শনিবার, ২১শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ সরকারকে বিশ্বের ১৫০ লেখকের খোলা চিঠি

news-image

বাংলাদেশে অনন্ত, অভিজিতসহ ব্লগার হত্যার ঘটনায় উদ্বেগ ও নিন্দা জানিয়েছেন, মার্গারেট অ্যাটউড, সালমান রুশদি, জো গেইনভিলসহ বিশ্বের প্রতিষ্ঠিত ১৫০ জনেরও বেশি লেখক। দ্রুত ব্যবস্থা নিতে লেখকরা বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, গত তিনমাসে মুক্তমত প্রকাশ করে এমন তিনজনকে হত্যা করা হয়েছে, এটি কোনো স্বাভাবিক ঘটনা নয়।

শুক্রবার সালমান রুশদি ও মার্গারেট অ্যাটউডসহ বিশ্বের ১৫০ জনের বেশি লেখক দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকার একটি খোলাচিঠিতে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে স্বাক্ষর করেছেন। তারা এই চিঠিটি বাংলাদেশ সরকারের উদ্দেশ্যে লিখেছেন বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়। ভবিষ্যতে যেন এমমন মুক্তচিন্তার লেখক বা মানুষদের প্রাণহানি না ঘটে সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে তারা সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। দোষী ব্যক্তিদের শান্তি নিশ্চিত করারও অনুরোধ জানান তারা।

খোলা চিঠিতে বলা হয়, আমরা মনে করি আমাদের এই আহ্বান বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নজরে আসবে এবং তিনি অবশ্যই মুক্তমনের লেখক , কবি , সাহিত্যিকদের নিরাপত্তার বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন। মার্গারেট অ্যাটউড জানান, আমি জানি বাংলাদেশ একটি ধর্ম নিরপেক্ষ দেশ। বাংলাদেশের সংবিধানে সকল ধর্মের জন্য সমান অধিকার নিশ্চিত করা রয়েছে। তাছাড়া বর্তমান সরকার জঙ্গী দমনে কঠোর হবার ঘোষণা দিয়েছে।

লেখক ও ইংলিশ পেন এর পরিচালক জো গেইনভিল এই খোলা চিঠির মাধ্যমে বাংলাদেশের সব লেখক ও মুক্তমনের মানুষদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। পাশাপাশি জো ইংলিশম পেনের মাধ্যমে বিশ্বের সব মুক্ত মনের লেখকদের এ ব্যাপারে বিভিন্নভাবে তাদের মত তৈরির আহ্বান জানান। জো বলেন তিনি এ ব্যাপারে ক্যাম্পেইন চালিয়ে যাবেন এবং তিনি আশা করেন , বাংলাদেশ সরকার এ ব্যাপারে শিগগিরই উদ্যোগ নেবেন।

এটি সরকারকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখতে হবে । লেখকরা বাংলাদেশ সরকার ও সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশ্যে খোলা চিঠিতে আহ্বান জানিয়ে বলেন, আমরা মনে করি বিশ্বের সব মুক্তচিন্তার মানুষ একই চিন্তার। বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বিজ্ঞানমনস্ক মানুষদের এভাবে হত্যা করা হলে দেশটির জন্য ক্ষতি হবে।

শুক্রবার গার্ডিয়ানের খবরে জানানো হয়, গত সপ্তাহে সিলেটে জনাকীর্ণ সড়কে অনন্ত বিজয় দাস খুন হন। নিজের কর্মস্থলে যাওয়ার পথে মুখোশধারী চার হামলাকারী তাকে ধাওয়া করে এবং চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে।

অনন্ত মুক্তমনা নামের একটি ব্লগের প্রদায়ক হিসেবে কাজ করতেন। ২০০২ সালে অভিজিৎ রায় মুক্তমনা ব্লগটি প্রতিষ্ঠা করেন। সেখানে অনন্ত বিজ্ঞান ও বিবর্তন বিষয়ে লেখা পোস্ট করতেন। সেখানে ইসলাম ও হিন্দুত্ববাদকে সমালোচনা করেও তার কিছু লেখা ছিল।

তার সহকর্মী লেখকদের মতে, জঙ্গিদের হত্যা তালিকায় অভিজিৎ রায়ের পরই তার নাম ছিল। গত ফেব্রুয়ারিতে অভিজিৎ ও তার স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যা হামলার শিকার হন। ওই হামলায় অভিজিৎ নিহত হন। পরের মাসেই আরেক ব্লগার ওয়াশিকুর রহমানকে হত্যা করা হয়।

ওই চিঠিতে জানানো হয়, এই তিন ব্লগারসহ ২০১৩ সাল থেকে বাংলাদেশে শান্তিপূর্ণভাবে মত প্রকাশকারী লেখক ও সাংবাদিকদের প্রতি এমন সহিংসতার ঘটনায় তারা উদ্বিগ্ন।

আমাদের সময়.কম

এ জাতীয় আরও খবর