মঙ্গলবার, ২৪শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়ার সঙ্গে তিন মন্ত্রীর ছবি নিয়ে তোলপাড়

news-image

সরকারের তিনজন মন্ত্রী ও মহাজোটের একজন সংসদ সদস্যের খালেদা জিয়ার সঙ্গে একসঙ্গে মিছিল করেছিলেন এমন একটি ছবি সামাজিক মিডিয়ায় ঝড় তুলেছে। ছবিটি ফেসবুকে পোস্ট করেছেন রাফিউর রাব্বি। যিনি নারায়ণগঞ্জে খুনের শিকার ত্বকি’র বাবা। তার এই ছবিতে নানা ধরনের মন্তব্য আসছে।

২৩ ঘণ্টা আগে পোস্ট করা ছবিতে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে রাজপথের একটি মিছিলে বর্তমান সরকারের ৩ মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যেও অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়। মিছিলের অগ্রভাবেই খালেদা জিয়ার বাম পাশে ছিলেন বর্তমান নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খান। ডান পাশে সবচে’ কাছে ছিলেন ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা ও বর্তমান বেসামরিক বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। ঠিক পেছনেই ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। আর সবার সামনে ছিলেন সংসদ সদস্য শিরিণ আক্তার।

ছবিটি সম্ভবত: এরশাদ বিরোধী আন্দোলনের সময়ের তোলা। ছবিতে এসব নেতা ও মন্ত্রীকে লাল রঙ দিয়ে গোল কওে চিহ্নিত করে দেয়া হয়েছে। শাজাহান খান তখনও আওয়ামী লীগে যোগ দেননি। তখন তিনি জাসদের নেতা ছিলেন। রাফিউর রাব্বি ছবিটি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘খালেদা জিয়ার সাথে মিছিলে গোলচিহ্নিত করা লোকগুলোকে কি চেনা যায়? কিন্তু আজ তাদের চেনা যায় না।’

ফেসবুকে পোস্ট করা ছবিতে তার কমেন্ট অনেকটা ক্ষোভের বহি:প্রকাশ। ছেলে ত্বকির নির্মম হত্যাকা-ের পর তা নিয়ে রাজনীতি এবং বিচারহীনতায় ক্ষুব্ধ বাবার প্রতিক্রিয়া ফুটে উঠেছে। তার এই ছবিতে নানাজনে নানা কমেন্ট করেছেন। কেউ কেউ শেয়ার করে নিজের কমেন্ট জুড়ে দিচ্ছেন। সাংবাদিক শামীমা বিনতে রহমান তার ছবি শেয়ার করে লিখেছেন, “পাল্টায় চেনামুখের দেখন হাসি/পাল্টাও তুমি, তোমায় দেখতে আসি”। দেখতেসি এইখানে খালেদা জিয়ার সাথে একই মিছিলে রাশেদ খান মেনন, হাসানুল হক ইনু, শাজাহান খান এবং শিরীন আখতারকে। ইনারা খালেদার কাছেও “বিপ্লব” বেচছিল। এখন অবশ্য বাজার ভালো, “বিপ্লব” বেইচা বুইচা নাদুস নুদুুস হৈসেন তারা। ধন্যবাদ রফিউর রাব্বী।’

এছাড়াও নানা ধরনের কমেন্ট এসেছে এই ছবিতে। তিন মন্ত্রীর কর্মকা- নিয়ে সমালোচনা করেছেন কেউ কেউ। খালেদা জিয়ার সঙ্গে না থাকার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন অনেকে। কেউ লিখেছেন, খালেদা জিয়া তাদেও মন্ত্রী করেননি বলেই তারা এখন আওয়ামী লীগ সরকারের মন্ত্রী। কেউ কেউ তাদের অবস্থানকে সমর্থন করেছেন, কেউ দিয়েছেন গালি।’

আমাদের সময়.কম