ে। তৃণমূলেও যার প্রতিফলন রয়েছে। অন্যদিকে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল মান্নান সাংবাদিকদের বলেছেন, বাঞ্ছারামপুরে বিএনপির নির্বাচন করার কোন পরিবেশ নেই। বিগত দিনের নির্বাচনে নজিরবিহীন ভোট কারচুপি এবং প্রার্থীদের হয়রানির কারণে এ নির্বাচনে তাদের দলীয় কোন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেননি। মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমাদানকারীরা হচ্ছেন বাঞ্ছারামপুর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সাইদুল ইসলাম বকুল, সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন, সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমান টিপু মোল্লা, উপজেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক মাহমুদুল হাসান ভূঁইয়া, বাঞ্ছারামপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার শরীফুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আনোয়ার হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা জামাল উদ্দিন, বাঞ্ছারামপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হযরত আলী, স্থানীয় যুবলীগ নেতা সুমন আহমেদ, উপজেলা যুবলীগের ধর্মবিষয়ক সম্পাদক মো. ইসমাইল, আওয়ামী লীগ নেতা মো. লোকমান হোসেন, যুবলীগ নেতা মো. জাকির হোসেন মিঠু, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু নাসির ও আওয়ামী লীগ নেতা কাজী আবদুর রশিদ। ১৮ জন মেয়র প্রার্থীর মধ্যে ৮ জনই দশদোনা গ্রামের। এক গ্রাম থেকে এতজন মেয়র প্রার্থী হওয়ার বিষয়টিও চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। তবে একক নির্বাচন হওয়ায় প্রথম নির্বাচন হিসেবে যে উৎসাহ-উদ্দীপনা থাকার কথা তেমনটা নেই ভোটারদের মধ্যে। বাঞ্ছারামপুর উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, আজ মনোনয়নপত্র বাছাই, প্রত্যাহার ২৯শে মে এবং ১৫ই জুন ভোটগ্রহণ করা হবে এ পৌরসভা নির্বাচনের।

 

এ জাতীয় আরও খবর