বুধবার, ১৮ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অক্টোবরে বিএনপির কাউন্সিল!

news-image

দলীয় নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করতে আগামী অক্টোবরে কাউন্সিল করবে বিএনপি। সে লক্ষ্যে এ মাসেই শুরু হয়েছে সাংগঠনিক কার্যক্রম। কাউন্সিলের পর বছরের শেষ দিকে রাজপথের কর্মসূচি দেবে দলটি। এমন তথ্যই জানিয়েছেন বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের একটি সূত্র।

আন্দোলন ও সরকারের দমন-পীড়নে বিপর্যস্ত তৃণমূলে প্রাণ ফিরিয়ে আনতে আপাতত রাজপথের কর্মসূচিতে যাচ্ছে না দলটি। এর বদলে সিটি নির্বাচনকে ঘিরে সরকারের ওপর যে আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি হয়েছে, তা আরো বাড়াতে নানামুখী তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন দলটির নেতারা। দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এই সময়ে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ দেশ সফরও করতে পারেন বলে জানিয়েছে কয়েকটি সূত্র।

বিএনপির সূত্রে জানা গেছে, সাংগঠনিক গতি ফিরিয়ে আনতে আগামী কয়েক মাস নানামুখী উদ্যোগ নেবে দলটি। বাধ্য না হলে আপাতত কঠোর কোনো কর্মসূচি নয়। রমজান থেকে শুরু করে কোরবানি পর্যন্ত সংগঠন গোছানো হবে। এরপর অক্টোবরে হতে পারে দলের ষষ্ঠ কাউন্সিল। কাউন্সিল হলে স্থায়ী কমিটি থেকে শুরু করে গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতে পরিবর্তন আনা হবে।

ইতোমধ্যে তৃণমূলকে চাঙ্গা করার বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে বিএনপি। ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরি করতে বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের কাছে চিঠি দেয়া হয়েছে। গত ফেব্র“য়ারি মাসে খালেদা জিয়া এ নির্দেশনা দিয়েছিলেন।

সিটি নির্বাচনের পর আগামী দিনের পথচলা নিয়ে বিএনপি একটি যৌথসভার আয়োজন করে। এছাড়া আর কোনো বৈঠক করেনি দলটি। তবে শীর্ষ নেতারা আন্দোলন কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে না পৌঁছার কারণ অনুসন্ধান করছেন। একই সাথে তারা সিটি নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়মের ঘটনায় দেশের ভেতরে-বাইরে যে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে, তা কাজে লাগানোর কথা চিন্তা করছেন। বিএনপির হাইকমান্ড আন্দোলনের লক্ষ্যে না পৌঁছার মূল কারণ হিসেবে সরকারের দমন-পীড়নকেই দায়ী করছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) আ.স.ম হান্নান শাহ বলেছেন, গণতান্ত্রিক কোনো কর্মসূচির সুযোগ এ সরকার রাখেনি। বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিকে নাশকতার প্রলেপ দিয়ে গত জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত দলের নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতন চালানো হয়েছে। নেতাকর্মীরা কোথাও জড়ো হয়ে একটি মিছিল করবে, সেই সুযোগটুকু পর্যন্ত দেয়া হয়নি। দেখামাত্র গুলি করা হয়েছে। পাশাপাশি প্রশাসনের সহায়তায় মামলা আর গণগ্রেফতার চালিয়ে তারা আন্দোলন দমন করেছে।

সরকারের দমন-পীড়নের পাশাপাশি দলটির সাংগঠনিক দুর্বলতার দিকটিও আন্দোলন সফল না হওয়ার কারণ হিসেবে তুলে আনছেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। এক্ষেত্রে আন্দোলন কতটা পরিকল্পিত ছিল, কে কী ভূমিকা রেখেছেন, তা নিয়েও কাটাছেঁড়া চলছে।

বিএনপি হাইকমান্ডের মূল্যায়ন অনুযায়ী, আন্দোলনের মাঠে, বিশেষ করে ঢাকায় এবারো সঙ্ঘবদ্ধ সাংগঠনিক তৎপরতা তেমন একটা ছিল না। ঢাকা মহানগর বিএনপি, ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলও প্রত্যাশা অনুযায়ী ভূমিকা রাখতে পারেনি। গত জানুয়ারিতে আন্দোলন শুরুর দিকে বেশির ভাগ জেলা কমিটি সক্রিয় থাকলেও পরে অনেক জেলায় আন্দোলন স্তিমিত হয়ে পড়ে। ১৫-২০টি জেলায় নিয়মিত কর্মসূচি পালিত হলেও বাকি জেলাগুলোতে নেতাকর্মীদের রাজপথে তেমন একটা দেখা যায়নি। কোনো কোনো জেলার নেতারা আন্দোলন শুরুর পর নিরাপদ স্থানে চলে যান। নেতাকর্মীদের সাথে এরা কোনো যোগাযোগই রাখেননি।

আমাদের সময়.কম

এ জাতীয় আরও খবর

বাংলাদেশকে লিডের স্বপ্ন দেখাচ্ছেন তামিম-মুশফিক-লিটন

দেশের শীর্ষ ৫ ব্যাংকের একটি হওয়ার লক্ষ্য এনসিসি ব্যাংকের

এআইইউবি রোবোটিক দলকে পৃষ্ঠপোষকতা ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের

গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রীর ‘আত্মহত্যা’

সুনামগঞ্জে পাহাড়ি ঢলে যোগাযোগ-বিচ্ছিন্ন

নাতির সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে দাদার মৃত্যু

ট্রেনের টয়লেট থেকে বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার

হামলায় মাথা ফাটল ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীর

প্রেমিকার বাড়ির পাশে প্রেমিকের ক্ষত-বিক্ষত লাশ

ওষুধ খাইয়ে স্বামীকে ঘুম পারান স্ত্রী, গলাটিপে হত্যা করেন পরকীয়া প্রেমিক

আকস্মিক ধুলি-ঝড়ে বিপর্যস্ত সৌদির রাজধানী রিয়াদ

রিয়াজের মাছ ধরা নিয়ে চলছে হাসিঠাট্টা